Categories
Uncategorized

আইপিএলে জুয়া খেলে কোটিপতি রাজশাহীর শরিফ!

ক্রিকেট নিয়ে জুয়া। কেউ এক দিনের ব্যবধানে কোটি পতি আবার কেউ কোটি টাকা নিমিশেই হেরে সর্বশান্ত হয়ে যায়। ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র

করে ঠিক এমন জুয়াড়ি বর্তমানে যুবসমাজ নষ্ট হয়ে যেতে বসেছে। সরকার দ্রুত এ বাজিগার দের গ্রেপ্তার না করলে চরম হুমকির মুখে পড়ে যাবে যুবসমাজ। রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় এ বাজি খেলা চলে। এর মধ্যে অনত্যম হলেন রাজশাহীর গোদাগাড়ী

উপজেলার রাজাবাড়ি ৭ নং দেউপাড়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের মো শরিফ (৩০) নামের এক যুবক। বেশ কিছু দিন আগেও বাদাম বিক্রি করতেন। সাম্মপ্রতিক আইপিএল নিয়ে জুয়া খেলে কোটি টাকা ব্যয়ে বিয়ানাবুনা গ্রামে বাড়ি নির্মান করেছেন তিনি। এর ছাড়া তার স্ত্রীর নামে বিভিন্ন ব্যাংকের একাউন্টে জমিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। তার কাছে ক্রিকেট খেলা কে কেন্দ্র করে ওই এলাকার একাধিক যুবক বাড়ি-ঘর ও

সকল সম্পদ জুয়া খেলে তার কাছে হেরে গিয়ে সব কিছু খোয়া গেছে বলে অভিযোগ করেন বিয়ানাবোনা গ্রামের স্থানিয়বাসীন্দারা। গ্রামের একাদিক স্থানিয়দের অভিযোগ, গোদাগাড়ী উপজেলার ৭ নং দেউপাড়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড কামিরপাড়া গ্রামের খোশ মাহাম্মদের ছেলে মো শরিফ (৩০)। সে বেশ কিছুদিন আগেও বাদাম বিক্রি করতেন। সে বর্তমানে মাছের ব্যবসা করেন।

লোক দেখানো মাছের ব্যবসা করে থাকলেউ সে ক্রিকেট নিয়ে তার বাড়িতে জুয়ার আসোর বসান। সাম্প্রতিক আইপিএল ক্রিকেট খেলার সময় লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এ বাজিগার শরিফ। তার মোবাইল থেকে ডলারের মাধ্যে বিভিন্ন রেটে লাখ লাখ টাকার বাজি খেলান এ শরিফ।
স্থানিয়রা আরো জানান, সাম্প্রতিক ক্রিকেট নিয়ে জুয়া খেলে তিনি কোটি টাকা ব্যয় করে গ্রামে বাড়ি নির্মান করেছেন। অপরদিকে তার আপন

ছোট ভাই আরিফসহ দুই ভাই এখনও মাছের ব্যবসা করে। শরিফ বাজি খেলে কোটি টাকা ব্যয়ে বিয়ানাবুনা গ্রামে বাড়ি নির্মান করে হটাৎ। এতে বিষটি এলাকাবাসীর নজরে আসে। তার ৪ থেকে ৫ টি মোবাইলে লাখ লাখ টাকার ডলার রয়েছে। এসব ডলার দিয়ে সে বাজি কাটেন ক্রিকেট খেলার সময়। তার এসব মোবাইল নাম্বারের মধ্যে এ দুইটি ০১৭৮২২২৬৭২০/০১৮১৮৭০৪২৩০। শরিফের ৪ থেকে ৫টি ফোন নাম্বারে ক্রিকেট

খেলার জন্য বাজি গাররা তার সাথে যোগাযোগ করে। ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত তার সাথে মোবাইলে বাজি ধরে কেউ, ১০ টি, ২০টি, ৫০ টি করে। একটিতে ১ হাজার টাকা করে। বর্তমানে বঙ্গবন্ধু টি ২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট কে ঘিরে শরিফ বাজি খেলার মজমা বসিয়েছেন বর্তমানে তার বাড়িতেই। দীর্ঘদিন যাবত শরিফ ক্রিকেট নিয়ে অবৈধ ভাবে জুয়া খেলে কোটি কোটি টাকা কামিয়েছেন। তার এ বাজি খেলার কারনে ওই
এলাকার যুবসমাজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। জুয়া খেলে সব কিছু হেরে সর্বশান্ত

হয়ে গেছে ওই এলাকার, ওয়াশিম ও তার ভাই বর্তমানে বাড়ি ঘর ছেড়ে পলাতক, জমি, সম্পদ বিক্রিকরে সব শেষ। এ ছাড়া ওই এলাকার রিপন, রকিসহ একাদিক যুবক তার কাছে জুয়াতে হেরে গিয়ে সর্বশান্ত হয়ে গেছে। এ বিষয় জুয়াড়ি শরিফের মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি মাছের ব্যবসা করি। আগে খেলতাম জুয়া। বর্তমানে এখন বন্ধ আছে বলেও স্বীকার করেন তিনি। গোদাগাড়ী উপজেলার ৭ নং ইউপির ৭ নং বিয়ানাবুনা ওযার্ডের ইউপি সদস্য মো লিটন হোসেন

উৎসব বলেন, ক্রিকেট নিয়ে শরিফ যে ভাবে জুয়া খেলে তাতে তার বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলা হওয়া উচিৎ। এ জুয়া খেলায় লাখ লাখ টাকা ডলারের মাধ্যেমে দেশের টাকা বিদেশে পাচার হয়ে যায়। আনলাইনে ক্রিকেট খেলার সময় শরিফের বাড়িতেই সে মোবাইলের মাধ্যমে জুয়া খেলা পরিচালনা করে। এতে যুবসমাজ চরম হুমকির মুখে পড়ে গেছে। আশা করছি দ্রুত তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন প্রশাসন। এ বিষয় রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইফতেখার আলম জানান, দ্রুত এসব জুয়াড়িদের গ্রেপ্তারে

পুলিশি অভিযান চলবে। এসব জুয়াড়িদের গ্রেপ্তারের পরে তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলা হবে বলেও জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *