Categories
Uncategorized

যু’দ্ধবিরতির ১০ দিন যেতে না যেতেই ইসরায়েলে দূতাবাস খুলল আরব আমিরাত

;ফিলিস্তিনি প্রতিরো;ধ গোষ্ঠী; হামাসে;র সঙ্গে দখ;লদার ইসরা;য়েলি বাহি;নীর যু;দ্ধবি;রতি শুরুর মাত্র ১০ দিনের মাথায় তেল আবিবে দূতাবাস

খুলল সংযুক্ত আরব আমিরাত। গত রোববার আনুষ্ঠানিকভাবে ইসরায়েলে দূতাবাস চালু করেছে দেশটি। জানা যায়, গত ২৫ বছরের মধ্যে আরব বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করল আমিরাত। সবশেষ ১৯৯৬ সালে ইসরায়েলিদের সঙ্গে

আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পর্ক গড়েছিল জর্ডান। এরপর গত দুই যুগ ধরে আর কোনো আরব দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে সরাসরি সম্পর্ক করেনি, যদিও তাদের অনে;কে গোপ;নে বা পরো;ক্ষভাবে সম্পর্ক বজায় রেখেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। গত আগস্টে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণ চুক্তি সই করে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

এরপর চলতি বছরের শুরুতেই ইসরায়েলি রাজধানী তেল আবিবে দূতাবাস স্থাপনের আনুষ্ঠানিক অনুমোদন দেয় আমিরাতের মন্ত্রিসভা। গত ফেব্রুয়ারি;তে ইস;রায়ে;লে নিযুক্ত সংযুক্ত আরব আ;মিরাতের প্র;থম রাষ্ট্র;দূত হিসেবে শপথ নেন মোহাম্মদ মাহমুদ আল-খাজা। আবুধাবির কাসর আল ও;য়াতান প্রাসাদে; তাকে শ;পথবা;;ক্য পাঠ করান আমিরা;তের ভাইস-প্রেসিডেন্ট ও

দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল-মাকতুম। শপথ অনুষ্ঠানে রশিদ আল-মাকতুম রাষ্ট্রদূত খাজার উদ্দেশে বলেন, আপনাকে আমিরাত-ইসরায়েলের মধ্যে সম্পর্ক আরও গভীর;তর করার লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। এমনভা;বে কাজ হতে হবে যেন আ;মিরাত ও ইসরায়েলের মধ্যে শান্তি, সহা;বস্থান ও ধৈর্য্যে;র সংস্কৃ;তি আরও বিকশিত হয়।

আরব দেশগুলোর সঙ্গে দীর্ঘ;দিন ধরেই স;ম্পর্ক খারা;প ছিল ইসরায়ে;লের। এর মূল কারণ ফিলি;স্তিন ইস্যু। তবে ট্রাম্প প্রশাসনের তৎপরতায় সেই অবস্থান থেকে সরে গত বছর ইসরায়েলিদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে আমিরাত, বাহ;রাইন, মিসর, মরক্কোর মতো মুসলিম দেশগুলো। ইতোমধ্যে আবুধাবিতে দূতাবাস চালু করেছে ইসরায়েল। সেখানে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত হিসেবে কাজ শুরু করেছেন এইতান নায়েহ নামে এক

কূটনীতিক। সম্প্রতি অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ যোদ্ধাদের সঙ্গে দখলদার ইসরায়েলের ১১ দিনব্যাপী রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ হয়েছে। এসময় ইসরা;য়েলের যুদ্ধাপরাধ; বিষয়ে তদন্তের অনুমোদ;ন দিয়েছে জাতি;সংঘের মান;বাধিকার পরিষদ। অ্যা;মনেস্টি ইন্টারন্যা;শনালও যু;দ্ধা;পরাধে;র জন্য ইসরা;য়েলকে অ;ভিযুক্ত ক;রেছে। টানা ১১ দিনের ওই আ;গ্রাসনে; ইসরায়ে;লের হা;মলায় ফিলিস্তি;নে অন্তত ২৫৪ জ;ন প্রা;ণ হা;রি;য়েছেন, এ;দের মধ্যে ৬৬ শিশুও রয়েছে;। আহ;ত হয়েছেন

প্রা;;য় দুই হাজার বেসাম;রিক মানুষ। আর; ফিলি;স্তিনিদের পা;ল্টা ;হাম;লায় ই;সরায়েলে মা;রা গেছেন ১২ জন।

সূত্র: পার্স টুডে, ওয়াম, আল জাজিরা

Categories
Uncategorized

মুনিয়ার মৃ’ত্যু: তদন্ত প্রতিবেদন জ’মা দেয়নি পুলিশ

রাজধানীর গুলশানে কলেজছাত্রী মো;সারাত জাহান মুনি;য়ার মৃ;ত্যু;র ঘ;টনায় বসুন্ধ;রা গ্রু;পের ব্যব;স্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান

আনভীর ;বিরু;দ্ধে করা;; মামলা;র; তদন্ত ;প্রতিবেদন জ;মা ;দেয়;নি পুলিশ। সোমবার আ;দালতে তদ;ন্ত প্রতি;বেদন দেয়ার; কথা ছিল। তবে আ;দাল;তের কা;ছে সময় ;চেয়েছে; মা;ম;লার ;তদ;ন্ত কর্ম;কর্তা গুল;শান বিভা;গের উপ-;কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী।

সম্প্র;তি গুল;শান থানার ও;সি আবুল হাসান বলেন, তদন্ত প্র;তিবেদন ;শেষ করতে হলে ময়;নাত;দ;ন্তের প্রতি;বেদন লাগবে। কিন্তু সে; প্রতিবে;দন আম;রা এখনও পাই;নি। তাই নির্ধা;রিত দিনে প্রতি;বেদন জ;মা দেয়া সম্ভ;ব হবে না। আমরা ওই দিন আ;দালতকে বিষয়;টি জানা;বো। হয়তো নিয়মা;নুযায়ী আদা;লত আ;রো সময় বাড়াবেন।

গত ২৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশান-২ এর ১২০ নম্বর স;ড়কের ১৯ নম্বর ভবনের ৩/বি ফ্ল্যা;টে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুল;ন্ত অবস্থায় মুনিয়ার ম;র;দেহ উ;দ্ধার করে গুল;শান থা;না-পুলিশ। এ ঘটনায় আ;ত্মহত্যা;র প্ররো;চনা দেয়ার অভি;যোগ এনে বসুন্ধ;রা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক; (এমপি) সায়েম সোবহান আনভী;রের বিরু;দ্ধে মা;মলা ;দায়ের করেন

মৃ;তের বড় বোন নুসরাত জাহান। মাম;লা;র অভি;যোগে বলা হয়েছে, সায়ে;ম সো;বহানের স;ঙ্গে প্রে;মের স;ম্পর্ক ছিল মুনি;য়ার। প্র;তি মাসে এক লাখ টাকা ভাড়ার বিনি;ময়ে ;মু;নিয়াকে ওই ফ্ল্যা;টে রেখেছি;ল সা;য়েম সো;বহান আনভীর। তিনি নিয়;মিত ওই বাসায় যাতা;ত করতো। তারা ;স্বামী-স্ত্রীর মতো করে থাকতো।

মুনি;য়ার ব;ড় বোন অ;ভিযোগ করেছেন, তার বোন;কে বিয়ে;র কথা বলে ওই ফ্ল্যা;টে রেখে;ছিল। একটি ছবি ফেসবু;কে দেয়াকে কে;ন্দ্র করে আন;ভীর তার বোনের ওপর ক্ষিপ্ত হয়। তাদের মনে হচ্ছে, মু;নিয়া আ;ত্মহ;ত্যা করেনি। তাকে হ;ত্যা করা হয়ে থাক;তে পারে। এ মাম;লায় গত ২৭ এপ্রিল ঢাকা মেট্রোপ;লিটন ম্যাজিস্ট্রে;ট আবু সুফিয়ান মো. নো;মানের

আদাল;ত এজা;হার গ্রহণ করে আজ পুলি;শের ত;দন্ত ;প্রতিবেদন; দাখিলের দিন ধার্য ছিল। সূত্রঃ সময়টিভি

Categories
Uncategorized

প্রতিমাসে ৫০০০ টাকা দেয়ার দাবি জানিয়ে ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের বিক্ষোভ মিছিল

বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার দাবিতে নোয়াখালীর ভাসানচরে বি’ক্ষো’ভ করেছেন রোহি’ঙ্গারা। আজ সোমবার (৩১ মে) বেলা ১১টার দিকে তারা এই

বি;ক্ষো’ভ করেন। ভাসানচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাহে আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার দাবি জানিয়ে রোহিঙ্গারা এই বিক্ষো’ভ করেন। আজ সকালে ইউএনএইচসিআর’র ১৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের সফরকালে রোহি’ঙ্গাদের

বিভিন্ন খোঁজখবর নিতে গেলে রেশনসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা বৃ’দ্ধির দাবিতে বিক্ষো’ভ মিছিল করে স্থানীয় রোহি’ঙ্গারা। এ সময় রোহিঙ্গারা বি’ক্ষো’ভ মিছিলে তাদের প্রতিমাসে ৫০০০ টাকা করে দেওয়ার কথা থাকলেও তা দেওয়া হচ্ছে না বলে জানান তারা। এছাড়া নিম্মমানের রেশন, নিম্নমানের খাবার, কর্মসংস্থানের অভাব ও পর্যাপ্ত চিকিৎসা ব্যবস্থা না থাকায় এই বিক্ষো’ভ মিছিল করেন তারা।

এ বিষয়ে ভাসা;নচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহে আলম সাথে কথা বললে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

Categories
Uncategorized

চালু হলো আকর্ষণীয় রেস্টুরেন্ট ‘প্রজেক্ট হিলশা’

জেনেনিন রেস্টুরেন্টটি সম্পর্কে বিস্তারিত …মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার পশ্চিম শিমুলিয়ায় সম্প্রতি উদ্বোধন হয়েছে কাঁচ, স্টিল ও কংক্রিটের

বিশাল আকৃতির ইলিশের নকশায় নির্মিত রেস্টুরেন্ট প্রজেক্ট ‘হিলশা’। অনিন্দ্য সুন্দর নকশার এই রেস্টুরেন্টে উদ্বোধনের পর থেকেই ভিড় উপচে পড়ছে। কর্পোরেট প্লেটে ইলিশের হিলশা হয়ে উঠার পরই বেশ চড়া দাম দিতে হচ্ছে। সঙ্গে আছে ১৫ শতাংশ ভ্যাট ও ১০ শতাংশ

সার্ভিস চার্জ। পানিখোলা ইলিশ, ভাপা ইলিশ, সর্ষে ইলিশ, ইলিশ ভাজা, ইলিশের ডিম ভাজি, ডিম ভর্তা, ল্যাজ ভর্তাসহ ইলিশ মাছেরই প্রায় ২৫ রকমের রেসিপি নিয়ে যাত্রা শুরু করেছে রেস্টুরেন্ট প্রজেক্ট হিলশা। এ ছাড়াও থাই, চীনা ও ভারতীয় খাবারসহ স্টেক ও বিভিন্ন ড্রিংকস পাওয়া যাবে। এখানে স্বচ্ছ ফ্রিজারে থরে থরে ইলিশ সাজানো থাকে।

সেখান থেকে আস্ত ইলিশ কেনা যাবে। অথবা চারশ’ টাকায় দুই পিস নেওয়া যাবে। প্রতিদিন ইলিশের দাম নির্ধারণ করা হয়। সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বিশাল আকৃতির এই রেস্টুরেন্টে ৩০০ আসন রয়েছে। রয়েছে কার পার্কিং এলাকা। বাচ্চাদের জন্য খেলার স্পেস। সকলে সুন্দর পরিবেশের প্রশংসা করলেও খাবারের চড়া দামের ব্যাপারে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তবুও খাওয়ার জন্য

আসন পেতে কখনও কখনও অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে। পদ্মা সেতুর সর্বশেষ স্প্যান বসানোর পর থেকেই সেতু এলাকা এবং রাজধানী ঢাকা ও আশপাশের জেলা থেকে প্রচুর পর্যটকেরা আসছেন। এতদিন তারা ঘাট এলাকার সাধারণ মানের হোটেলে ইলিশের বিভিন্ন রেসিপির স্বাদ নিয়েছেন। তবে এবার অনেকে ঢুঁ মারছেন নব্য উদ্বোধন করা প্রজেক্ট হিলশাতে।

উদ্বোধনের পরেই এত ভিড় পড়বে তা রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষও অনুমান করতে পারেনি। তাই সেবা নিয়ে বেশিরভাগ গ্রাহকদেরই অভিযোগ আছে। রেস্টুরেন্টে পরিবার নিয়ে খেতে আসা মাকসুদুল হক রুমি বলেন, ‘পরিবেশটা অসাধারণ, কিন্তু সেবা ভালো না। আমি অ’ভিযোগ করায় ওরা অনুরোধ করে ওদেরকে একটু সময় দিতে কারণ; মাত্র দু’দিন আগে চালু হয়েছে। সফটওয়্যার এখনও আসেনি এবং শুরুতেই এতটা ভিড় হবে

ওরা আশা করেনি। তবে রেস্টুরেন্টের লোকজনদের প্রফেশনাল মনে হয়েছে। আশাকরি কিছু দিনের মধ্যে সব সমস্যা দূর হবে।’ খাবারের স্বাদ ভালো ছিলো জানিয়ে তিনি বলেন, ‘দাম ঢাকার আর দশটি পশ রেস্তোরাঁর মতোই। সাধারণ হোটেলে যা ২০০ টাকা সেটা ওরা রাখে ৩০০ টাকা।’ মুন্সীগঞ্জের টংগিবাড়ীর সরকারি বিটি কলেজের শিক্ষক মেহেদী

হাসান বন্ধুদের নিয়ে খেতে এসেছেন। তিনি বলেন, ‘ভ্যাট ও সার্ভিস চার্জসহ ২৫ শতাংশ খাবারের বিলের সঙ্গে যুক্ত হয়। এমনিতেও ইলিশের দামটা বেশি ধরেছে। পদ্মা সেতুর কারণে এই এলাকায় পর্যটকেরা আসতে শুরু করেছে। অভিজাত শ্রেণীর গ্রাহকেরা এই রেস্টুরেন্টে আসবে।’ মুন্সীগঞ্জ নিবাসী ফারহানা হক রিয়া বলেন, ‘বাচ্চাদের নিয়ে নতুন এই রেস্টুরেন্টে খেতে এসেছিলাম। কিন্তু ভিড়ের কারণে না খেয়েই ফিরে যাচ্ছি। সুন্দর একটা রেস্টুরেন্ট করেছে।

ভিড় কমলে এমন পরিবেশে বসে খেতে ভালো লাগবে।’ ২১৫ ফুট দৈর্ঘ্যের ইলিশ মাছের আকৃতির এই রেস্টুরেন্টটি দেড় একর জমির উপর নির্মিত। কর্তৃপক্ষের দাবি, ইলিশের ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্য এই রেস্টুরেন্ট করা হয়েছে। সবসময়ই এখানে ইলিশের ঐতিহ্যবাহী খাবার পরিবেশন করা হবে এদিকে ১৫ শতাংশ ভ্যাট ও ১০ শতাংশ সার্ভিস চার্জের ব্যাপারে রেস্টুরেন্টের সহকারী ব্যবস্থাপক নিশাত জানান, ‘ভ্যাট সরকারের নির্ধারণ করে দেওয়া। সেটা কমানোর এখতিয়ার আমাদের নেই।

আর আমরাতো এসি বা চেয়ার টেবিলের দাম নিচ্ছি না। সার্ভিস চার্জের ব্যাপারে কেউ অপারগতা দেখালে আমরা তাদের যথেষ্ট ছাড় দিচ্ছি।’ এই রেস্টুরেন্টের কারণে এই এলাকায় ৮০ শতাংশ পর্যটকের বৃদ্ধি হবে বলে দাবি করেন তিনি। এদিকে, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মুন্সীগঞ্জ কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আসিফ আল আজাদ জানান, সরকারের নির্ধারণ করা ১৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হবে। তবে খেয়াল রাখতে হবে একই পণ্যের উপর যেনও দুইবার ভ্যাট আরোপিত না হয়। আর ভোক্তা অধিকার আইনে

সার্ভিস চার্জের ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু নেই। যার কারণে অনেক অভিজাত রেস্টুরেন্ট সার্ভিস চার্জ আদায় করে।

Categories
Uncategorized

পরিশ্রম করে পেয়েছেন ‘চেয়ার’, তাই ওনাকে ডাকতে হবে ‘স্যার’

মাদারীপুর জেলার শি;বচর উ;পজেলা কৃষি সম্প্র;সারণ কর্মক;র্তা অনিরু;দ্ধ দাশকে এক সাং;দিক স্যা;র না ডেকে ভাই বলে সম্বোধন করায়

আপ;;;ত্তি তুলেন তিনি। এসময় পরিশ্রম করে ‘এই চেয়ার’ পাওয়ায় তাকে স্যার বলে ডাকতে হবে জানান তিনি। রোববার (৩০ মে) দুপুরে শিবচর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসে কৃষি বিষয়ক তথ্য জানতে গিয়ে রফিকুল ইসলাম নামের স্থানীয় এক সাংবাদিক তাকে ভাই ডেকে এ

বিব্রতকর অবস্থার সম্মুখীন হন। তথ্য সংগ্রহ করতে যাওয়া ওই সাংবাদিক জানান,রোববার দুপুর সাড়ে ১২টায় শিবচরে বোরো ধানচাষের আবাদ সম্পর্কে তথ্য আনতে তিনি কৃষি সম্প্রসারণ অফিসে যান। এসময় কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তার কক্ষে ঢুকে তাকে ভাই বলে ডাকলে ক্ষুব্ধ হন তিনি। ওই সময় কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অনিরুদ্ধ বলেন,

‘আপনাদের ভাই বলে ডাকার রেওয়াজ আর গেল না। আপনি জানেন এই চেয়ারে বসতে আমাদের কত কষ্ট করতে হয়েছে?’ এরপর ওই সাংবাদিকের সঙ্গে কোনো কথা না বলে তাকে বসিয়ে রাখেন তিনি। সাত-আট মিনিট পর তথ্যের জন্য অফিস সহকারীর সঙ্গে দেখা করতে বলেন তাকে। সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমি কোনো ব্যক্তিগত কাজে যাইনি সেখানে।

সংবাদের তথ্য সংগ্রহের জন্য গিয়েছি। তাকে ভাই ডাকায় তথ্য দেয়ার পরিবর্তে তিনি ক্ষোভ ঝাড়েন আমার ওপর। শিবচর উপজেলায় কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অনিরুদ্ধ দাশ বলেন, ‘স্যার বলা ভদ্রতার অংশ। ভদ্রতা না করলে তাকে কী এটি নিয়ে কিছু বলা যাবে না? এছাড়া তার কাজ তো করে

দিয়েছি। এটা নিয়ে আবার কী হলো?’ এসময় ভাই বলা অভদ্রতা কি-না এমন প্রশ্ন করায় ফোন রেখে দেন তিনি। মাদারীপুর জেলা
কৃষি সম্প্রসারন অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘এটি নিয়ে কথা শোনানোর তো কিছু নেই।

যাই হোক কিছু মনে করবেন না। আমি তাকে বলে দেব, ভবিষ্যতে যেন এমন না করে’। সূত্রঃ জাগোনিউজ

Categories
Uncategorized

মিসরে বৈঠকে বসছেন হামাস প্রধান ও ইসরায়েলি পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্য;কায় টানা ১১ দিন তা;ণ্ড;ব চালানো;র পর যু;দ্ধবি;রতিতে স;ম্মত হয় দ;খলদার ই;সরায়েলি বাহিনী। গাজা;র

ই;সলামী প্রতি;রোধ আন্দো;লন হামাস ;ও ইসরায়েলি বাহি;নীর ম;ধ্যে এ যু;দ্ধবি;রতিতে ম;ধ্যস্থতা করে মিসর। এবার হামাস ও ইসরা;য়েলের মধ্যে ;যুদ্ধ;বিরতি আরও সং;হত করে গাজা, পশ্চিম জেরুজালেম, আল-আকসা, শেখ জাররাহ এলাকায় স্থায়ী শান্তি ফেরাতে বৈঠকের

আয়োজন করেছে দেশটি। খবর আল-জাজিরার। মিসরের রাজধানী কায়রোতে আয়োজিত এ বৈঠকে হামাস প্রধান ইসমাইল হানিয়াহ ও ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গাবি আশকেনাজি অংশ নেবেন। তবে কবে, কোথায় ত্রি-পাক্ষিক এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে তা জানায়নি মিসর। তবে হামাস ও ইসরায়েলি নেতাদের বৈঠক ঘিরে কায়রোজুড়ে কঠোর

নিরাপত্তাবলয় গড়ে তোলা হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, রোববার (৩০ মে) কায়রো পৌঁছেছেন ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গাবি আশকেনাজি। সেখানে গিয়েই তিনি উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে টুইটও করেছেন।
টুইট বার্তায় ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লেখেন, প্রায় ১৩ বছর পর কায়রো সফরে এসেছি। সফরে

মিসরের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে আমরা হা;মাসের সঙ্গে স্থায়ী যু;দ্ধবিরতি ও গাজা পুনর্নির্মাণে সহযোগিতার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করব। পাশাপাশি হামাসের জিম্মায় থাকায় ইসরায়ে;লি বন্দিদের মু;ক্তির ব্যাপা;রেও আলোচনা হবে। মিসরের পররাষ্ট্রমন্তী সামে শৌকরি জানিয়েছেন, পশ্চিম জেরুজালেম, পবিত্র আল-আকসা মসজিদসহ

ওই এলাকায় অবস্থিত সকল ধর্মীয় স্থাপনার বিষয়টি মাথায় রেখে মিসর দুই পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করছে। সেখানে শান্তি ফেরাতে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে কায়রো। তিনি বলেন, হামাস ও ইসরায়ে;লের মধ্যে যু;দ্ধবিরতি স্থায়ী ক;রতে ডাকা বৈঠকে ;আসা সব অতিথিদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে সর্বোচ্চ সতর্ক রয়েছে মিসর। বিষয়টি দেখভাল করতে মিসরের

প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ দেশের গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান আব্বাস কামেলকে তদার;কির দায়িত্ব দিয়েছেন। হামাস ও ইসরায়েলের যুদ্ধবিরতি নিয়ে আলোচনার বৈঠ;কেও উপস্থি;ত থাকবেন মিসরের গোয়েন্দা প্রধান আব্বাস কামেল। এর আগে রোববার (৩০ মে) গাজায় হামাসের সঙ্গে যুদ্ধবিরতি আরও দৃঢ়

করতে বৈঠক করেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু ও মিসরের গোয়েন্দা প্রধান আব্বাস কামেল।

Categories
Uncategorized

কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বর্ণপদক পেলেন বাংলাদেশি কোরআনে হাফেজ

কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক শ্রেণিতে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী মুহাম্মদ আবু তালেব প্রথম স্থান অধিকার করে স্বর্ণপদক পেয়েছেন। গতকাল রোববার

(৩০ মে) বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৩তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে তাঁকে এ সম্মাননা প্রদান করেন কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে ১০৯ জন কৃতি শিক্ষার্থীর হাতে স্বর্ণপদক তুলে দেন কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি।

এছাড়াও বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষা সমাপনকারী ৭৩৩ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে শিক্ষা সনদ প্রদান করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রাশিদ আল দিরহাম। কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি ছাড়াও সমাবর্তন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কাতারের প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ খালেদ বিন খালিফা বিন আবদুল আজিজ আল থানিসহ

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রাশিদ আল দিরহাম ও সিন্ডিকেট কমিটির সদস্যরা। মুহাম্মদ আবু তালেবের বাড়ি চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজীর উত্তর মাদার্শা গ্রামে। চট্টগ্রাম শহরের ঐতিহ্যবাহী ইসলামী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জামিয়া দারুল মাআরিফ আল-ইসলামিয়ায় তিনি পড়াশোনা করেন। এখানে তিনি পবিত্র কোরআন হিফজ সম্পন্ন করে কুল্লিয়া প্রথম বর্ষ (মিশকাত)

পর্যন্ত দীর্ঘ ১০ বছর অধ্যয়ন করেন। ২০১১ সালে কাতারের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অধীনে মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষাবৃত্তি নিয়ে তিনি উচ্চশিক্ষা অর্জনে কাতার যান। ২০১৪ সালে উচ্চমাধ্যমিক স্তরে প্রথম স্থান অধিকার করেন তিনি। ২০১৯ সালে কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের শরিআহ ও ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে স্নাতক শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করেন।

বর্তমানে তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিকাহ ও উসুলে ফিকাহ বিভাগে অধ্যয়ন করছেন। ২০১৬ সালে কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে প্রথমবারের মতো ইমাম ও খতিব হিসেবে নিয়োগ পান। গত বছর পুনরায় ইমাম ও খতিব হিসেবে নিয়োগ পেয়ে সুনামের সঙ্গে এ দায়িত্ব পালন করছেন। মোহাম্মদ আবু তালেব এর সাফল্যের খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে প্রশংসার জোয়ারে ভাসছে বাংলাদেশি

এই শিক্ষার্থী। বাংলাদেশ কমিউনিটির বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন যোগাযোগ মাধ্যমে।

Categories
Uncategorized

এবার প্রবাসীদের জন্য যে সুবিধা দিলো-বাংলাদেশ সরকার !!

প্রবাসী কর্মীদের বিভিন্ন সমস্যা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সমাধানের লক্ষ্যে একটি ‘কুইক রেসপন্স টিম’ গঠন করেছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক

কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীন ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড। শনিবার রাতে যুগান্তরকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের উপ-পরিচালক ও কুইক রেসপন্স টিমের সদস্য মো. জাহিদ আনোয়ার। ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক (ডিজি) মো. হামিদুর

রহমান স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে বলা হয়, বিভিন্ন সময়ে এবং বৈশ্বিক করোনা মহামারির কারণে বিদেশ গমনেচ্ছু, কর্মরত ও প্রত্যাগত কর্মীরা নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। এ ছাড়া দেশে অবস্থানকালীন সময়েও তারা ভিসা সংক্রান্ত ও অন্যান্য জটিলতার মুখোমুখি হচ্ছেন।
এ জন্য ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের পরিচালক আরিফ

আহমেদ খানকে আহ্বায়ক করে সাত সদস্যবিশিষ্ট ‘কুইক রেসপন্স টিম’ গঠন করা হয়েছে। এই টিম প্রবাসীদের যে কোনো সমস্যার উদ্ভূত পরিস্থিতি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সমাধানের লক্ষ্যে কাজ করবে বলে আদেশে উল্লেখ করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব মো. সারওয়ার আলম,

বিএমইটির ঊর্ধ্বতন পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মো. মাসুদ রানা, ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের উপ-পরিচালক মো. জাহিদ আনোয়ার, সহকারী পরিচালক মো. আজিজুল ইসলাম ভুঞা, উপসহকারী

পরিচালক মো. আবদুল কাদের, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

Categories
Uncategorized

দুই ভাই মিলে ২৫ লাখ টাকায় জমি বিক্রি করলেন- গরিবদের খাওয়ানোর জন্য!!

দুই ভাই। নাম তাজাম্মুল পাশা ও মুজাম্মিল পাশা। বাড়ি দক্ষিণ ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের কোলার জেলায়। পেশায় ছোটখাটো ব্যবসায়ী।

দেশজুড়ে লকডাউনের মধ্যে যেসব দরিদ্র মানুষ না খেয়ে রয়েছেন, তাদের অবস্থা দেখে ২৫ লাখ রুপিতে নিজেদের জমি বিক্রি করে সেসব মানুষের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছেন তারা। ভারতীয় টেলিভিশন এনডিটিভি এ নিয়ে একটি অনলাইন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হচ্ছে,

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে কোলার জেলার যেসব দিনমজুর ও তাদের পরিবারে না খেয়ে দিনযাপন করছেন তাদের এমন অবস্থা দেখে
তারা নিজেদের জমি বিক্রি করে তাদের সাহায্য করবেন বলে সিদ্ধান্ত নেন। দুই ভাই বলছেন, বিপুল সংখ্যক গরিব মানুষ লকডাউনের কারণে না খেয়ে রয়েছেন। তাদের অবস্থা শোচনীয়। কিন্তু এত মানুষকে

খাবার দিতে হলে অনেক অর্থ প্রয়োজন। তাই তারা জমি বিক্রির সিদ্ধান্ত নেন। জমি বিক্রির সেই অর্থ দিয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কিনে
দেওয়া ছাড়াও বাড়িতে খাবার রান্না করে মানুষকে খাওয়াচ্ছেন তারা। তাজাম্মুল পাশা ও মুজাম্মিল পাশা জমি বিক্রির পর নিজেদের বাড়িতে তাবু টানিয়ে একটা রান্নাঘর তৈরি করেন। সেখানে সবাই মিলে রান্না করেন। সেই খাবার দেওয়া হয়

দিনমজুর ও গৃহহীন মানুষ তাদের পরিবারকে। তাদের এমন মহৎ উদ্যোগ প্রশংসিত হচ্ছে, এছাড়া দুবেলা দুুমুঠো খাবার পাচ্ছেন অসংখ্য অসহায় মানুষ। এনডিটিভির প্রতিবেদন অনুযায়ী বড় ভাই তাজাম্মুল পাশা আবেগ আপ্লুত চোখে কণ্ঠে বলেন, ‘অনেক আগেই আমাদের বাবা-মা মারা গেছে। তারপর থেকে আমরা কোলারে নানি বাড়িতে বড় হয়েছি।

ওই সময় ধর্মীয় দিক বিবেচনা না করে হিন্দু, মুসলিম, শিখ সব ধর্মের মানুষ আমাদের সাহায্য করেছি।’ তারা দুই ভাই এখন বাণিজ্যিকভাবে কলা চাষাবাদ করে। যখন তাদের বাবা-মা মারা যায় তখন তাজাম্মুলের বয়স পাঁচ আর মুজাম্মিলের মাত্র তিন। তারপর তারা চিকবালাপুর থেকে কোলারে নানির বাড়িতে চলে আসেন। এরপর সেখানেই বড় হয়েছেন তারা।

তাজাম্মুল বলেন, ‘আমরা অভাব-অনটনের মধ্য দিয়ে বড় হয়েছি। এখানকার সব ধর্মের মানুষের সাহায্যের মাধ্যমেই আমরা বেঁচে ছিলাম। তাই আমরা এ দুঃসময়ে অসহায় এসব মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেই। আমাদের এক বন্ধুর কাছে জমি বিক্রি করি। তারপর সেই অর্থ দিয়ে আমরা মানুষকে দুমুঠো খাবার দেওয়ার চেষ্টা করছি। তবে লকডাউন চলার কারণে আইন অনুযায়ী তারা জমি বিক্রি করতে পারেননি। তাই বন্ড

সইয়ের মাধ্যমে বন্ধুর কাছ থেকে এই অর্থ নিয়েছেন। লকডাউন শেষ হওয়ার পর ভূমি নিবন্ধন অফিস খোলার পর আনুষ্ঠানিকভাবে তারা ওই জমি ক্রেতাকে দলিল করে দেবেন। এখন পর্যন্ত ওই দুই ভাই ৩ হাজারের বেশি পরিবারকে চাল, ডাল, তেল ও চিনিসহ আরও অনেক নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য দিয়েছেন। এছাড়া মহামারি করোনার বিস্তার ঠেকাতে গরিব মানুষদের

সাবান ও মাস্কও সরবরাহ করেছেন তারা। সাহায্য পাওয়া পরিবারগুলো ওই দুই ভাইয়ের প্রতি তাদের কৃতজ্ঞতার কথা জানিয়েছেন।প্রসঙ্গত, ভারতে গত ২৫ মার্চ থেকে লকডাউন চলছে, যার মেয়াদ শেষ হবে আগামী ৩ মে। তবে এটা আরও বাড়তে পারে। ইতোমধ্যে দেশটিতে প্রায় ২৫ হাজার আক্রান্তের মধ্যে ৭৭৫ জন মারা গেছে। কিন্তু এক মাসের বেশি

সময় দেশজুড়ে লকডাউনের কারণে কোটি কোটি দিনমজুর ও গরিব মানুষ চরম দুর্দশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন।

Categories
Uncategorized

সংযুক্ত আরব আমিরাতে চাকরি হারিয়ে ব্রিজ থেকে লাফিয়ে প্রবাসী রেমিট্যান্স যোদ্ধার করুন মৃ , ; ত্যু।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে ৪২ বছর বয়সী এক এশিয়ান প্রবাসী রেমিট্যান্স যোদ্ধা তার স্ত্রীর সামনে আজমানের আল রাওদা ব্রিজ থেকে লাফিয়ে

জী;বন শেষ করে দিলেন। বৃহস্পতিবার রাতে এই মর্মা’ন্তি’ক ঘটনাটি ঘটেছে । পুলিশের অপারেশন রুমে স্ত্রীর পাশাপাশি থাকা জনসাধারণের কিছু সদস্যের কাছ থেকে একটি কল পেয়ে অফিসারদের একটি দল ঘট’না’স্থলে ছুটে এসেছিল, তবে দু’র্ভাগ্য’ক্রমে, লোকটিকে বাঁচাতে

পারেনি। তদ’ন্ত চলাকালীন, ভুক্তভোগীর স্ত্রী পুলিশকে জানিয়েছেন যে তার স্বামী কোভিড -১৯ এ আক্রান্ত ছিলেন। এটি ছিল তাঁর করেন্টিনের পঞ্চম দিন এবং তিনি পৃথক ছিলেন। তার স্বামী একটি বেসরকারী সংস্থায় চাকরি করতেন স্ত্রী বলেছিলেন যে লোকটি কোভিড -১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার কারনে চাকরি হারাতে বসেছে । তার স্ত্রি বাইরে বের

হতে নিষেধ করা সত্ত্বেও তার পরামর্শ উপেক্ষা করে বেরিয়ে এসেছিল । এরপরে তারা তাদের গাড়িতে উঠে গাড়ি চালিয়ে আল রাউদা ব্রিজের উপরে গাড়ি থামালেন, গাড়ি থেকে নেমে বিদায় জানালেন এবং তাকে বাচ্চাদের যত্ন নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে সেতুর উপর থেকে লাফিয়ে পরেন ।তিনি তত্ক্ষণাত মা; রা যান এবং তার ম; রদেহ জাতীয় অ্যাম্বুলেন্সে

করে হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে। । আল হামিদিয়া থানার প্রধান লেফটেন্যান্ট কর্নেল ইয়াহিয়া খালাফ আল মাতরুশি বলেছেন যে প্রত্যক্ষদর্শীরা এই ঘটনাটি জানাতে আজমান পুলিশ অপারেশন রুমে যোগাযোগ করেছিল। তিনি পুলিশকে বলেছিলেন যে এই অসুস্থতা তাকে মা; রাত্মক উদ্বেগ দেখা দিয়েছে । তিনি মৃ, ; ত্যুর কথা চিন্তা করতেন এবং আশঙ্কা করতেন যে তিনি

পৃথকীকরণের কারণে চাকরিটি হারাবেন। তিনি আশঙ্কাও করেছিলেন যে এটি তার আর্থিক পরিস্থিতির উপর প্রভাব ফেলবে।