Categories
Uncategorized

সিঙ্গাপুরে ‘অলৌকিকভাবে’ বেঁচে যাওয়া প্রবাসী বাংলাদেশির অপেক্ষা শুধু সন্তানের মুখ দেখার

বিশ্বের অন্যতম ধনী দেশ সিঙ্গাপুরে দীর্ঘ ৫ মাস ধরে মহামারি কো;ভিড-১৯ এর সাথে ল;ড়ে নাটকীয়ভাবে বেঁচে ফেরেন এক প্রবাসী

বাংলাদেশি। এখন তিনি অপেক্ষা করছেন দেশে ফিরে তার ৮ মাস বয়সী সন্তানের মুখ দেখার। সিঙ্গাপুর প্রবাসী রাজু সরকার দেশটির একটি হাসপাতালে আইসিইউতে মৃ;ত্যু;র সঙ্গে পা;ঞ্জা ল;ড়ছিলেন। প্রায় ১ মাস আগে সন্তান সাফুন ফোনে তাকে বাবা বলে ডাকে। এ সময় তার দু-

চোখ বেয়ে পানি নেমে আসে। তিনি বলেন, আমি তার থেকে শক্তি পেয়েছি, সে তাড়াতাড়ি বড় হয়ে যাচ্ছে। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে রাজু সরকার কো;ভিড-১৯ এ আ;ক্রান্ত হন। এরপর প্রায় ৫ মাস যাবত কাটাতে হয় দেশটির ট্যান টক সেং হাসপাতালে। এর মধ্যে অর্ধেক সময় থাকতে হয়েছে আ;ইসিইউতে। এরপর গত জুন মাসে ছাড়া পান তিনি। যখন তিনি ক;রোনামুক্ত হলেন তখন তার শরীরে দেখা দেয়

অন্যান্য স;মস্যা। তার রক্তের প্লাটিলেট স্তর কমে যায় এবং হা;র্টে স;মস্যা দেখা দেয়। তবে রাজু সরকার জানিয়েছেন, তিনি এখন আগের থেকে অনেক সুস্থ আছেন। আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি বা মার্চে তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন। চিকিৎসকেরা জানান, তারা রাজুর সুস্থ হয়ে ফিরে আসায় অবাক। কেননা তার অক্সিজেন স্তর অনেক কমে যায়, মনে হয়েছিল আর বাঁ;চবে না। রাজু সরকার সিঙ্গাপুরে একটি

আইটি ফার্মে কাজ করেন। দীর্ঘদিন ধরে কাজের বাইরে থাকার পরেও আশা করা হচ্ছে তার কোম্পানি কর্তৃপক্ষ তার প্রতি নমনীয় থাকবে।
রাজু বলেন, আমার শারীরিক সক্ষমতা আর আগের মতো নেই। আগে আমি আমার অবস্থার কথা ভাবতাম না, কিন্তু এখন আমায় স;ত;র্ক হতে হবে। বর্তমানে রাজু তার কোম্পানির দেওয়া আবাসনে রয়েছেন। সেখানে ল্যাপটপে তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। মৃ;ত্যু;র

কাছ থেকে ফিরে আসার অভিজ্ঞতা তাকে আরো ধা;র্মিক করেছে বলে জানান রাজু। তিনি বলেন, আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়েছে, আমি চেষ্টা করছি সঠিক পথে চলার। এদিকে বাংলাদেশে রাজুর স্ত্রী সানজিদা আক্তার (১৮) তার স্বামীর দেশে ফেরার অপেক্ষার প্র;হর গুনছেন। গাজীপুর থেকে ফোনে সানজিদা বলেন, বিদেশে এমন দু;র্ভাগ্যজনক ঘ;টনা

ঘ;টেছে। আমি খুব ভ;য়ে ছিলাম। আমার স্বামীর পাশে থাকার জন্য প্রবাসী ভাই-বোনদের অনেক অনেক ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *