Categories
Uncategorized

না‌য়িকা শ্রাব‌ন্তী‌কে কুপ্রস্তাব, খুলনার সেই যুবক রিমান্ডে

ভারতীয় চিত্র না‌য়িকা শ্রাবন্তী চ‌্যাটা‌র্জির ব্যক্তিগত মু‌ঠো‌ফো‌নে কু’প্র’স্তা’বসহ নানা ধর‌নের আ’প‌’ত্তি’কর বার্তা প্রের‌ণের অ’ভি‌যো‌’গে মো. মাহাবুবর

রহমান (৩৩) না‌মে এক যুবক গ্রে’ফ’তার হ‌য়ে‌ছে। তা‌কে জি’জ্ঞাসাবা‌দের জন‌্য পু‌লিশ ৫‌দি‌নের রি’ম‌া’ন্ড আবেদন ক‌রে‌ছেন। বৃহস্প‌তিবার (১৯ নভেম্বর) রি’মা’ন্ড আবেদ‌নের শু’নানি শে‌ষে খুলনার মে‌ট্রোপ‌লিটন ম্যাজিস্ট্রেট একদিন ম’’ঞ্জুর ক‌রে‌ছেন। অ’ভিযু’ক্ত যুবক খুলনা মহানগরীর

সোনাডাঙ্গা ম‌ডেল থানা‌ধিন বক‌শিপাড়া রো‌ডের বা‌সিন্দা সামছুল আলম সাহেবের বা‌ড়ির ভাড়া‌টিয়া আতিকুর রহমা‌নের ছে‌লে। ভার‌তের চিত্র না‌য়িকা শ্রাবন্তী বিষয়‌টি ভারতীয় হাই ক‌মিশ‌নের মাধ‌্যমে বাংলা‌দেশ সরকা‌রের কা‌ছে বিচার‌ চে‌য়ে‌ছি‌লেন। সেই সূত্র ধ‌রে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হ‌য়ে পু‌লিশ হেড‌ কোয়াটা‌র্সের নি‌র্দেশে খুলনা মে‌ট্রোপ‌লিটন পু‌লি‌শের সোনাডাঙ্গা ম‌ডেল থানায় মা’মলা‌টি সোমবার (১৬ ন‌ভেম্বর) দা‌য়ের হয়।

বৃহস্পতিবার (১৯ ন‌ভেম্বর) এ মা’মলায় অ’ভিযু’ক্ত যুবক‌কে রি’মা‌’ন্ডে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দি‌য়ে‌ছেন আ’দালত। মা’মলার সং‌ক্ষিপ্ত বিবরণী থে‌কে জানা যায়, অভিযুক্ত মো. মাহাবুবর রহমান ভার‌তের না‌য়িকা শ্রাবন্তীর ব্যক্তিগত মু‌ঠো‌ফোন নম্বর ম‌্যা‌নেজ ক‌রে ওই নম্ব‌রে বি‌ভিন্ন সময় কল করতো। না‌য়িকা শ্রাবন্তী অপ‌রি‌চিত নম্ব‌রের

কল না ধরায় তা‌কে নানা ধর‌নের আ’প’‌ত্তি’কর ও কু’প্রস্তা’ব লি‌খে ম‌্যা‌সেজ দি‌তো মাহাবুব। একপর্যা‌য়ে বিষয়‌টি প্র’তিকার চে‌য়ে না‌য়িকা শ্রাবন্তী ভারতীয় হাই ক‌মিশ‌নের মাধ‌্যমে বাংলা‌দেশ সরকা‌রের কা‌ছে বি’চার‌ চে‌য়ে আবেদন ক‌রেন। মা’ম’লা‌টির বা‌’দী হ‌য়ে‌ছেন সোনাডাঙ্গা ম‌ডেল থানার এসআই মো. খা‌লিদ উ‌দ্দিন।

মা’’মলা‌টি তদন্ত কর‌ছেন একই থানার ওসি তদন্ত রা‌ধে শ‌্যাম সরকার। ভারতীয় চিত্র না‌য়িকা শ্রাবন্তী‌কে আ’প‌’ত্তি’কর ম‌্যা‌সেজ প্রদা‌নে দে‌শের ভাবমূ’র্তি ক্ষু’ণ্ণ হ‌য়ে‌ছে বলেও মা’মলায় উল্লেখ করা হয়। এবিষ‌য়ে সোনাডাঙ্গা ম‌ডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মমতাজুল হক জানান, উর্ধ্বতন কর্তৃপ‌ক্ষের নি‌র্দেশে

২০১৮ সা‌লের ডি’‌জিটাল নি’রা’প’ত্তা আ’ইনের ২৮/৩১ ধা’রায় মা’ম’লা দা’‌য়ে‌রের পর আ’সা‌মি‌কে আ’দাল’‌তে সো’পর্দ করা হ‌য়ে‌ছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *