Categories
Uncategorized

যুক্তরাষ্ট্রে ৪০ হাজার বাংলাদেশির নাগরিকত্ব লাভের সুযোগ

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ফেডারেল কোর্ট প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আরেকটি আমেরিকাবিরোধী পদক্ষেপকে বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। এতে

সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার একটি নির্দেশ পুনর্বহাল হলো। বিচারকের ওই রায়ের ফলে সাড়ে আট লক্ষাধিক তরুণ-তরুণীর আমেরিকায় স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ সৃষ্টি হলো, যাদের মধ্যে রয়েছেন ৪০ সহস্রাধিক বাংলাদেশিও। পাশাপাশি যেসব শিশু মা-বাবার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে

আসার পর এখন পর্যন্ত বৈধ হতে পারেনি, তেমন অনূর্ধ্ব ৩০ বছর বয়সীদের ওয়ার্ক পারমিটের নবায়ন/দরখাস্ত করার সুযোগ অবারিত হলো।
৪ ডিসেম্বর ইউএস ডিস্ট্রিক্ট কোর্টের জজ নিকলাস জি গ্যারোফিস ডেফার্ড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভাল (ডেকা) প্রোগ্রাম বাতিলের জন্য ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশকে বাতিল করেন। ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে সেই আদেশ জারি করা হয়।

আদালতের এই নির্দেশের ফলে আগের ওয়ার্ক পারমিট নবায়ন অথবা নতুন দরখাস্ত গ্রহণের জন্য হোমল্যান্ড সিকিউরিটি ডিপার্টমেন্ট ৭ ডিসেম্বর মধ্যে সর্বসাধারণের জন্য একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে। ৮ বছর আগে ২০১২ সালে জো বাইডেন যখন ভাইস প্রেসিডেন্ট ছিলেন, সে সময় প্রেসিডেন্ট ওবামা বিশেষ এক নির্দেশে এসব তরুণ-তরুণীকে ওয়ার্ক পারমিটের জন্য গ্রিন কার্ড দেয়ার নির্দেশ দেন। এই নির্দেশ অনুযায়ী সাড়ে

৬ লাখ তরুণ-তরুণী ওয়ার্ক পারমিটের আবেদন করেছিলেন। এর ফলে তারা যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কারের শঙ্কা থেকে স্বস্তি পেয়েছিলেন। এই তরুণ-তরুণীরা সিটিজেন হওয়ার পর তাদের মা-বাবার জন্যও গ্রিন কার্ডের আবেদন করতে পারবেন – এই স্বস্তিতে বিভিন্ন দেশের কমিউনিটিগুলোতে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়। এদিকে ইমিগ্র্যান্টদের অধিকার ও মর্যাদা নিয়ে লড়াইরত সংস্থাগুলোর কর্মকর্তারা নিউইয়র্ক

ফেডারেল কোর্টের এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন। এসব সংস্থার পক্ষে ট্রাম্পের ওই আদেশের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই চালিয়ে যাওয়া অ্যাটর্নি কারেন টামলিন বলেন, এই রায়ই চূড়ান্ত নয়। আগামী ২০ জানুয়ারি জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনি যাতে সোয়া

কোটি অবৈধ অভিবাসীকে গ্রিন কার্ড প্রদানের ঘোষণা দেন, সেজন্য অভিবাসী সমাজকে সোচ্চার থাকতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *