Categories
Uncategorized

ক্লা’সের ম’ধ্যেই অ’ন্ত’রঙ্গ অবস্থায় ছাত্র-ছাত্রীর ভিডিও ফেসবুকে ভা’ইরাল!

ক্লাসরুমের মধ্যে ছাত্র-ছাত্রী অন্তরঙ্গ অবস্থায় ছিল। সেই মুহুর্তে ভিডিও করছিল ক্লাসের কয়েকজন। পরে কে বা কারা ভিডিওটি ছড়িয়ে দেয়

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এরপর তা ভাইরাল হতেই শোরগোল পড়ে যায় ওই স্কুলে।ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের মগরার একটি স্কুলে। ইটিভি ভারত নামের গণমাধ্যমে প্রকাশ পাওয়া সংবাদে আরও বলা হয়েছে, দুই ছাত্র-ছাত্রী খুবই ঘনিষ্ঠ অবস্থায় রয়েছে। সেই দৃশ্য ভিডিও করছে আরো

কয়েকজন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিওটি ভাইরাল হতে সময় লাগেনি। একপর্যায়ে অন্য শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদেরও চোখে পড়ে তা। গতকাল সকালে অভিভাবকরা একজোট হয়ে স্কুলের সামনে বিক্ষোভ করেন। অভিযুক্ত ছাত্র-ছাত্রীকে বহিষ্কার করারও দাবি তোলা হয়।স্কুলের প্রধান শিক্ষক জানান, ওই দুই শিক্ষার্থীকে এরইমধ্যে বহিষ্কার করা হয়েছে। তবে, ভবিষ্যতের কথা ভেবে কেবল টেস্ট পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার

সুযোগ দেওয়া হবে তাদের। ক্লাস করতে দেওয়া হবে না।প্রধান শিক্ষক বলেন, আমাদের স্কুল যথেষ্ট ঐতিহ্যবাহী। ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে এ ধরনের আচরণ মানা যায় না। প্রত্যেক ক্লাসরুমের বাইরে সিসিটিভি আছে। এবার আমরা ক্লাসরুমের ভেতরেও সিসিটিভি লাগানোর ব্যবস্থা করব।
স্কুলে মোবাইল ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে এবং কেউ মোবাইল নিয়ে ধরা পড়লে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরাও এই ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তাঁদের কথায়, আমরাও পড়াশোনা করেছি। আমাদের ছেলে-

মেয়েরাও পড়ছে। এই ধরনের ঘটনা সামনে আসায় চমকে যাচ্ছি। স্কুল কর্তৃপক্ষকে আরো কঠোর হতে হবে। আরো পরুন নিজ স্ত্রীকে আবারো বিয়ে করলেন বলিউড তারাকা আবতাব আক্ষরিক অর্থেই, জ্ঞান হওয়ার আগে থেকেই তিনি বিনোদন দুনিয়ার মুখ। এক বছর দু’মাস বয়সে তাঁকে দেখা গিয়েছিলে ফ্যারেক্স বেবি ফুডের বিজ্ঞাপনে। তারপর শিশুশিল্পী হিসেবেও এসেছে সুনাম এবং পরিচিতি। কিন্তু গোটা কেরিয়ারে

‘চকোলেট বয় ভাবমূর্তি ছেড়ে আর বেরোতে পারেননি আফতাব শিবদাসানি।আফতাবের জন্ম ১৯৭৮-এর ২৫ জুন। তাঁর বাবা প্রেম শিবদাসানি সিন্ধি সম্প্রদায়ের। মা, পুতিল পার্সি পরিবারের মেয়ে। সেন্ট জেভিয়ার্স স্কুলের পরে এইচআর কলেজ থেকে বাণিজ্যে স্নাতক হন আফতাব।

বেশ কিছু বিজ্ঞাপন ছাড়াও শৈশবে আফতাবকে দেখা গিয়েছিল বেশ কিছু হিন্দি ছবিতেও। তিনি শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয় করেন ‘মিস্টার ইন্ডিয়া’, ‘চালবাজ’ এবং ‘ইনসানিয়ত’ ছবিতে। ‘শাহেনশা’ ছবিতে তিনিই ছিলেন অমিতাভ বচ্চনের শৈশবের ভূমিকায়।মডেলিং চলতে থাকে উনিশ বছর বয়স অবধি। তারপরই তিনি সুযোগ পান রামগোপাল ভার্মার ছবি ‘মস্ত’-এ। কলেজপড়ুয়া আফতাবের বিপরীতে নায়িকা ছিলেন ঊর্মিলা মাতণ্ডকর। ২০০০ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটি ছিল সুপারহিট।তার পরের বছরই আফতাব অভিনয় করেন খলনায়কের ভূমিকায়। বিক্রম

ভট্টের পরিচালনায় ‘কসুর’ ছবিতে। এই ছবিটিও বক্সঅফিসে সাফল্য পায়। পরপর দু’টি ছবি হিট হওয়ার পরে আফতাবের কেরিয়ার ধাক্কা খায়।
পরপর বেশ কিছু ছবি মুখ থুবড়ে পড়ে। ‘লভ কে লিয়ে কুছ ভি করেগা’, ‘কোই মেরে দিল সে পুছে’, ‘ক্যায়া ইয়েহি প্যায়ার হ্যায়’ সে ভাবে সফল হয়নি। তারপর ওঠাপড়া নিয়েই এগোতে থাকে আফতাবের কেরিয়ারগ্রাফ। তাঁর কেরিয়ারে ‘ডরনা মানা হ্যায়’, ‘হাঙ্গামা’, ‘মুসকান’, ‘নিশব্দ’, ‘ওম শান্তি ওম’, ‘দশ কহানিয়াঁ’, ‘লাইফ মেঁ কভি কভি’, ‘কমবখত ইশক’ উল্লেখযোগ্য ছবি। তবে ২০০৭-এর পর থেকেই আফতাবের কেরিয়ারগ্রাফ আচমকাই নামতে থাকে দ্রুত গতিতে।তিনি ছবি করা কমিয়ে দেন। এমনও সময় গিয়েছে, যখন এক বছরে

আফতাবের একটা ছবিও মুক্তি পায়নি। ব্যক্তিগত জীবনেও দেখা দেয় টানাপড়েন। ইন্ডাস্ট্রিতে আফতাবের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত বিক্রম ভট্ট। তাঁকে
‘মেন্টর’ বলে মানেন আফতাব। বিক্রমের অভিযোগ, আফতাবের জীবন ব্যাহত হয় আমনা শরিফের জন্য। আফতাবকে নাকি নিজের প্রয়োজনে ‘ব্যবহার’ করেছিলেন আমনা। পরে আমনা বিয়ে করেন প্রযোজক অমিত কপূরকে। আমনার কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পরে আফতাবের জীবনে আসেন নিন দুসাঞ্জ। তাঁকেই আফতাব বিয়ে করেন ২০১৪ সালের ৫ জুন। একান্ত ঘরোয়া সেই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন শুধুই দুই পরিবারের সদস্যরা। পঞ্জাবি পরিবারের মেয়ে নিনের বড় হওয়া লন্ডনে। তারপর তিনি ছিলেন হংকং-এ। নিন কর্মরত অ্যাডভার্টাইজিং

ও ব্র্যান্ডিং-এ।আফতাবের জীবনে অভিনব দিক হল একই স্ত্রীকে দু’বার বিয়ে করা। ২০১৭ সালের অগস্টে নিনকে আবার বিয়ে করেন আফতাব। প্রথমবার তাঁদের বিয়ে হয়েছিল ঘরোয়া ধর্মীয় অনুষ্ঠানে। দ্বিতীয়বার তাঁদের বিয়ে হয় শ্রীলঙ্কায়। শ্রীলঙ্কায় তাঁদের বিয়ের অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও আত্মীয়রা। হাতির পিঠে চড়ে বিয়ের আসরে হাজির হন আফতাব। পাল্কিতে করে আসেন নিন। ডিজাইনার যোশিতার লেহেঙ্গায় সেজেছিলেন নিন। আফতাবের পরনে ছিল ট্রয় কোস্টার ডিজাইন করা শেরওয়ানি। আফতাবের আগামী ছবি ‘টম ডিক হ্যারি ২’-র মুক্তি আসন্ন।

অভিনয়ের পাশাপাশি ছবি প্রযোজনাও করেন তিনি। ২০০৯ সালে মুক্তি পায় আফতাব প্রযোজিত ছবি ‘আও উইশ করেঁ’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *