Categories
Uncategorized

যে দুটো জিনিসের জন্যই মে’য়েরা পু’রুষের জন্য পা’গল হয় !

রূপসী মেয়েদের জন্য যেমন পাগল পুরুষরা ঠিক তেমনি পুরুষদের জন্যও পাগল মেয়েরাও। তবে মাত্র দুটো জিনিস চাই। দুটো জিনিসের

একটি ঘাটতি হলে কিন্তু মহাবিপদ। সেজন্য আগেভাগেই মাথায় রাখতে হবে পুরুষদের। একজন নারী তার স্বামীর সংসারে এসে দুটো জিনিসে সবথেকে বেশি খুশি হয়। প্রথমত স্বামীর ভালো অর্থনৈতিক অবস্থা দেখলে, দ্বিতীয়ত স্বামীর কাছ থেকে পাওয়া ভালবাসায়। তবে প্রথমটার থেকে

দ্বিতীয়টাই মহিলাদের কাছে বেশি গু’রুত্বপূর্ণ।প্রত্যেক স্বামীরও উচিত নিজের স্ত্রীকে পরিপূর্ণ সুখ দেয়া। অনেক পুরুষ জ্ঞানের অভাবে স্ত্রীকে এ দুটো জিনিস দিতে পারে না। ফলে যা হবার তাই হয়। তবে এ জন্য মাথা খারাপ করলে চলবে না। জ্ঞানের পরিধি বাড়াতে হবে পুরুষকে। দাম্পত্য জীবনে সুখি ‘হতে চাইলে দুটি জিনিসে ঘাটতি রাখা

যাব’ে না। এ জন্য পুরুষদের হিসাব কষে এগু’তে হবে। কোনো অবস্থাতেই এ দুটো দুর্বলতা নিয়ে রূপসীর প্রেমে পড়বেন না। তাহলে কিন্তু কেল্লা ফতে। দৃষ্টি আকর্ষণ এই সাইটে সাধারণত আম’রা নিজস্ব কোনো খবর তৈরী করি না..আম’রা বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবরগুলো সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি..তাই কোনো খবর নিয়ে

আ’পত্তি বা অ’ভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কতৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।

Categories
Uncategorized

সৌদি আরবে প্রথমবারের মতো নারী বিমানবালা নিয়োগ

প্রথমবারের মতো ৫০ সৌদি নারীকে বিমানবালা হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সৌদি মালিকাধীন বিমান সংস্থা। বিমানের নারী যাত্রীদের সেবা দিতে

তাদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। সৌদি গেজেটের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুই মাসব্যাপী প্রশিক্ষণ শেষে তারা প্রথম ধাপে জেদ্দা ও রিয়াদের বিমানবন্দরে কাজে যোগ দেবে। সৌদি বিমান সংস্থা সম্প্রতি এক ঘোষণা জানায়, বিমানবালা হিসেবে নারীকর্মীদের কমপক্ষে মাধ্যমিক স্তরে

উত্তীর্ণ হতে হবে এবং ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সী হতে হবে। এ ছাড়া ইংরেজি ভাষায় দক্ষ হতে হবে। গত জানুয়ারিতে সৌদির বেসরকারি বিমান সংস্থা ফ্লাইনাস এক বিবৃতিতে জানিয়েছিল, বিমানবালা হিসেবে সৌদি নারীদের নিয়োগ দেওয়া হবে। সৌদিতে এবারই প্রথম নারীদের এ পদের জন্য নিয়োগ দেওয়া হবে।

প্রথমবারের মতো ৫০ সৌদি নারীকে বিমানবালা হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সৌদি মালিকাধীন বিমান সংস্থা। বিমানের নারী যাত্রীদের সেবা দিতে

Categories
Uncategorized

বিদায়বেলায় মধ্যপ্রাচ্যকে বিপুল অ’স্ত্র দিয়ে যাচ্ছেন ট্রাম্প

ক্ষ;মতার শেষপ্রান্তে এসে মধ্যপ্রাচ্যে মিত্র দেশগুলোকে অত্যাধুনিক সমরাস্ত্রে সাজাতে উঠেপড়ে লেগেছে ট্রাম্প প্রশাসন। কিছুদিন আগে সংযুক্ত

আরব আমিরাতের কাছে রেকর্ড পরিমাণ যু;দ্ধাস্ত্র বিক্রির অনুমোদনের পর এবার সৌদি আরব, মিসর, কুয়েতের কাছে বিপুল গোলাবারুদ ও প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম পাঠাতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। মঙ্গলবার সৌদি আরবের কাছে বিপুল পরিমাণ অত্যাধুনিক বোমা বিক্রির অনুমোদনের ঘোষণা দিয়েছে

মার্কিন পররাষ্ট্র বিভাগের প্রতিরক্ষা সুরক্ষা সহযোগিতা সংস্থা। একই সঙ্গে কুয়েতের কাছে চার বিলিয়ন ডলারের এইচ-৬৪ই অ্যাপাচে হেলিকপ্টার, মিসরের কাছে ১০৪ মিলিয়ন ডলারের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম ও যুদ্ধবিমানের জন্য ৬৫ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলারের নির্ভুল লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণী যন্ত্রাংশ বিক্রির অনুমোদনও দেওয়া হয়েছে।

সমালোচকদের দাবি, কংগ্রেসনাল বোর্ড এবং জনগণের বিরোধিতা সত্ত্বেও ট্রাম্প প্রশাসন আগামী ২০ জানুয়ারি ক্ষমতা ছাড়ার আগেই সৌদি ও আমিরাতের মতো মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী দেশের কাছে তাড়াহুড়ো করে সমরাস্ত্র পাঠানোর চেষ্টা করছে। সাংবাদিক জামাল খাশোগি প্রতিষ্ঠিত সংস্থা ডেমোক্র্যাসি ফর আরব ওয়ার্ল্ড নাউ (ডন)-এর নির্বাহী পরিচালক সারাহ লিয়া হুইটসন বলেন, মানবাধিকার বিষয়ে সৌদি আরবের নিকৃষ্ট

রেকর্ড সত্ত্বেও তাদের অস্ত্র উপহার দিতে ছুটছে ট্রাম্প প্রশাসন। সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল পলিসির অস্ত্র ও নিরাপত্তা কর্মসূচির পরিচালক উইলিয়াম হার্টাং বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মধ্যপ্রাচ্যে অস্ত্র বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। ইয়েমেনে নির্বিচারে বিমান হামলা চালিয়ে হাজার হাজার বেসামরিক মানুষ হত্যার ইতিহাসের ভিত্তিতে সৌদি আরবের কাছে আর বোমা বিক্রি করা উচিত নয়।

এটা কংগ্রেস যদি আটকাতে না পারে, তাহলে বাইডেন প্রশাসন দায়িত্ব নেওয়ার পর সেটি করা উচিত। তবে মার্কিন পররাষ্ট্র বিভাগ বলছে, এসব অস্ত্র বিক্রি যুক্তরাষ্ট্রের বৈদেশিক নীতি এবং জাতীয় নিরাপত্তার শর্তগুলোকে সমর্থন করছে, যা বন্ধুত্বপূর্ণ দেশগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নয়নের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও অর্থনৈতিক

বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে ২৩ বিলিয়ন ডলারের সমরাস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে ট্রাম্প প্রশাসনের অজুহাত,
ইরানের ক্রমবর্ধমান হুমকি মোকাবিলায় এর দরকার রয়েছে। এদিকে, সৌদির নেতৃত্বে ইয়েমেন যুদ্ধে সরাসরি অংশ নেওয়া আমিরাতের কাছে নতুন করে অস্ত্র সরবরাহ আটকাতে বুধবার একটি মামলা হওয়ার কথা যুক্তরাষ্ট্রে। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিরুদ্ধে মামলাটি করবে নিউইয়র্ক সেন্টার ফর ফরেন পলিসি অ্যাফেয়ার্স। এক্ষেত্রে, আমিরাতের কাছে ড্রোন ও এফ৩৫ যুদ্ধবিমান বিক্রিতে তাড়াহুড়োর

মাধ্যমে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র রপ্তানি নিয়ন্ত্রণ আইনকে উপেক্ষা করা হয়েছে বলে অভিযোগ আনা হতে পারে।
সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

Categories
Uncategorized

মায়ের নির্দেশে শত শত ট্রেনযাত্রীর প্রা’ণ বাঁচানো সেই কিশোর পেল পুরস্কার

উপস্থিত বুদ্ধি দিয়ে নিশ্চিত ট্রেন দু’র্ঘট’নার হাত থেকে শত শত যাত্রীকে র’ক্ষা করা জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার সেই কিশোর সাজিদকে

পুরস্কৃত করা হয়েছে। বুধবার উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে নগদ অর্থ সাজিদ ও তার বাবা-মায়ের হাতে তুলে দেন পরিষদের চেয়ারম্যান মনিরুল শহীদ মুন্না। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইউএনও বরমান হোসেন, উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল কাইয়ুম ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নূর-

এ-শেফা। গত রোববার উপজেলার খাসবাগুরী গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে কিশোর সাজিদ রেললাইনের পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় দেখতে পায় লাইন ভে’ঙে ফাঁ’ক হয়ে গেছে। এ সময় পঞ্চগড় থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী দ্রুতযান ট্রেনটি আসতে দেখে বিষয়টি তার মাকে বললে ছেলেকে লাল কাপড় উড়াতে বলেন তিনি। এ সময় শরীরে থাকা লাল গেঞ্জিই বাঁশের মাথায় জ’ড়িয়ে উ’ড়াতে থাকে

সাজিদ। এ সময় ট্রেনচালক বিষয়টি দেখে ট্রেনটি থামায়। এভাবে ট্রেনের শত শত যাত্রীর প্রাণ র’ক্ষা করে সে।

Categories
Uncategorized

মালয়েশিয়ায় শ্রমিকদের ছোট করে দেখার সুযোগ নেই, তারা আমাদের উন্নয়নে অবদান রাখছে

এশিয়া মহাদেশের অন্যতম উন্নত দেশ মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মহাপরিচালক দাতু ডাঃ নুর হিশাম আব্দুল্লাহ জানিয়েছেন বিদেশিদের মাঝে

কো’ভি’ড-১’৯ এর সং’ক্র’মণ তী’ব্র বেড়ে যাওয়ায় তাদেরকে কলু’ষিত না করা জন্য স্থানীয় মালয়েশিয়ান নাগরিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। কারণ তারা এই দেশের প্রবৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। স্বাস্থ্য মহাপরিচালক বলেছেন, ইমিগ্রেশন বিভাগের বেশ কয়েকটি

আটক কেন্দ্রের পাশাপাশি বিভিন্ন সম্প্রদায়ের বিদেশী ক’র্মী’দের মাঝে কো’ভি’ড-১’৯ এর প্রা’দুর্ভা’ব একটি নতুন চ্যা’লেঞ্জ, যা দেশের সবাইকে নিয়ে একসাথে সমাধান করতে হবে। তবে বিদেশিদের ক্ষেত্রে অবশ্যই প’ক্ষপাত করা উচিত নয় এবং স্থানীয়রা তাদেরকে কল’ঙ্কি’ত করে মন্তব্য ও নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখা উচিত নয়। আমাদের দেশের

কো’ভি’ড-১’৯ পরিস্থিতি নিরসনে অবশ্যই তাদেরকে সহায়তা করতে হবে। অভিবাসীদের নিচু করে দেখার সুযোগ নেই, তারা আমাদের দেশের উন্নয়নে অবদান রাখছে। প্রকৃতপক্ষে প্রতিবছর বিদেশি কর্মীদের সাথে স্থানীয়দের পারস্পরিক যোগাযোগ সীমিত আকারে হয়। তবে আমাদের দেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে তাদের উপস্থিতি গুরুত্বপূর্ণ সহায়তা করছে। যথাযথ ভাবে তাদের মধ্যে সৃষ্ট

কো’ভি’ড-১’৯ সমস্যা সমাধানের জন্য আমাদের শনাক্তকরণ এবং সমাধানের পথগুলো খুঁজে বের করতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য অধিদফতরের অফিসিয়াল টুইটার একাউন্টে এক টুইট বার্তায় তিনি এসব কথা তুলে ধরেছেন। তিনি আরও বলেন মালয়েশিয়ার ইমিগ্রেশন কা’রাগা’র গু’লোতে ব’ন্দী অ’বৈধ অভিবাসীদের মধ্যে আ’ক্রা’ন্তে’র হার বেড়ে যাওয়ার পর পর নি’রাপ’ত্তা কাজে

নিয়োজিত ও সংস্থা গুলোর সহোযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রদত্ত নির্দেশিকা গুলো মেনে চলার অভ্যাস গড়ে তোলার জন্য তিনি স্থানীয় সাধারণ জনগণকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। উল্লেখ্য, এর আগে মালয়েশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী দাতুশ্রী ইসমাইল সাবরি ইয়াকুব সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন যে, ইমিগ্রেশন এর ৩ টি কা’রাগারে মোট ৪,৮০৭ জনের

কো’ভি’ড-১’৯ স্ক্রিনিং টেস্ট করার পর ৩৮৪ জন অ’বৈধ অভিবাসীকে করোনা প’জিটি’ভ হিসেবে শনা’ক্ত করা হয়েছে।

Categories
Uncategorized

বিএনপির ভোটডাকাতির রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারবে না: কাদের

বাংলাদেশের ইতিহাসে ভোটডাকাতিতে বিএনপির রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বুধবার সকালে রাজধানীর কৃষিবিদ ইন্সটিটিউটে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’ উপলক্ষে আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও

কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যুক্ত হন।বিএনপির যে কোনো শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিকে স্বাগত জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। সেই সঙ্গে হুশিয়ার করে বলেন, তবে আন্দোলনের নামে কোনো নৈরাজ্য সৃষ্টি করলে জনগণের সম্পদ রক্ষায় সরকার কঠোর ব্যবস্থা নেবে।

আরও পড়ুন=লা গড়িয়ে বিকেলে খেলাধুলায় মেতে ওঠে কক্সবাজার থেকে ভাসানচরে যাওয়া রোহিঙ্গারা। শিশু-কিশোরদের সঙ্গে নানা খুনসুটিতে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায় নৌবাহিনীর কর্মকর্তাদের। ছিলো সাংস্কৃতিক আয়োজনও। একটি সুন্দর, আনন্দমুখর জীবন

কাটানোর জন্য উখিয়ার কুতুপালংসহ বিভিন্ন আশ্রয় শিবির থেকে রোহিঙ্গারা ভাসানচরমূখী হয়েছে। এখন তাদের সেসবের বাস্তবায়ন চলছে। ইতোমধ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য গড়ে তোরা হয়েছে দুটি পৃথক ক্লাব। একটি মিউজিক্যাল ক্লাব, অন্যটি স্পোর্টস ক্লাব। মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর)

বিকেলে ভাসানচর আবাসন প্রকল্পের পরিচালক নৌবাহিনীর কমোডর আবদুল্লাহ আল মামুন চৌধুরী ক্লাবগুলোর উদ্বোধন করেন। এরপর তিনি রোহিঙ্গা তরুণদের সঙ্গে প্রথমে ভলিবল এবং পরে ফুটবল খেলেন।রোহিঙ্গা তরুণরা বলছেন, মিয়ানমারে তাদের এই সুযোগ ছিলো না। গত

তিন বছরেও এমন সুবিধা তারা পায়নি। ভাসানচরে এসে এই সুযোগ পেয়ে তারা আনন্দিত বলে জানান। সূত্র; সময় নিউজ

Categories
Uncategorized

দ্বিতীয় পদ্মা সেতুও হবে নিজস্ব অর্থায়নে!

প্রথম পদ্মা সেতুর কাজ শেষের দিকে। এতো সব জটিলতার পর পদ্মা সেতুর কাজ শেষ পর্যায়ে হওয়ায় আশার আলো দেখছেন দেশবাসী। আর

তাই এবার দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নিয়েও স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে মানুষ। তবে সরকারের পক্ষ থেকেও মিলেছে দ্বিতীয় পদ্মা সেতুর ইঙ্গিত। প্রথমটির মতোই দ্বিতীয় পদ্মা সেতুও নিজস্ব অর্থায়নেই বাস্তবায়নের পরিকল্পনা করছে সরকার। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী বাজেটের আগেই এ সেতুর

সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের চূড়ান্ত জরিপ করা হবে। একই সঙ্গে প্রথম পদ্মা সেতুর অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে দ্রুততম সময়ের মধ্যে দ্বিতীয় পদ্মা সেতুর ডিজাইন করা হবে। এদিকে বহুল আলোচিত স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কাজ এগোচ্ছে দ্রুত গতিতে। এখন পর্যন্ত পুরো প্রকল্পের ৮২ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। মূল সেতুর কাজের ভৌত অগগ্রতি হয়েছে ৯১ শতাংশ।

বসানো হয়েছে সবকটি স্প্যান। যা উন্নয়নের একটি অন্যতম মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে। এরই মধ্যে সামনে চলে এসেছে দ্বিতীয় পদ্মা সেতুর আলোচনা। যদিও দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণের প্রাথমিক পরিকল্পনাও করা হয়েছিল প্রায় ১১ বছর আগে। এবার ২০২১-২০২২ অর্থবছরের বাজেটের আগেই দ্বিতীয় পদ্মা সেতু প্রকল্পের চূড়ান্ত জরিপ প্রক্রিয়া শেষ করতে চায় সরকার। পরিকল্পনা অনুযায়ী নতুন

করে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) নিয়ে কাজ করছে সেতুবিভাগ। মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, এ প্রকল্পে অর্থায়নের জন্য প্রাথমিকভাবে সম্মতি দিয়েছে বিশ্বব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। তবে সরকার একক বা যৌথ অর্থায়নকারী হিসেবে কোন সংস্থাকে বেছে নেবে সে বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। এরই মধ্যে বিশ্বব্যাংক ও

এডিবির সঙ্গে সরকারের একাধিকবার আলোচনাও হয়েছে। এখানে উল্লেখ্য, প্রথম পদ্মা সেতু প্রকল্পে অর্থায়ন নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগে বিশ্বব্যাংক তাদের অর্থায়ন প্রত্যাহার করে নেয়। এতে সংকটময় পরিস্থিতি তৈরি হলে সেতুর বাস্তবায়ন কাজ পিছিয়ে যায়। একই সঙ্গে সরকার আন্তর্জাতিক মহলে নানা প্রশ্নের মুখে পড়ে। যদিও পরবর্তীতে বিশ্বব্যাংকের সেই অপবাদ মিথ্যা প্রমাণিত হয়। ওই তিক্ত অভিজ্ঞতাকে আমলে নিয়ে দ্বিতীয়

পদ্মা সেতু নিয়ে কিছুটা ধীরেই চলছে সরকার। নতুন করে আর কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতিতে পড়তে চায় না সরকার। এমনকি কোনো অর্থায়নকারী স্বেচ্ছায় এগিয়ে না এলে নিজস্ব অর্থায়নেই দ্বিতীয় পদ্মা সেতুও বাস্তবায়নের এক রকম পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। প্রয়োজনে রিজার্ভের অর্থও এখানে কাজে লাগানো হতে পারে। আবার পাবলিক প্রাইভেট

পার্টনারশিপের (পিপিপি) ভিত্তিতেও এগোতে পারে সরকার। একাধিক সম্ভাব্য বিকল্প রেখেই এগোচ্ছে সরকার। সূত্র জানায়, প্রথম পদ্মা সেতুর মতো দ্বিতীয় পদ্মা সেতু বাস্তবায়নেও প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়ে পাশে থাকতে চায় চীন। এ নিয়ে চীন সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে। এর আগে পদ্মা নদীর ওপর সেতু নির্মাণে জাইকা তাদের বিস্তারিত সমীক্ষায় চারটি

স্থানকে সুবিধাজনক হিসেবে চিহ্নিত করে। এগুলো হলো-পাটুরিয়া-গোয়ালন্দ, দোহার-চরভদ্রাসন, মাওয়া-জাজিরা ও চাঁদপুর-ভেদরগঞ্জ। এর মধ্যে মাওয়া-জাজিরা পয়েন্টে দেশের বৃহত্তম পদ্মা বহুমুখী সেতু বাস্তবায়নের কাজ চলছে। সবকিছু ঠিক থাকলে পাটুরিয়া- গোয়ালন্দ পয়েন্টে হবে দ্বিতীয় পদ্মা সেতু। এ সেতু নির্মাণ হলে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, মাগুরা,

রাজবাড়ীর সড়ক যোগাযোগের দূরত্ব কমে আসবে। গোপালগঞ্জ, যশোর ও মাদারীপুর জেলার অংশবিশেষের দূরত্বও কমবে।এ বিষয়ে জানতে চাইলে পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলেন, প্রথম পদ্মা সেতু জনসাধারণ ও সরকারের বিরাট স্বপ্ন। সেটা এখন প্রায় শতভাগ বাস্তব রূপ নিয়েছে। দ্বিতীয় পদ্মা সেতুর ব্যাপারেও সরকার পরিকল্পনা করছে অনেক দিন আগে থেকেই।

এটাও হবে একটি নতুন স্বাপ্নিক প্রকল্প। জানা গেছে, প্রস্তাবিত এ সেতুর দৈর্ঘ্য হবে ৬ দশমিক ১০ কিলোমিটার। প্রকল্পটির প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩ হাজার ১২১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। প্রকল্পের প্রস্তাব ইতিমধ্যে অনুমোদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথম দিকে এর ব্যয় ধরা হয়েছিল ১০ হাজার কোটি টাকার কিছু বেশি। সে সময় অবশ্য দৈর্ঘ্য ধরা হয়েছিল ৫ কিলোমিটার। পরে এর দৈর্ঘ্য বেড়ে

যাওয়ায় নির্মাণ ব্যয় ৩ হাজার কোটি টাকা বেড়েছে। তবে এই ব্যয় আরও বাড়বে জানিয়েছেন সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা।

Categories
Uncategorized

রাজীবকে বিশ্বাস করে ভুল করেছি : প্রভা

নানা ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে ছোট পর্দার জনপ্রিয় অ’ভিনেত্রী সাদিয়া জহান প্রভা পার করেছেন বেশ কয়েকটি বছর।

প্রে’ম, বিয়ে, বিচ্ছেদ, স্ক্যান্ডাল নানা কারণেই তিনি আ’লোচিত ও সমালোচিত হয়েছেন প্রভা। তার মধ্য অন্যতম রাজীবের সঙ্গে তার স্ক্যান্ডাল।
রাজীবের সঙ্গে সেই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাটি প্রভা বলেন, ‘আমি কোনো পত্রপত্রিকাকে বলিনি যে আমি ভুল করেছি।

রাজীবের সঙ্গে আমি যা করেছি তা ভুল করিনি এভাবে বলার জন্য দুঃখিত। হ্যাঁ, বিশ্বা’স করেছি। বিশ্বা’স করে যদি কোনো ভুল করে থাকি, তাহলে আমি সেটা করেছি।’প্রভাকে নিয়ে কম তো পানি ঘোলা হয়নি! সেই ঘোলা পানিতে মাছ ধ’রার চেষ্টাও করেছেন কেউ কেউ! তাতেও নিজের অবস্থান থেকে এতটুকু সরে যাননি তিনি।

বরং বারবার ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। নিজের অবস্থানকে ঠিকই ধরে রেখেছেন এখনো। মাঝে কিছু সময় ব্যক্তিগত কারণে মিডিয়া থেকে কিছুটা দূরে ছিলেন। তবে সেটি ছিল সাময়িক বিরতি। সেই সময়ও তাকে নিয়ে মিডিয়ায় নানা গুজব ছড়িয়েছে। সেই গুজবে একবারও কান দেননি তিনি। যখন ফিরেছেন তখন অ’ভিনয়টাকে সাধনা মনে করে একাগ্র থেকেছেন নিজের কাজে।

সেই গুজবে একবারও কান দেননি তিনি। যখন ফিরেছেন তখন অ’ভিনয়টাকে সাধনা মনে করে একাগ্র থেকেছেন নিজের কাজে।

Categories
Uncategorized

ইভিএমে ধানের শীষে ভোট দিলে চলে যায় নৌকায়: মির্জা ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, পৌর নির্বাচনের সকল কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহারের একতরফা ব্যবস্থা নিয়ে

ডিজিটাল কারচুপির নতুন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে সরকার ও তার নির্বাচন ক‌মিশন। প্রোগ্রামিংয়ে কারসাজি করে নির্বাচনে পুর্বনির্ধা‌রিত ফলাফ‌লে তা‌দের (আওয়ামী লী‌গ) প্রার্থী‌কে তারা নির্বাচিত কর‌ছে। মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) দুপু‌রে কালিবাড়ী তাঁ‌তীপাড়াস্থ নিজ বাসভবনে এক সংবাদ

সম্মেলন তিনি এ সব কথা বলেন। ইভিএম‌কে ভোটার-বান্ধব কোন পদ্ধতি নয় ব‌লে উল্লেখ ক‌রে মির্জা ফখরুল ব‌লেন, প্রোগা‌মে ঠিক করা ধা‌নের শীষ, চলে যা‌বে নৌকায়। আবার ফাইনা‌লি ভা‌বে দেখা যায় ১০বার ভোট দেয়া হ‌লে সেখান থে‌কে ৮টা ভোটই চ‌লে যা‌বে ‌নৌকায়। ইভিএম এর যে বোতামই টিপা‌নো হোক না কেন ফলাফল কিন্তু আগের ঠিক করা স্থা‌নে যা‌বে। ইভিএম ও নির্বাচন ব্যবস্থার বিকল্প সম্প‌র্কে

ফখরুল ব‌লেন, আমরা চাই নিরপেক্ষ একজন নির্বাচন কমিশনার সেই সাথে ইভিএম বাতিল করে ব্যালে‌টের মাধ্যমে ভোট প্রদা‌ন। ইভিএম ব্যবহার নিশ্চয়ই ভোটারদের জন্য সহজ এবং বোধগম্য কোন পদ্ধতি নয়। আমাদের সহজ সরল ভোটারগণ ইভিএমের মতো জটিল প্রক্রিয়ায় অভ্যস্ত নয় এবং সেভাবে যথাযথ প্রশিক্ষনও পায়নি।

আওয়ামী লী‌গের কর্তৃত্ববাদী শাসন ও ক্ষমতা ধ‌রে রাখার জন্য আমলা‌দের তারা তু‌ষ্টি কর‌ছে। যার ফ‌লে রাজনীতিবিদরা পেছ‌নে চ‌লে যায়। আমলা‌দের উপর নির্ভরতা সে আয়ুব খান আমল থে‌কে শুরু ক‌রে এরশা‌দের আমল হ‌য়ে এসেছে এবং দুর্ভাগ্যবশত বর্তমান আওয়ামী লী‌গের আম‌লেও এমন‌টি হ‌চ্ছে। যে আওয়ামী লীগ নিজেদেরকে জনগণের দল

হিসেবে পরিচয় দেন। স্বাধীনতা যুদ্ধে নেতৃত্ব দেওয়ার কথা বলে দাবি করে সেই আওয়ামী লীগ আজ জনবিচ্ছিন্ন এবং লুটপা‌টের দলে পরিণত হয়েছে। প্রথম ধা‌পের পৌ নির্বাচন প্রস‌ঙ্গে বিএন‌পির মহাস‌চিব ব‌লেন, স্থানীয় সরকার কখনও কোন সরকার প‌রিবর্তন ক‌রে না। কিন্তু সেখা‌নেও তারা (আওয়ামী লীগ) শ‌ক্তি প্রয়োগ ক‌রে। বি‌শেষ ক‌রে আইনশৃঙ্খলা

বাহিনী ও ইলেকশন কমিশনারের যোগসাজশে তারা স্থানীয় সরকা‌রের আসন গু‌লো‌কে দখল ক‌রে নি‌য়ে গে‌ছে।

Categories
Uncategorized

বৃদ্ধা মাকে রাস্তায় রেখে গেলেন ছেলে!

বৃ’দ্ধা মায়ের ভরণ-পোষণের দায়িত্ব নিতে চান না তার তিন ছেলে। অবশেষে মাকে বাড়ি থেকে বের করে রাস্তায় ফে’লে দিলেন ছেলে ও

পুত্রবধূরা। বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত মা রাস্তায় পড়ে ছিলেন। খবর মেয়ে বৃ’দ্ধার মেয়ে ও নাতি ছুটে আসেন। কিন্তু তাদের অনুরোধেও মাকে ঘরে তুলছেন না ছেলেরা। বৃ’দ্ধার তিন ছেলে ও তাদের স্ত্রী কিছুতেই মাকে ঘরে তুলতে রাজি নন। অবশেষে বা’ধ্য হয়ে জাতীয় জরুরি সেবা

৯৯৯-এ ফোন করেন বৃ’দ্ধার নাতনি। পরে পুলিশ এসে এক ছেলের বাড়িতে আপাতত বৃ’দ্ধাকে রেখেছেন। এমন ঘটনা ঘটেছে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজে’লার সাদুল্যাপুর (দামপাড়া) গ্রামে। রোববার বিকেলে বৃ’দ্ধা সখিনা বেওয়াকে বাড়ি থেকে বের করে রাস্তার ফে’লে রাখা হয়। সখিনা ওই গ্রামের মৃ’ত আজগর আলীর স্ত্রী।সোমবার রাত পৌনে ১২ টার দিকে শিবগঞ্জ থানার পরিদর্শক হরিদাস মণ্ডল জানান,

বৃ’দ্ধা সখিনা বেওয়াকে আপাতত তার এক ছেলের বাড়িতে রাখা হয়েছে। পরে তার বি’ষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।