Categories
Uncategorized

শাহরুখ খানের মা খুব সুন্দরী ছিলেন, বাবা ছিলেন পুরো ফিল্মি হিরো।

শাহরুখ খান এমন একজন বলিউড অভিনেতা যিনি কেবল নিজের পরিশ্রম এবং নিজের সামর্থ্যের ভিত্তিতে ইন্ডাস্ট্রিতে স্টারডম অর্জন

করেছেন।শাহরুখ আজ বলিউডে কিং খান নামে পরিচিত। সাফল্যের উচ্চতা স্পর্শ করার পরেও শাহরুখ খান তাঁর জীবনের অত্যন্ত বিনীত ব্যক্তি।শাহরুখ সম্পর্কে আমরা এবং আপনি অনেক কিছুই জানেন, তবে তার বাবা-মা যেভাবে দেখা করেছিলেন সে সম্পর্কে খুব কম লোকই

জানেন। এখানে আমরা আপনাকে বলছি যে 60 বছর আগে একটি গাড়ি দু’র্ঘটনার কারণে শাহরুখ খানের মা লতিফ ফাতেমা খান এবং তাজ মোহাম্মদ খান কীভাবে একে অপরের সাথে দেখা হয়েছিল।শাহরুখ খানের মা এবং তাঁর বাবা খুব মারাত্মক পরিস্থিতিতে দেখা করেছিলেন। আসলে শাহরুখের বাবা তাজ মোহাম্মদ খান তার চাচাত ভাইকে নিয়ে বেড়াতে যাওয়ার জন্য ইন্ডিয়া গেটে গিয়েছিলেন। একই সময়ে, তিনি

লক্ষ্য করলেন যে একটি গাড়ি খুব খারাপ পথে দুর্ঘটনা ঘটেছে। তারা সঙ্গে সঙ্গে গাড়িতে পৌঁছে গেল। তারা লক্ষ্য করলেন গাড়িতে তিন মেয়ে এবং তাদের বাবা উপস্থিত ছিলেন।তিন মেয়ের একজনের রক্ত ক্ষরণ খুব বেশি ছিল। তার অবস্থা আরও মা’রাত্মক ছিল। তাঁর রক্তের গুরুতর প্রয়োজন ছিল।শাহরুখ খানের বাবা মোটেও দেরি করেননি। তিনি আহত

সকলকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেন। যে মেয়েটির রক্ত হাসপাতালে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হয়েছিল এবং যার সাথে সাথে তাকে রক্তক্ষরণ করা দরকার ছিল। তার রক্তের গ্রুপটি শাহরুখ খানের বাবার রক্তের গ্রুপে মিশ্রিত হয়েছিল। এমন পরিস্থিতিতে শাহরুখ খানের বাবা তাকে রক্ত দিয়েছিলেন। এই মেয়েটি আর কেউ নন, শাহরুখ খানের

মা লতিফ ফাতেমা খান।শাহরুখ খানের বাবাও প্রথমে কিছুদিন হাসপাতালে লতিফ ফাতেমা খানকে তদারকি করেছিলেন। শাহরুখ খানের মা সুস্থ হতে প্রায় 6 মাস সময় লেগেছিল। এই সময়ে, তার বাবার হৃদয় শাহরুখ খানের মায়ের উপর প্রভাবিত হয়েছিল। লতিফ ফাতেমা খানের বাবা তাজ মোহাম্মদের সাহসিকতা এবং তিনি যে উদারতা প্রদর্শন করেছিলেন তাতে প্রচুর প্রভাবিত হয়েছিল। শাহরুখ খানের মা বাগদান করেছিলেন,

তবুও তার বাবা তাজ মোহাম্মদকে তার মেয়ের সাথে বিয়ে দিতে বলেছিলেন।তাজ মোহাম্মদ এতে একমত হন। উভয়ের পরিবার রাজি হওয়ার পরে লতিফ ফাতেমা খান ও তাজ মোহাম্মদ বিয়ে করেন। এর খুব অল্প সময়ের মধ্যেই শাহরুখ খান বিশ্বে আসেন।এভাবেই শাহরুখ খানের বাবা মর্নিং ওয়াকে যাচ্ছেন শাহরুখ খানের মতো তারকাই বিশ্বে আসার কারণ হয়ে ওঠেন। শাহরুখ তার বাবা-

মাকে অনেক মিস করেন। তারা বলে যে তাদের বাবা-মা যদি আজ তাদের সাফল্যটি দেখত তবে তারা খুব খুশি হত।

Categories
Uncategorized

হাজী সেলিমের স্ত্রী আর নেই

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিমের স্ত্রী গুলশান আরা সেলিম মা;;রা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নইলাহি রাজিউন)।

মৃ;ত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫০ বছর। রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার রাত পৌনে ১২টার দিকে তিনি শেষ নিঃ;শ্বাস ত্যাগ করেন। হাজী সেলিমের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা সোহেল হাওলাদার গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, কি;ড;নির
সমস্যাসহ শা;রী;রিক বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছিলেন হাজী

সেলিমের স্ত্রী গুলশান আরা।২০১৮ সালের ১৬ ডিসেম্বর ব্যাংককে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়েছিল গুলশান আরাকে।

Categories
Uncategorized

কাতারে ৮২ জনকে ২ হাজার রিয়াল করে জ’রিমা’না

উপসাগরীয় দেশ কাতারে বিভিন্ন জায়গায় মা;স্ক না পরার অ;পরা;ধে গত ২৪ ঘন্টায় সর্বমোট ৮২ জনকে ২ হাজার রিয়াল করে জ;রিমা;না

করা হয়েছে। nক;রোনা পরিস্থিতি নি;য়ন্ত্র;ণে রাখতে কাতারের আ;ইন অনুসারে মা;স্ক না পরার দায়ে এই জ;রিমা;না আদায় করা হ;য়েছে। তবে জ;রিমা;নার আগে এঁদেরকে আ;টক করেছে কাতার পুলিশ। এছাড়া একই গাড়িতে চারজনের বেশি থাকায় ৫ জনকে আ;ট;ক করা

হয়েছে। আজ রবিবার কাতার পুলিশের বি;জ্ঞপ্তি;তে এই তথ্য জানানো হয়েছে। বিভিন্ন শপিংমল ও খোলা জায়গায় যারা মা;স্ক ছাড়া ঘো;রাঘু;রি করেন, তাদেরকে আ;ট;ক করা হচ্ছে। এ পর্যন্ত কাতারে মা;স্ক না পরার অ;পরা;ধে ১,৯৯৫ জনকে গ্রে;ফতা;র করা হয়েছে। আর গাড়িতে চারজনের বেশি থাকায় আ;ট;ক হয়েছেন মোট ১৩৩ জন।

আ;টককৃ;তদে;র কাছ থেকে কাতারের আ;ই;ন অনুসারে ২ হাজার রিয়াল করে জ;রিামা;না আ;দা;য় করা হচ্ছে।

Categories
Uncategorized

কাজলের মেয়ের সঙ্গে ছেলের বিয়ে, মেনে নিতে পারলেন না শাহরুখ

বলিউড ইতিহাসের অন্যতম রোম্যান্টিক জুটি শাহরুখ-কাজল। রুপালি পর্দায় তাদের রসায়ন আজও তাক লাগিয়ে দেয়। বাজিগর থেকে

দিলওয়ালে- হিন্দি ছবির সুপারহিট জুটি এসআরকে ও কাজল তবে বাস্তব জীবনে তাদের সম্পর্কটা খুনসুটিতে ভরপুর। বেশ কয়েক বছর আগে কফি উইথ করণের সেটে একসঙ্গে হাজির হয়েছিলেন শাহরুখ-কাজল, সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন রানি মুখার্জিও। ব়্যাপিড ফায়ার রাউন্ডে করণ

কাজলের সামনে প্রশ্ন রাখেন- যদি ১০ বছর পর নাইসাকে নিয়ে আরিয়ান পালিয়ে যায় তাহলে কাজলের কী প্রতিক্রিয়া হবে? প্রশ্ন শুনেই হাসিতে ফেটে পড়েছিলেন কাজল। কিছুটা দম নিয়ে কাজল উত্তর দেন, আমি বলব দিলওয়ালে দুলহা লেগায়া। এই কথা বলে শাহরুখের সঙ্গে হাত মেলাতে যান কাজল, তবে গোটা বিষয়টা নিয়ে স্তম্ভিত ছিলেন কিং খান।

করণ পালটা বলেন, শাহরুখ বোধহয় উত্তরটা খুব বেশি ভালো মনে করল না। শাহরুখ এরপর জানান হ্যাঁ, এই জোকটা আমি একদম বুঝতে পারিনি কারণ কাজল আমার আত্মীয় হবে এটাই সবচেয়ে বেশি আতঙ্কের, এই দুঃস্বপ্নটা ভাবতেও চাই না। তার মানে শাহরুখ পরিষ্কার, কাজলের মেয়ের সঙ্গে তার ছেলের বিয়ে কখনোই মেনে নিবেন না।

কাজলের এই উত্তর ছিল শাহরুখ-কাজল জুটির আইকনিক ফিল্ম দিলওয়ালে দুলহানিয়া লেজাঙ্গের প্রেক্ষাপটে, যে ছবি মুক্তির ২৫ বছর পূর্ণ হলো গতকাল। আর এই বিশেষ মুহূর্তেই ভাইরাল হয়েছে কফি উইথ করণের এই পুরোনো ভিডিও। আদতে ২০০৭ সালের কফি উইথ করণের ভিডিও ক্লিপ এটি।

বলিউড ইতিহাসের অন্যতম রোম্যান্টিক জুটি শাহরুখ-কাজল। রুপালি পর্দায় তাদের রসায়ন আজও তাক লাগিয়ে দেয়। বাজিগর থেকে

Categories
Uncategorized

হাজী সেলিমের স্ত্রী মারা গেছেন

ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের স্ত্রী গুলশান আরা সেলিম মারা গেছেন রবিবার রাত পোনে ১২টায় রাজধানীড় ল্যাবএইড

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তিনি দীর্ঘদিন ডায়াবেটিকস, কিডনি, লিভারসহ বিভিন্ন শারীরিক জটিলতায় ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫০ বছর। মদিনা গ্রুপের চেয়ারম্যানের পদে ছিলেন গুলশান আর সেলিম। গুলশান আরা দীর্ঘদিন ডায়াবেটিকস, কিডনি, উচ্চ রক্তচাপ ও লিভার সমস্যায় ভুগছিলেন। ২০১৮ সালের ১৬ ডিসেম্বর চিকিৎসার জন্য তাকে ব্যাংককে নেয়া

হয়েছিল। সেখানে দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় এ বছরের ঢাকায় এনে ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

Categories
Uncategorized

আমিরাতের দুবাইতে ১লা ডিসেম্বর থেকে পানি ও বিদ্যুতের মূল্য কমানোর ঘোষণা

মধ্যপ্রচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের বাণিজ্যিক রাজধানী দুবাই এর পানি ও বিদ্যুৎ বিভাগের কর্তৃপক্ষ (দেবা) ২০২০ সালের ১ লা ডিসেম্বর

থেকে বিদ্যুৎ বিল ও পানি বিল হ্রাস করার ঘোষণা দিয়েছে।বিদ্যুতের ব্যবহারের খরচ বর্তমানে প্রতি ইউনিট বা কিলোওয়াট/ ঘন্টার মূল্য ৬.৫ ফিলস যা কমিয়ে প্রতি প্রতি ইউনিট বা কিলোওয়াট / ঘন্টার জন্য ৫ ফিলস করা হবে। সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা দেওবা আজ রবিবার এক

বিবৃতিতে জানিয়েছে, পানি ব্যবহারের খরচ বর্তমানে ০.6 ফিলস যা কমিয়ে 0.4 ফিলস করা হবে। দুবাইয়ের শক্তি মিশ্রণে নবায়নযোগ্য এবং ক্লিয়ার শক্তির অংশীদারিত্ব বৃদ্ধির জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক হিজরিয়তা শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুমের নির্দেশে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে । সংযুক্ত আরব আমিরাতের নাগরিকদের জন্য হাউজিং প্যাকেজ ১৫.৫

বিলিয়ন দিরহাম অনুমোদন করেছে ! সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রপতি মহিমান্বিত শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের নির্দেশের ভিত্তিতে , তাঁর মহিমা শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহায়ান, আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের সশস্ত্র বাহিনীর উপ-সর্বোচ্চ কমান্ডার এবং আবুধাবির নির্বাহী পরিষদের চেয়ারম্যান আদেশ দিয়েছেন,

আবুধাবিতে অবসরপ্রাপ্ত নিম্ন-আয়ের ৬১০০ নাগরিকদের ৭ বিলিয়ন দিরহাম হাউস লোন বিতরণ এবং নাগরিকদের লোন পরিশোধে ও ছাড় দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে । সংযুক্ত আরব আমিরাতের ৪৯ তম জাতীয় দিবস উজ্জাপনের অংশ হিসাবে ২০২০ সালের হাউজিং প্যাকেজ ১৫.৫ বিলিয়ন দিরহাম অনুমোদন করেছে , সামাজিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এবং

শালীন জীবনযাত্রার মান নিশ্চিত করতে সংযুক্ত আরব আমিরাতের নেতৃত্বের উত্সাহের আলোকে নাগরিকদের জন্য, পাশাপাশি দেশের উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় তাদের ভূমিকা আরও জোরদার করা। সংযুক্ত আরব আমিরাতের নাগরিকদের জন্য এই বছর আবুধাবি সরকারী কর্মসূচী ত্বরান্বিত, গদন 21, এবং দ্বিগুণ আবাসন লোন প্রচারের জন্য

শেখ মোহাম্মদের আগ্রহের প্রতিফলন করে ৫০০০ টিরও বেশি আবাসন লোণের জন্য অনুমোদন জারি করা হয়েছিল।

Categories
Uncategorized

টানা ৪০ দিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে সাইকেল পেল ১৫ কিশোর

টানা ৪০ দিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাতে আদায় করায় ১৫ কিশোর পুরস্কৃত করা হয়েছে সিলেটের এক মসজিদ কমিটি।এসব নিয়মিত নামাজ

আদায়ের পুরস্কার হিসেবে এসব কিশোরদের প্রত্যেককে বাইসাইকেল দিয়েছেন তারা।এমন অভিনব কর্মসূচি পালন করেছে সিলেটে সৈয়দ হাতিম আলী (রহ.) মাজার জামে মসজিদ। শিশু কিশোরদের নামাজে আগ্রহী করতেই এই সাইকেল বিতরণ কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে বলে

জানিয়েছে মসজিদ কর্তৃপক্ষ।আজ মঙ্গলবার বিকেলে ওই কিশোরদের পুরস্কার হিসেবে বাইসাইকেল দেয়া হয়। সৈয়দ হাতিম আলী (রহ.) মাজার জামে মসজিদ কমিটির সূত্রে জানা গেছে, গত ১৬ ডিসেম্বর থেকে এই প্রতিযোগিতা শুরু হয় যেখানে ওই এলাকার ৩৩ জন শিশু-কিশোর অংশ নেয়। টানা ৪০ দিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে এসে আদায় করতে সক্ষম হয় ১৫ কিশোর।

মঙ্গলবার সেই ১৫ কিশোরকে অনুষ্ঠানিকভাবে বাইসাইকেল দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়েছে। তবে যারা টানা ৪০ দিন নামাজ আদায় করতে পারেনি তাদেরকেও নিরাশ করেনি আয়োজকরা। সেই ১৮ শিশু-কিশোরদের একটি করে জায়নামাজ প্রদান করেছেন তারা।

এ বিষয়ে স্থানীয়রা জানিয়েছেন, তুরস্কের দেখাদেখি এমন প্রতিযোগিতার বিষয়ে ভাবনা হয় শিবগঞ্জের সৈয়দ হাতিম আলী (রহ.) মাজার জামে মসজিদ কমিটির। কমিটি ও তালীমুদ্দীন একাডেমির উদ্যোগে শিশু-কিশোরদের নামাজে উদ্বুদ্ধ করতে এই

প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছেন। এমন আয়োজন যেন দেশের সব মসজিদেই হয় সে আশা ব্যক্ত করেছেন তারা।

Categories
Uncategorized

আরব আমিরাতে সড়ক দু;র্ঘটনায় দুই প্রবাসী বাংলাদেশি ক’রু’ণ মৃ;ত্যু

মধ্যপ্রচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আবুধাবিতে এক সড়ক দু;র্ঘ;ট;না;য় দুই প্রবাসী বাংলাদেশি ই;ন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি অইন্না ইলাইহি

রাজিউন)। গত শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টার দিকে আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবির তারিফ সড়কে দু;র্ঘটনায় নি;হ;ত ২ প্রবাসী বাংলাদেশিরনাম মোহাম্মদ মনির (৩১) ও সুমন আখন্দ (২৭)।উক্ত ঘটনায় আ;হ;ত হয়েছেন গাড়ি চালক মোহাম্মদ মামুন।

নি;;হ;ত মনির চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া থানার পূর্ব সরফভাটার নুরুল আনোয়ারের ছেলে।তাদের বাড়ি কালুরহাট বড় মাদ্রাসার পাশে।নি;;হ;;ত সুমন আখন্দ বরিশালের গৌড়নদী থানার আনোয়ার হোসেন আখন্দের ছেলে। তারিফ সড়কের বানিয়াসের শেষ সীমান্ত এলাকায় একটি পেট্রোল ফিলিং স্টেশনে নির্মাণ কাজ তদারকি করতে যাওয়ার সময় তাদের বহন করা গাড়িটি নি;য়ন্ত্রণ হা;রিয়ে হাইওয়ের পাশের ব্যা;রিয়ারে ধা;ক্কা

খে;য়ে উ;ল্টে যায়। এতে ঘ;টনাস্থলেই সুমনের মৃ;;ত্যু হয়।খবর পেয়ে পুলিশ দুর্ঘটনায় গু;রু;ত;র; আ;হ;ত মনির ও গাড়ি মামুনকে উ;দ্ধা;র করে আবুধাবির বিশেষায়িত মাফরাক হাসপাতালে নেয়। সেখানে স্থানীয় সময় বিকেলে মনিরের মৃ;;ত্যু হয়।মোহাম্মদ মনির ও সুমনের লা;;শ বানিয়াস হাসপাতাল ম;র্গে রাখা হয়েছে। দুই বছর আগে সুমনের আখন্দ ঘরোয়া

আয়োজনে বিয়ে করেছিলেন।ফেব্রুয়ারিতে তার দেশে যাওয়ার কথা ছিল বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য।মনির অবিবাহিত ছিলেন।

Categories
Uncategorized

বরাদ্দকৃত সরকারি গাড়ি ফেরত দিলেন সেতুমন্ত্রী

তৃতীয়বারের মতো সরকারিভাবে বরাদ্দ করা গাড়ি ফেরত দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল

কাদের। রোববার (২৯ নভেম্বর) আনুষ্ঠানিকভাবে নিজের নামে বরাদ্দকৃত গাড়িটি পরিবহন পুলে ফেরত দেন মন্ত্রী। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উপ-প্রধান তথ্য কর্মকর্তা আবু নাছের টিপু। জানা গেছে, মন্ত্রীর অনুকূলে পরিবহন পুল থেকে সেতুমন্ত্রী

ওবায়দুল কাদেরকে টয়োটা করোলা হাইব্রিড মডেলের (ঢাকা মেট্রো-ড- ১১-১৮০২) গাড়িটি বরাদ্দ করা হয়। তবে তিনি গাড়িটি ব্যবহার করতেন না। এজন্য সেটি পরিবহন পুলে ফেরত দেয়া হয়েছে। এর আগেও পরিবহন পুল থেকে মন্ত্রীর অনুকূলে বরাদ্দ পাওয়ায় বিএমডব্লিউ (ঢাকা মেট্রো-ড-১১-১৯৪৭) এবং পদ্মসেতু নির্মাণ প্রকল্প পরিদর্শনের

কাজে বরাদ্দ পাওয়া একটি জিপ (ঢাকা মেট্রো-ঘ -১৫-৮৩৪৮) গাড়ি ফেরত দিয়েছিলেন ওবায়দুল কাদের।

Categories
Uncategorized

বিদেশ থেকে ফিরে ২ লাখ দিয়ে ব্যবসা শুরু করে কয়েক কোটি টাকার মালিক!

সংসারের অভাব দূর করতে গিয়েছিলেন মালয়েশিয়া। সেখানে ছয় বছর থাকার পর দেশে ফিরে আসেন। ঢেউটিন বিক্রির ব্যবসা শুরু করেন।

কিন্তু লোকসান হওয়ায় ওই ব্যবসা বন্ধ করে দেন। এরপর বাড়িতেই গড়ে তুলেন মুরগির খামার। শ্রম ও নিষ্ঠার কারণে এই মুরগির খামার দিয়েই তাঁর জীবনে সুদিন ফিরে এসেছে। ২ লাখ দিয়ে ব্যবসা শুরু করে তিনি এখন কয়েক কোটি টাকার মালিক। এই পরিশ্রমী ও সফল ব্যবসায়ীর

নাম ইয়াহিয়া বিশ্বাস। বাড়ি গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার লতিফপুর ইউনিয়নে। তাঁর খামারের নাম হাচিনা পোলট্রি ফার্ম। তিন মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে সুখের সংসার তাঁর। শুরুর কথা: ২০০৩ সালে পৈতৃক সাড়ে ৫ শতাংশ জায়গায় শুরু করেন মুরগির খামার। মুরগি পালনের জন্য তিনটি গোলপাতার ঘর নির্মাণ করেন। ঘর তিনটি নির্মাণে খরচ হয় ১ লাখ ৫ হাজার টাকা। অর্থাৎ প্রতিটি ঘরে খরচ হয়েছিল ৩৫ হাজার টাকা করে।

মূলধন বলতে তার হাতে ছিল মাত্র ৯৫ হাজার টাকা। শুরু করেছিলেন কক মুরগি দিয়ে। শুরু করেছিলেন কীভাবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিনটি ঘরে তিনি ৩ হাজার মুরগির বাচ্চা পালন শুরু করেন। প্রতিটি মুরগির বাচ্চা কিনেছিলেন ১৫ টাকা দরে। কক মুরগিগুলো সাধারণত ৫৫-৬০ দিনে বিক্রয়যোগ্য হয়। বিক্রি করার আগ পর্যন্ত প্রতিটি মুরগির জন্য খাবার বাবদ ৯০-১০০ টাকা ও অন্যান্য খরচ বাবদ ১০ টাকা খরচ

হয়। সব মিলিয়ে ১২০-১৩০ টাকা খরচ হয়। প্রতিটি মুরগির ওজন সাড়ে ৭ থেকে সাড়ে ৮ গ্রাম। প্রতি কেজি কক মুরগি বিক্রি হয় ১৯০ থেকে ২১০ টাকায় । মুরগিপ্রতি ১০ থেকে ২০ টাকা লাভ হতো। দুই বছরের মধ্যে ইয়াহিয়া আরও দুটি ঘর বৃদ্ধি করেন। এভাবে চলতে থাকে ২০১৬ পর্যন্ত। এই সময় তিনি গোপালগঞ্জ বাজারে শুরু করেন মুরগির ব্যবসা।

খামার ও ব্যবসা দুটোই চলতে থাকে। খামার পরিচালনা ও ব্যবসায় ইয়াহিয়াকে সার্বক্ষণিক সহযোগিতা এবং অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন তাঁর স্ত্রী সাবিনা বেগম (৩৮)। ইয়াহিয়া আরও বলেন, লাভজনক হওয়ায় তিনি ২০১৬ সালের শেষ দিকে লেয়ার মুরগি পালন শুরু করেন। এর মধ্যে গড়ে তোলেন দোতলাবিশিষ্ট লেয়ার মুরগির পালন শেড। সরেজমিনে ইয়াহিয়ার খামারে: গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার লতিফপুর ইউনিয়নের

মধুমতি নদীঘেঁষা মানিকদাহ এন হক কলেজের একটু পশ্চিম পাশে যেতেই চোখে পড়ে হাচিনা পোলট্রি ফার্মের সাইনবোর্ড। মূল ফটক দিয়ে ভেতরে ঢুকতেই ডান পাশে ইয়াহিয়ার সেই পুরোনো তিনটি ঘর, যেগুলোতে তিনি ব্যবসা শুরু করেছিলেন। ঘর তিনটির অবকাঠামো ঠিক থাকলেও নেই সেই আগের গোলপাতার চালা। গোলপাতার জায়গায় সিমেন্টের টিনের চালা। তার একটু সামনে এগোতেই দেখা যায় ইয়াহিয়া কর্মচারীকে নিয়ে কাজে ব্যস্ত। দক্ষিণ পাশে তার দোতলাবিশিষ্ট ৪ হাজার ৪৪৫ বর্গফুটের লেয়ার মুরগির শেড। ইয়াহিয়া বলেন, আধুনিক প্রযুক্তির

এই শেডটি নির্মাণ করতে তাঁর ৫০ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। মুরগি পালন পদ্ধতি: মুরগি কীভাবে পালেন—এমন প্রশ্নের জবাবে ইয়াহিয়া বলেন, ‘২০১৭ সালে লেয়ার মুরগি পালন শুরু করি। প্রতিটি লেয়ার মুরগির জন্য দেড় বর্গফুট জায়গা লাগে। প্রতিটি লেয়ারের বাচ্চার দাম ২০-৩০ টাকা। এই বাচ্চগুলো ডিম দেওয়ার উপযোগী করে গড়ে তুলতে ৫-৬ মাস সময় লাগে।

ডিম পাড়ার উপযোগী হতে প্রতিটি মুরগি প্রায় ১০ কেজি খাবার খায়। যার বাজারমূল্য ৪৫০ টাকা। ওষুধ ও অন্যান্য খরচ হয় গড়ে ১০০ টাকা।’ ইয়াহিয়া বিশ্বাসের খামারে কাজ করে সংসার চালাচ্ছেন ওই এলাকার ছয়জন নারী ও পুরুষ। তাঁদের মধ্যে আসমা বেগম (৩০) বলেন, ‘আমরা এখানে কাজ করে সংসার চালাই। এখানে কাজ করার আগে সংসারে অভাব ছিল।

স্বামীর একার টাকায় সংসার চলত না। এখন আমি কাজ করে যে টাকা পাই, তা দিয়ে সংসার ভালোভাবে চলছে।’ ইয়াহিয়া তাঁর খামারের আয়-ব্যয়ের হিসাব দিতে গিয়ে বলেন, তাঁর খামারে ৫ হাজার লেয়ার মুরগি আছে। প্রতিদিন গড়ে ৪২৫০টি ডিম দেয়। প্রতিটি ডিম ৬ থেকে ৭ টাকা বিক্রি হয়। প্রতিটি মুরগি ১২ থেকে ১৬ মাস ডিম দেয়। খামার করে ভাগ্য বদলে যাওয়ার কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, ‘আমি ২ লাখ

টাকা নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছিলাম। এখন আল্লাহর রহমতে জমি কিনেছি, বাড়িতে দোতলা ভবন করেছি, পাশেই বড় পুকুর খনন করে মাছ চাষ করছি। মাছ চাষ করতে আমার বাড়তি কোনো খরচ হচ্ছে না। এখান থেকে বছরে ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা বাড়তি আয় হচ্ছে।’ গোপালগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আজিজ আল মামুন বলেন, ‘জেলায় এমন উদ্যোক্তা খুবই কম।

ইয়াহিয়ার মতো আরও উদ্যোক্তা তৈরি হলে এই জেলা থেকে বেকার সমস্যা দূর করা সম্ভব হবে।’ তথ্যসূত্র: প্রথমআলো।