Categories
Uncategorized

আমার অবস্থা খারাপ, গরম পানির সেঁক দিয়েও কাজ হচ্ছে না: নিপুণ

বাংলা সিনেমায় ভিন্নধর্মী অভিনয় করে। কোটি ভক্তের মনে জায়গা করে নিয়েছেন নিপুণ। বর্তমানে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে

অংশ গ্রহণ করে আলোচনায় রয়েছেন তিনি। সাধারণ সম্পাদকের পদ নিয়ে শুনানির পর টিকা নেন এই অভিনেত্রী। আজ সোমবার দুপুরে করোনার তৃতীয় ডোজ বুস্টার নেন নিপুন। তারপর থেকেই অসুস্থ তিনি। বুস্টার নেয়ার পর থেকে আমার অবস্থা খারাপ। প্রচণ্ড জ্বর। বাঁ হাত

পুরোটা ব্যথা, সেই সঙ্গে প্রচণ্ড মাথাব্যথা। বমিও হয়েছে একবার। গরম পানির সেঁক দিয়েও কাজ হচ্ছে না। বলছিলেন চিত্রনায়িকা নিপুন। গণমাধ্যমকে নিপুন জানান, এত ব্যথা, এত যন্ত্রণা হবে বুঝিনি। বাঁ হাত তো নড়াচড়া করতেও পারছি না। মনে হচ্ছে বাঁ হাত অবশ হয়ে আছে। আগে জানলে আদালতের কাজ শেষ করেই টিকা

নিতাম। কারণ, কালও শুনানি আছে। এখন জ্বর আর ব্যথা নিয়েই আদালতের কাজে অংশ নিতে হবে।

Categories
Uncategorized

নির্বাচন কমিশন গঠনে সার্চ কমিটিতে সাবেক আইজিপিসহ পুলিশের আট কর্মকর্তা

নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতি গঠিত অনুসন্ধান (সার্চ) কমিটির কাছে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার পদে

নিয়োগের জন্য ৩২২ জনের নাম সুপারিশ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে সাবেক মহাপুলিশ পরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হকসহ এ বাহিনীর সাবেক আটজন কর্মকর্তার নাম রয়েছে। তবে সাবেক দুই কর্মকর্তার নাম দুবার করে এসেছে।সোমবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ৩২২ জনের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম-সচিব শফিউল আজিম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘সার্চ কমিটির কাছে আসা ৩২২টি নাম প্রকাশ করা হয়েছে। তালিকা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।’ সার্চ কমিটিতে যেসব সাবেক পুলিশ কর্মকর্তার নাম

সাবেক আইজিপি এ কে এম শহীদুল হক, সাবেক আইজিপি মো. হাবিবুর রহমান, সাবেক আইজিপি হাসান মাহমুদ খন্দকার, সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি ইকবাল বাহার, সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি মীর শহীদুল ইসলাম, সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি মো. মোখলেসুর রহমান, সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ মাহাবুব হোসেন, ডিআইজি (অব.) মো. মঞ্জুর কাদের খান।

রোববার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিশিষ্টজনদের সঙ্গে ধারাবাহিক আলোচনার তৃতীয় বৈঠকের শুরুতেই এসব নাম প্রকাশ করার কথা জানিয়েছিলেন সার্চ কমিটির সভাপতি ও আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারদের নিয়োগ দিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, বিশিষ্ট ব্যক্তি, পেশাজীবী সংগঠন ও

ব্যক্তিদের প্রস্তাবিত এই তালিকায় একই ব্যক্তির নাম একাধিকবার পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে তালিকায় বলা হয়েছে, তালিকার নাম বিভিন্ন সংগঠন/ব্যক্তি প্রস্তাব করেছে। তালিকায় একই ব্যক্তির নামের পুনরাবৃত্তি পরিহারযোগ্য। নামের বানান ও পদবির করণিক ত্রুটি সংশোধনযোগ্য।

Categories
Uncategorized

ভালোবাসা দিবসে স্বামীর ঘুমন্ত স্বামীর গো;পনাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী!

বরগুনার পাথরঘাটায় ভালোবাসা দিবসের ভোরে ঘুমন্ত স্বামীর গো’পনা’ঙ্গ কে’টে ফেলার অভি’যোগ উঠেছে প্রথম স্ত্রীর বিরু’দ্ধে। সোমবার ভোর পৌনে ৫টার দিকে পাথরঘাটা সদর ইউনিয়নের রুহিত গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। গু’রুতর আহত সেলিম মিয়া রুহিতা গ্রামের হিঙ্গুর শরিফের ছেলে। অভিযু’ক্ত মমতাজ বেগম সেলিম মিয়ার প্রথম স্ত্রী।

সেলিম মিয়ার দ্বিতীয় স্ত্রী পুতুল জানান, চার বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই সতিনের সঙ্গে দ্ব’ন্দ্ব লেগে থাকতো তার। এরপর তিনি স্বামীকে ছেড়ে দুই বছর আগে বাবার বাড়ি মঠবাড়িয়ায় চলে যান। স্বামী সেলিম মিয়া মাঝে মাঝে সেখানে বেড়াতে যেতেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সেলিম মিয়া জানান, দ্বিতীয় স্ত্রীর বাড়িতে ১০ দিন বেড়ানো শেষে রোববার সন্ধ্যায় বাড়িতে যান। রাতে খাওয়া দাওয়া শেষ করে প্রথম স্ত্রী মমতাজের স’ঙ্গে ঘুমিয়ে পড়েন। সোমবার ভোরের দিকে হঠাৎ ঘুমের মধ্যে টের পান বঁ’টি দিয়ে তার গো’পনা’ঙ্গ কাটছেন মমতাজ।

পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্র জানায়, সেলিম মিয়ার গো’পনা’ঙ্গে ৯টি সেলাই লেগেছে। তাকে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। পাথরঘাটা থানার ওসি আবুল বাশার জানান, বিষয়টি শুনে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো লি’খিত অভি’যোগ আসেনি। অভি’যোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Categories
Uncategorized

নির্বাচন কমিশনার পদের তালিকায় মাওলানা মাহমুদুল হাসানসহ ৩ আলেম

এবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগের জন্য প্রস্তাবিত নামের তালিকা প্রকাশ করেছে সার্চ কমিটি। ৩২২ জনের এ

তালিকায় কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকের চেয়ারম্যান মাওলানা মাহমুদুল হাসানের নামও রয়েছে। অনুসন্ধান কমিটির সাচিবিক দায়িত্বে থাকা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ওয়েবসাইটে গতকাল সোমবার রাত ৮টার পর প্রস্তাবিত নামগুলো প্রকাশ করা হয়। যদিও আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, কারা

এসব ব্যক্তির নাম প্রস্তাব করেছে তা প্রকাশ করা হয়নি। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্মসচিব শফিউল আজিম স্বাক্ষরিত ওই প্রজ্ঞাপনে মাওলানা মাহমুদুল হাসান ছাড়াও আরও দুইজন জ্যেষ্ঠ আলেমের নাম রয়েছে। তারা হলেন, চট্টগ্রাম সোবহানিয়া কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ শায়খুল হাদিস মাওলানা কাযী মঈনুদ্দীন আশরাফী ও ঢাকার মহাখালী দারুল

উলূম হোসাইনিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা ড. নজরুল ইসলাম মারুফ আল মাদানী। এর আগে গত রবিবার বিশিষ্ট নাগরিকদের সঙ্গে বৈঠকে অনুসন্ধান কমিটির সভাপতি ও আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান প্রস্তাবিত নাম প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছিলেন। একই সঙ্গে যেসব রাজনৈতিক দল আগের সময় অনুযায়ী নাম জমা

দিতে পারেনি, তাদেরও নাম দিতে আজ বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়। সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন গঠনে প্রথমবারের মতো আইন করে সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় ৫ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতি ওবায়দুল হাসানকে প্রধান করে সার্চ কমিটি গঠন করা নির্দেশ দেন রাষ্ট্রপতি।

Categories
Uncategorized

চালকের চোখে মরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে ছিনতাইকালে পুলিশ সদস্য আটক- চাকরি নিয়ে টানাটানি

গতকাল রাতে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে চালকের চোখে মরিচের গুঁড়া দিয়ে অটোরিকশা ছিনতাইকালে মো. জিয়াউদ্দিন পারভেজ নামে এক

পুলিশ সদস্যকে গণপিটুনি দিয়েছে জনতা। পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। গতকাল রবিবার ১৩ ফেব্রুয়ারি রাতে চরফকিরা ইউনিয়নের ১৬নং স্লুইচ সংলগ্ন মুক্তিযোদ্ধা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাজ্জাদ রোমন বলেন,

আটক মো. জিয়াউদ্দিন পারভেজ নোয়াখালী পুলিশ লাইন্সে পুলিশ কনস্টেবল (বিপি-৯৮১৮২২২৬৪৩) পদে কর্মরত। গত ৩ ফেব্রুয়ারি ১০ দিনের সিএল ছুটিতে চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ের কচুয়া গ্রামের বাড়িতে যান। তিনি বলেন, ছুটি শেষে রবিবার নোয়াখালী যাওয়ার পথে অসৎ উদ্দেশ্যে কোম্পানীগঞ্জ আসেন। উত্তেজিত জনতার কাছ থেকে

তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। দেনা পরিশোধ করতে তিনি এ কাজ করেছেন বলে স্বীকার করেছেন। এ ব্যাপারে নোয়াখালী পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, ছিনতাইকালে পুলিশ সদস্য আটক হওয়ার ঘটনায় তাকে সাময়িক বরখাস্ত ও তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হচ্ছেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার

(প্রশাসন ও অপরাধ) দীপক জ্যোতি খীসা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আকরামুল হাসান ও কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাজ্জাদ রোমন। তাদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Categories
Uncategorized

নির্বাচন কমিশনার হিসেবে প্রস্তাব করা হল ইলিয়াস কাঞ্চনের নাম

বাংলা সিনেমায় দুর্দান্ত অভিনয় করে ভক্তদের মনে জায়গা করে নিয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও নির্বাচন

কমিশনার নিয়োগে অনুসন্ধান কমিটি যোগ্য ব্যক্তি বাছাইয়ে রাজনৈতিক দলসহ বিভিন্নভাবে ৩২২ জনের নামের প্রস্তাব পেয়েছে। সেখানেও জায়গা করে নিয়েছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। সোমবার রাতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্মসচিব

শফিউল আজিম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। এদিকে, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগে আইন অনুযায়ী ১০ জন ব্যক্তির নাম সুপারিশ করার লক্ষ্যে মঙ্গলবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) আট সিনিয়র সাংবাদিকের সঙ্গে বৈঠক করবে সার্চ কমিটি। বর্তমান নির্বাচন কমিশনের (ইসি) মেয়াদ আজ (১৪ ফেব্রুয়ারি) শেষ হচ্ছে।

তার আগেই নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের কথা ছিল। স্বাধীনতার পর এবারই প্রথম আইন অনুযায়ী ইসি গঠিত হচ্ছে। গত ২৭ জানুয়ারি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২ জাতীয় সংসদে পাস হয়।

Categories
Uncategorized

চিনির দানার ওপর সুরা ইখলাসের চমৎকার ক্যালিওগ্রাফি

চিনির ক্ষুদ্র একটি দানার ওপর সুরা ইখলাসের ক্যালিওগ্রাফি এঁকেছেন ফুয়াদ কিবদানি (৩০) নামের মরক্কোর এক শিল্পী। তার ক্যালিওগ্রাফিটি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে বেশ আলোচনার সৃষ্টি করেছে। নয়া দিগন্তকে ফুয়াদ কিবদানি জানান, এটিই বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্র বস্তুর ওপর পবিত্র কুরআনের আয়াতের ক্যালিওগ্রাফি। তার ভ্রু থেকে ঝরে পড়া ০.১ মিলিমিটার পূরুত্বের কয়েকটি চুল দিয়ে তিনি এটি এঁকেছেন

বলেও জানালেন। তিনি বলেন, চিনির দানার ওপর ক্যালিওগ্রাফি করা আমার স্বপ্ন ছিল। আলহামদুলিল্লাহ বেশ পরিশ্রমের পর সেটি সম্পন্ন করতে পেরেছি। এতে আমার বেশ কয়েকদিন সময় লেগেছে। উচ্চ আলোর মধ্যে আমি এটি এঁকেছি এবং আঁকার পরে কাঠের মধ্যে সংরক্ষণ করে রেখেছি। এটি ছাড়াও ফুয়াদ কিবদানি চালের ওপর কাবা

শরিফ এবং ডিমের ওপর সম্পূর্ণ সুরা বাকারার ক্যালিওগ্রাফি এঁকেছেন। ইসলামী ক্যালিওগ্রাফির বাইরেও তার বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় ক্যালিওগ্রাফি
রয়েছে। আলজাজিরাসহ

বিশ্বের একাধিক বড় সংবাদ মাধ্যম তার আঁকাআঁকি নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন তৈরি করেছে।

Categories
Uncategorized

স্ত্রী পরিচয়ে হোটেলে নিয়ে মেরে ফেললেন এই যুবক

একটি আবাসিক হোটেলে থেকে এক নারীর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম নগরীর হালিশহর থানার আগ্রাবাদ সংযোগ সড়কের রোজ উড

আবাসিক হোটেল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। ওই নারীর পরিচয় শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। এখনও কাউকে গ্রেপ্তারও করতে পারেননি তারা। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকালে কামরুল হাসান পরিচয় দিয়ে এক ব্যক্তি আবাসিক হোটেলটিতে একটি কক্ষ ভাড়া নেন।

ওইদিন বিকাল ৪টা ১৪ মিনিটে তিনি হোটেলের নিচে নামেন। সেখানে একজন নারী তার কাছে আসেন। তাকে তার স্ত্রী পরিচয় দিয়ে তার ভাড়া নেওয়া কক্ষে নিয়ে যান। সাড়ে পাঁচটার দিকে ওই ব্যক্তি হোটেলের কক্ষ থেকে বের হয়ে আগ্রাবাদ সংযোগ সড়ক ধরে চলে যায়। সাড়ে পাঁচটা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত কক্ষটি থেকে কোনো সাড়া শব্দ না পেয়ে

পুলিশকে খবর দেন হোটেল ব্যবস্থাপক। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসেন। বিকল্প চাবি দিয়ে কক্ষ খুলে দেখেন স্ত্রী পরিচয়ে কক্ষে যাওয়া নারীর রক্তাক্ত গলাকাটা মরদেহ পড়ে আছে। হালিশহর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘বিকেল সাড়ে চারটা থেকে সাড়ে পাঁচটার মধ্যে কোনো এক সময় ওই নারীকে খুন করে পালিয়েছে হোটেল কক্ষ ভাড়া নেওয়া তরুণ।

এর আগে রক্তাক্ত জামা কাপড় পাল্টে ফেলেছে।’ ওসি বলেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, হোটেলটিতে কক্ষ ভাড়া নেওয়ার সময় কামরুল হাসান পরিচয়ে যে এনআইডি দেওয়া হয়েছে সেটি আরেকজনের। মাথায় টুপি ও মুখে মাস্ক লাগানো থাকায় হোটেল ভাড়া নেওয়া তরুণকে শনাক্ত করা যায়নি। স্ত্রী পরিচয় দেওয়ায় হোটেলের নথিতে ওই নারীরও কোনো পরিচয়ও সংরক্ষণ

করেনি তারা। হোটেল কক্ষ ভাড়া নেওয়া তরুণের পরিচয় ও খুন হওয়ার নারীর পরিচয় বের করার চেষ্টা করছি।’

Categories
Uncategorized

ফেসবুকে প্রেম, অতঃপর অ;স্ত্রের ভয় দেখিয়ে সর্বত্র লুটে নিঃস্ব, রাজধানীতে নতুন ফাঁদ!

‘ঢাকা শহর আইসা আমার মাথা ঘুরাইছে। লাল লাল নীল নীল বাত্তি দেইখা নয়ন জুড়াইছে।’ আসলেই

আজব শহর এই ঢাকা। কত রকমের মানুষ এই শহরে। জীবন-জীবিকার ঘানি টেনে চলে অহর্নিশ।

কিন্তু এর আড়ালে আছে ছদ্মবেশী অপরাধ চক্র। চেনা অচেনা মুখগুলোই জড়িয়ে আছে এসব দুষ্কর্মে।

দিন যত যাচ্ছে ততই ধরন বদলাচ্ছে অপরাধের। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ওপর ভর করে ‘অভিনব ফাঁদ’ গড়ে উঠছে অন্ধকার জগতে। যেখানে পা দিচ্ছেন তরুণ-তরুণীরা। আবেগী সিদ্ধান্ত থেকে প্রেম, দেখা, তারপর অর্থকড়ি হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছেন কেউ কেউ। অভিযোগ গড়াচ্ছে

আদালত পাড়াতেও। এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে সম্প্রতি। প্রথমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বন্ধুত্ব। সেটা কিছুটা আবেগের জায়গায় পৌঁছালে দেখা করার প্রস্তাব। বিশ্বাস অর্জন করতে একসঙ্গে খাওয়া, ঘোরাঘুরি। এরপর কৌশলে বাসায় ডেকে এনে সেনা ও পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয়ে জিম্মি, ব্ল্যাকমেইল ও প্রতারণা। দীর্ঘ দুই বছর এভাবে প্রতারণা

করে আসছিলেন ফুয়াদ আমিন ইশতিয়াক ওরফে সানি ও তার চক্রের দুই সদস্য। ফুয়াদ নিজেকে সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন পরিচয় দিতেন। সঙ্গে রাখতেন ওয়াকিটকি ও পি;স্ত;ল। যার সবই ছিল ভুয়া। আর তার কথিত স্ত্রী নিরা নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিতেন। ট্রান্সজেন্ডার (রূপান্তরিত) নারী ছায়েদ বিন রাব্বি শান্তকে নি;র্যা;তন ও হ;;ত্যাচেষ্টার ঘটনায় ২১ জানুয়ারি

রাজধানীর ভাটারা থানায় একটি মামলা হয়। সেই মামলায় র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার হয় চক্রের মূলহোতাসহ তিনজন। এরপরই বেরিয়ে আসে তাদের বিভিন্ন অপকর্মের কাহিনি। শুধু ওই ট্রান্সজেন্ডার নারীই নন, অনেককেই বন্ধুত্ব ও প্রেমের ফাঁদে ফেলে অ;;স্ত্রের ভয় দেখিয়ে সর্বত্র লুটে নিয়েছেন তারা। যেভাবে ফাঁ;দে ফেলা হয় আরেক যুবককে:

বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া মাহমুদ হাসান (ছদ্মনাম)। তাকেও বন্ধুত্বের ফাঁদে ফেলে প্রতারণা করা হয়েছিল। মাহমুদ হাসান ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচয় হয় সাইমা শিকদার নিরা ওরফে আরজে নিরার সঙ্গে। পরিচয় পর্বের একপর্যায়ে গত ৭ ডিসেম্বর একটি রেস্টুরেন্টে দেখা করি। এসময় নিরা আমাকে নিয়ে রিকশায় ঘুরতে চায়। তাতে রাজি হলে,

দু’জন একসঙ্গে ঘোরাঘুরি করি। একপর্যায়ে নিরা জানায়, তার বাসা ফাঁকা। পরবর্তীতে আমাকে নিয়ে নিরা তার বসুন্ধরার বাসায় যায়। সেখানে গিয়েই বাধে বিপত্তি।’ হাসান বলেন, ‘প্রথমে আমাকে একটি রুমে আটকে রাখা হয়। এসময় কোমরে ওয়াকিটকি ও পিস্তলসহ হাজির হয় একজন। সে নিজেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দেয় এবং আমাকে মারধর করে। তার হেয়ারস্টাইল ও কথাবার্তা শুনে মনে

হচ্ছিল প্রশাসনে চাকরি করে। পরে জানতে পারি তার নাম ফুয়াদ আমিন ইশতিয়াক ওরফে সানি। এসময় আব্দুল্লাহ আফিফ সাদমান ওরফে রিশু নামে আরও একজন হাজির হয়ে আমাকে একটি চেয়ারের সঙ্গে হাত-পা বেঁধে রাখে। জানতে চায় কেন কীভাবে এই বাসায় এসেছি। তারা বলে, আমাকে মামলা দিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হবে। যদি মামলা থেকে বাঁচতে চাই তাহলে মোটা অঙ্কের টাকা দিতে হবে।’

এরপর হাসানের বাবা-মাকে ফোন করে ছেলের মুক্তির জন্য টাকা চাওয়া হয় এবং দ্রুত টাকা না দিলে একাধিক মামলা করা হবে বলে হু;মকি দেওয়া হয়। ভুক্তভোগী হাসান বলেন, ‘আমার বাবা-মাকে ফোন করা হয়। এসময় দ্রুত বিকাশের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে বলা হয়। এমনকি আমাকে বেঁধে রাখার ছবি পরিবারের কাছে পাঠানো হয়। আমার পরিবার তাদের টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে বলে,

আপনারা তাকে (হাসান) মামলা দিয়ে আদালতে পাঠিয়ে দেন। পরে তারা আমার বিকাশে থাকা দুই হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেন। এই বিষয় নিয়ে পরবর্তীতে কোনো ঝামেলা না করতে ভয়ভীতি দেখানো হয়। ঘটনার কয়েকদিন পরই জানতে পারি, র‌্যাব তাকে গ্রেপ্তার করেছে।’

তদন্ত কর্মকর্তা যা বলছেন: ট্রান্সজেন্ডার (রূপান্তরিত) নারী ছায়েদ বিন রাব্বি শান্তকে নির্যাতন ও হত্যাচেষ্টার ঘটনায় ২১ জানুয়ারি রাজধানীর ভাটারা থানায় একটি মামলা করা হয়। মামলাটি তদন্ত করছেন এসআই হাসান মাসুদ। ঢাকা টাইমসকে তিনি বলেন, ‘মামলার তদন্ত কাজ অনেকটা গুছিয়ে এনেছি।

তদন্তে এখন পর্যন্ত তিনজনের বাইরে এই চক্রে কাউকে পাওয়া যায়নি। তাদের মাধ্যমে প্রতারণার শিকার হয়েছেন এমন কেউ এখনো আমাদের কাছে অভিযোগ দেয়নি। যদি কেউ প্রতারিত হয় তাহলে আমাদের কাছে লিখিত জানাতে পারে, তাহলে আমরা ব্যবস্থা নিতে পারব।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘৭ ফেব্রুয়ারি রিমান্ড শুনানি ছিল। কিন্তু আদালত রিমান্ড আবেদন না-মঞ্জুর করে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছিল। আদালতের আদেশে তাকে (ফুয়াদ) জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।’

এসআই হাসান মাসুদ বলেন, ‘ট্রান্সজেন্ডার নারীর মামলায় দুইজন (ফুয়াদের কথিত স্ত্রী সাইমা নিরা ও তার সহযোগী রিশু) জামিন পেয়েছেন। তবে আদালত ফুয়াদকে জামিন দেননি।’

ট্রান্সজেন্ডার নারীর সঙ্গে যা হয়েছিল: ভুক্তভোগী ছায়েদ বিন রাব্বি বলেন, ‘ঘটনার দিন রিশু নামে এক যুবকের কথা বিশ্বাস করে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার সি ব্লকে ৫ নম্বর সড়কের এক বাসার দ্বিতীয় তলার ফ্ল্যাটে যাই। সেখানে যাওয়ার পর এক নারী ও আরেকজন পুরুষকে দেখতে পাই। ওই তিনজন আমাকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করে।’

এতে বাধা দিলে রাব্বিকে তিনজন মারধর শুরু করেন এবং বলতে থাকেন এই ভিডিও তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেবেন। এ সময় তিনজন নিজেদের আইনের লোক পরিচয় দেন। তাদের কাছে অ;;স্ত্র ও ওয়াকিটকি ছিল।

‘পরে আমার কাছে থাকা মোবাইল ফোন, সোনার চেইন, টাকা ছিনিয়ে নেওয়া হয়। সেই সঙ্গে এক লাখ টাকা দাবি করা হয়েছিল। সেই টাকা না দিলে মেরে পূর্বাচলে ফেলে দেয়া হবে বলে ভয় দেখানো হয় । পরবর্তীতে প্রাণ ভিক্ষা চাইলে ঢাকার বিভিন্ন রাস্তায় ঘুরিয়ে রাত ৮টার দিকে রামপুরা এলাকায় একটি হাসপাতালের সামনে ফেলে যাওয়া হয়।’ বলেন ছায়েদ বিন রাব্বি।

Categories
Uncategorized

বেডরুমে নিয়ে আপত্তিকর অবস্থায় জড়াতেন স্ত্রী, পুলিশ সেজে আসতেন স্বামী

স্বামী-স্ত্রী দুজন মিলে তৈরি করেছিলেন প্রতারণার সাম্রাজ্য। ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে মধ্যবয়সী

মানুষকে প্রেমের ফাঁ;দে ফাঁ;সাতেন স্ত্রী। এরপর সেই ব্যক্তিকে বাসায় এনে আপত্তিকর অবস্থায়

ফেলে ব্ল্যাকমেইল করতেন স্বামী ও তার দুই সহযোগী। এই স্ত্রীর নাম নাসিমা বেগম। তার স্বামীর নাম

টুটুল। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না। এক ভুক্তভোগীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে স্বামী-স্ত্রী ও তাদের দুই সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, ২০১৮ সাল থেকে তারা এমন প্রতারণায় জড়িত। রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় বসবাস টুটুল-নাসিমা দম্পতির। নাসিমা

ফেসবুকে আইডি খুলে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠাতেন মধ্যবয়সী ব্যক্তিদের। এরপর সেই ব্যক্তির সঙ্গে মেসেঞ্জারে আলাপের পর ভিডিও কলে কথা বলতেন নাসিমা। এরপর প্রেমের ফাঁদে ফেলে বাসায় ডেকে আনতেন। নিজের বেডরুমে নিয়ে জড়াতেন আপ;ত্তিকর অবস্থায়। তখনই পরিকল্পনামাফিক হাজির হতেন তার স্বামী টুটুল ও আরও কয়েকজন যুবক।

নিজেদের পরিচয় দিতেন পুলিশ বা সাংবাদিক হিসেবে। ধারণ করে রাখা হতো ভিডিও। এরপর ব্ল্যাকমেইল করে হাতিয়ে নেওয়া হতো মোটা অঙ্কের টাকা। ব্ল্যাকমেইল করার কৌশল বর্ণনা করে টুটুল পুলিশকে জানান, নিয়ে আসার পর আমরা তাকে বলতাম, এটা কি আপনি ভালো কাজ করেছেন নাকি খারাপ? আপনার বাসা কোথায়। তখন তিনি বলতেন,

খারাপ কাজ হয়েছে। অন্যায় হয়েছে। তিনি স্বীকার করে আমাদের কাছে মাফ চাইতেন। আমরা বলতাম, আপনি যে এই খারাপ কাজ করতে আসছেন, আপনার বাসায় এটা আমরা বলে দেব। এরপর তিনি বলতেন, আমার মানইজ্জত নষ্ট না করতে কিছু টাকা দিত এবং আমরা এটা নিতাম। সম্প্রতি এভাবেই ব্ল্যাকমেইলের শিকার হন নৌবাহিনীর সাবেক এক কর্মকর্তা। তাকে দিতে হয়

৫ লাখ টাকার বেশি। ভুক্তভোগী সংবাদমাধ্যমকে বলেন, তারা আমাকে বলে ১০ লাখ টাকা দিতে পারলে আমাকে সসম্মানে ছেড়ে দেওয়া হবে। তা না করলে মিডিয়া আসবে, এলাকার লোকজন আসবে; বিশ্রি একটা অবস্থা হবে। পুলিশ জানায়, এ চক্রের মূল টার্গেট মধ্যবয়সী পুরুষরা। ২০১৮ সাল থেকে এখন পর্যন্ত তারা ফাঁসিয়েছেন বহু মানুষকে।

গুলশান গোয়েন্দা (ডিবি) বিভাগের ডিসি মশিউর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আসামিরা এই কুকর্মের জন্য স্ত্রী-বোনদের ব্যবহার করেন। অন্যদিকে ভুক্তভোগীরাও পরিবার পরিজন রেখে একটা বাড়তি প্লেজারের জন্য অন্যদের খুঁজে বেড়ান।

আমরা অনুরোধ জানাব, ফেসবুকে, মেসেঞ্জারে দুই দিনের প্রেমে পড়ে দুই দিনের পরিচয়ে প্লেজারের অনুসন্ধানে যেতে গেলে একটা পর্যায়ে আপনাদের শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতিত হতে হবে। মানুষের নৈতিক অবক্ষয়ের কারণেই এই চক্রগুলো প্রতারণার সুযোগ পাচ্ছে।