Categories
Uncategorized

সেহরিতে দু’ধের সর খেতে চাওয়ায় প্রা’ণটা’ই গেল গৃহব’ধূ সু’রাইয়ার

সেহেরিতে দুধের সর খাওয়া নিয়ে কথা কা’টাকা’টির জে’রে সুরাইয়া সুলতানা তমিসরা (২৪) নামে এক গৃহবধূকে শা’রী’রিক ‘নি”র্যা’ত’ন

করে ‘হ’ত্যা’র অ’ভিযো’গ উঠেছে তার স্বামী এবং শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বি’রু’দ্ধে। মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) ভোর রাতে রাজবাড়ী সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের চর শ্যামনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তমিসরা রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের বড় ভবানীপুর

গ্রামের দেওয়ান মো. রফিকুল ইসলামের মেয়ে। তার তাইবা নামে চার বছর বয়সী একটি মেয়ে সন্তান রয়েছে। এ ঘটনায় বুধবার (২১ এপ্রিল) দুপুরে রাজবাড়ী সদর থানায় একটি ‘হ”ত্যা’ মাম’লা দায়ের করেছেন ওই গৃহবধূর বড় ভাই দেওয়ান মো. সৌরভ। মাম’লার আ’সা’মিরা হলেন— তমিসরার স্বামী মশিউর রহমান মিটুল (৩৮), দেবর নাইম

মন্ডল (৩০), জা সাদিয়া বেগম (২৫), ভাসুর হাতেম মন্ডল (৪৫) ও শাশুড়ি সাহেরা বেগমসহ (৬৫) অ’জ্ঞা’তনামা তিন-চার জন। এ ব্যাপারে দেওয়ান মো. সৌরভ সারাবাংলাকে জানান, ২০১৪ সালে চর শ্যামনগর গ্রামের সাহা মন্ডলের ছেলে মশিউর রহমান মিটুলের স’ঙ্গে তার বোন সুরাইয়া সুলতানা তমিসরার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই মিটুল ও তার মা এবং ভাই-ভাবীরা যেকোনো সামান্য বিষয়

নিয়ে তার বোনের ওপর শা’রী’রিক ‘নি”র্যা’ত’ন চালাতেন। বিষয়গুলো তার বোন বাড়িতে এসে তাদের কাছে বলতেন। কিন্তু পরিবারের সদস্যরা সুরাইয়াকে ধৈ’র্য ধরার পরামর্শ দিতেন। সৌরভ জানান, মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) সকাল ৯টার দিকে মিটুল তার বাবার কাছে ফোন করে জানান, তার বোন নাকি ‘সু’ই’সা”ইড করেছেন। তারা দ্রুত মিটুলদের বাড়িতে গিয়ে দেখেন, সুরাইয়ার ম’রদে’হ

বা’রা’ন্দায় শু’ইয়ে রাখা হয়েছে। তার গ’লায় ‘ফাঁ”স নেওয়ার কোনো চি”হ্ন নেই। তার থুত’নিতে, নাকে, ঘাড়ে ও হাতে আ’ঘা”তের চিহ্ন দেখা গেছে বলে জানান সৌরভ। তিনি আরও বলেন, প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলে আমরা জানতে পেরেছি, সোমবার (১৯ এপ্রিল) দিবাগত রাতে সেহেরিতে দুধের সর খাওয়া নিয়ে আমার বোনের সঙ্গে তার

শাশুড়ি সাহেরা বেগমের কথা কা’টাকা’টি হয়। কথা কা’টাকা’টির বিষয়টি সাহেরা বেগম তার ছেলে মিটুল, নাইম, হাতেম ও ছেলের বউ সাদিয়াসহ পরিবারের অন্য লোকদের জানান। এক পর্যায়ে তারা সবাই মিলে আমার বোনকে ”হ”ত্যা”র প’রিক’ল্পনা করে। সৌরভের অ’ভিযো’গ, মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) ভোরে তার বোনের ওপর পা’শবি’ক শা’রী’রি’ক ‘নি”র্যা’ত’ন চালিয়ে তাকে ‘হ”ত্যা’ করা হয়। ‘হ”ত্যা’র ঘটনাটি ভিন্ন দিকে নেওয়ার জন্য ফাঁ’স নিয়ে ‘সু’ই’সা”ইডের

কথা প্রচার করা হয়। রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার জানান, মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) সকালে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। সে সময় গৃহবধূ তমিসরার স্বামী মিটুল ও শ্বাশুড়ি সাহেরা বেগমসহ পরিবারের লোকজন জানান, তমিসরা গ’লা’য় ‘ফাঁ”স নিয়ে ‘সু’ই’সা”ইড করেছেন। তবে পুলিশ সুরতহাল রি’পো’র্ট’ তৈরি করতে গিয়ে তমিসরার শরীরে ‘সু’ই’সা”ইড এর কোনো আ’লাম’ত দেখতে পায়নি বলে জানান ওসি স্বপন কুমার। তিনি বলেন, বরং তার শরীরের বিভিন্ন স্থা’নে আ”ঘা’তে’র চিহ্ন রয়েছে। এরপর আশপাশের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে, তমিসরাকে ”হ”ত্যা’ করা হয়েছে।

এ কারণেই তমিসরার স্বামী মিটুল, জা সাদিয়া, ভাসুর হাতেম ও শ্বাশুড়ি সাহেরা বেগমকে আ’ট’ক করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আ’সা হয়েছিল। জিজ্ঞাসাবাদে তাদের কথায় অ’সঙ্গ’তি পাওয়া গেছে। ওসি আরও জানান, গৃহবধূ তমিসরার ম’রদে’হ ময়’না’তদ”ন্ত শেষে বুধবার দুপুরে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় দায়ের করা ‘হ”ত্যা’ মা’ম”লা’য় আগে থেকেই থানা হাজতে আটক মিটুল, সাদিয়া, হাতেম ও সাহেরাকে গ্রে’ফ’তার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার আ’দাল’তে হাজির করা হবে। মামলার এজাহার নামীয় প’লা’ত’ক

আসা’মি নাইমসহ অ’জ্ঞা’তনামা আ’সা’মিদের গ্রে’ফতা’রে’র চেষ্টা চলছে বলেও জানান ওসি স্বপন কুমার মজুমদার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *