Categories
Uncategorized

পরিকে … করতে যাবে কেন, নাসির ভাই চাইলে হাজার হাজার পরি যখন তখন নিতে পারে- হেলেনা

হেলেনা জাহাঙ্গির অনলাইনে বেশ পরিচিত এক নাম। প্রথম’দিকে প্রবাসীদের নিয়ে বেশ কাজ করে গড়ে নিয়েছেন ফ্যান ফলোয়ার তবে সেইসব

ফ্যান ফলোয়ার মনে আগের মত ভাবাসার জায়গা ধরে রাখতে পারেননি বেশ কিছু বিতর্কের সৃষ্টি করার পর থেকে। গত একবছর আগেও যেখানে তিনির কোন পোস্টে ৯৯% পজেটিভ কমেন্ট আসতো এখন তার বিপরীত। গত দুইদিন আগে পরিমনী ইস্যু নিয়ে একটা পোস্ট করেন

তার পর আজ তিনির নিজস্ব পরিচালনাধীন অনলাইন মিডিয়ায় এক সাক্ষাত প্রচার করেন যা ২১ মিনিটের। পুরো ভিডিও জুড়ে পরিমনীর
অ’ভিযুক্ত নাসিরের পক্ষ নিয়ে অনেক যুক্তি তুলে ধরেন তার কিছু তুলে ধরছি তিনি বলেন নাসির সাহেব যিনি তিনি কিন্থু ৫ বার নির্বাচিত প্রে’সিডেন্ট হচ্ছেন উত্তরা ক্লাবের। আমি যত ক্লাবের

মেম্বার নাসির ভাই সেইসব ক্লাবের মেম্বার, নাসির ভাই আমার বাসায় এসেছেন দাওয়াত খেয়েছেন। হেলেনা বলেন পরিমনি ইস্যুতে সব মিডিয়া এত কটা কেমেরা কেন ? বাংলাদেশে কি অন্য কোন ঘটনা নেই? ঘটছেনা? একজন হুজুরকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা সেইদিকে কেউ নেই কেন? পরিমনিকে কি কেউ মে’রে ফে’লেছে ? ধ… করেছে । আমি পরিমনীকে আগে চিনতাম

না এখন চিনি তবে আগে নাম শুনেছি। রাত ১২টার সময় তারা কেন যাবে ক্লাবে, নাসির উদ্দিন কেন পরির মত মেয়েকে ধ… ন করতে যাবে উনার (নাসির) পরির মত মেয়ে লাগেনা হাজার হাজার পরি উনার হাতে আছে, উনি চাইলে হাজার হাজার পরি যখন তখন নিতে পারে।
আমি তো মধ্যবিত্ত না উচ্ছবিত্ত ফেমেলির উচ্চবিত্তদের সাথে চলি জানি।

আমার কথা হচ্ছে তুমরা মিডিয়া কেন প্রশ্ন ক’রোনা রাত ১২টার পর কেন চলাফেরা করবে কেন প্রশ্ন করেনা। পরিমনীর নতুন এসেছে সে কিভাবে সাড়ে তিনকোটি টাকার গাড়িতে চলাফেরা করে, তার বাসার একেকটা সোফা লাখ টাকার উপরে। সে সপ্তাহে দুবাই যায় আমি দুদকের কাছে অনুরুধ করব সে এত টাকা কিভাবে পায় তা ত’দন্ত করা হোক। বিস্তারিত ভিডিও লিংক দেয়া

আছে দেখে নিবেন। ভিডিও পোস্টের পর একজন কমেন্ট করেনঃ দেশে মিডিয়া কত নিরীহ লোককে দুষি বানিয়েছে আবার কত দো’ষীকে নির্দোষ বানিয়েছে কোনদিন দেখিনি হেলেনাকে কথা বলতে তবে নাসির এর হয়ে কেন এত কথা বলতে যাচ্ছেন দালালি বাদ দেন। অন্য একজন কমেন্ট করেনঃ তিইওতো একটা মেয়ে। তুই মেয়ে হয়ে বোড ক্লাবের মেম্বার কি

করে হলি? তুইও কেমন মেয়ে দেশের লোকেরা ভালে করে জানে। তুইও পাপিয়ার ছোট বোন। অন্য একজন কমেন্ট করেন তুমি কোই থাকো মনে হয় এই মাত্র সিংঙ্গাপুর থেকে নামলে নইলে এই আজকেই জন্মো নিলে তাই তুমি পরিমনিকে চিনো না সব ফালতু মানুষ জন কোথাকার। এরখম বেশিরভাগ কমেন্ট ই নেগেটিভ

হেলেনার বিপক্ষে করতে দেখা যায়। অনেক কমেন্ট তুলে ধরা সম্ভব হয়নি ফেসবুক ভাইলেন্স ধরবে বলে।

Categories
Uncategorized

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক থাকবে তবে ভাগ থাকবে না সম্পদে। ধারণ করা যাবে না সন্তান এমন নানা শর্ত দিয়েছিলেন মামুনুল….

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক থাকবে তবে ভাগ থাকবে না সম্পদে। ধারণ করা যাবে না সন্তান, থাকবে তালাকের অধিকার। এমন পাঁচ কঠিন শর্তের

বেড়াজালে আটকে গিয়েছিল মামুনুল হকের কথিত দুই স্ত্রী ঝর্ণা আর জান্নাতুলের জীবন। চুক্তিভিত্তিক এসব বিয়েকে অদ্ভুত বলার পাশাপাশি দেশের প্রচলিত আইনেরও পরিপন্থী বলে দাবি করেছে পুলিশ। ২০১৮ সালে বিয়ে বিচ্ছেদের পর জান্নাত আরা ঝর্ণাকে ফুঁসলিয়ে ঢাকায় নিয়ে

আসেন মামুনল হক। প্রথমে পরিচিতদের পরে ভাড়া বাসায় রাখা হয় তাকে। মামুনুলের ভাষ্য, মানবিক দিক বিবেচনায় ঝর্ণাকে চুক্তিভিত্তিক বিয়ে করেন তিনি। একই ঘটনা ঘটে কথিত তৃতীয় স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসের সঙ্গেও। বেশকিছু কঠিন শর্ত দিয়ে তাকেও বিয়ে করার কথা স্বীকার করেছেন পুলিশের কাছে। মামুনুল হকের চুক্তিভিত্তিক দুই বিয়ের

বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পেয়েছে পুলিশ। কথিত দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্ত্রীকে বিয়ের জন্য যেসব শর্তারোপ করা হয়েছিল তার মধ্যে রয়েছে, ওই নারীরা স্ত্রী হিসেবে থাকবেন, তবে মর্যাদা পাবেন না। স্বামী- স্ত্রীর সর্ম্পক থাকবে তবে ভাগ পাবেন না সম্পদের। সন্তান ধারণ করা যাবে না, প্রত্যাশা করা যাবে না স্থায়ী দাম্পত্য জীবনের। কারও কাছে স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দিতে পারবেন না,

থাকবে তালাকের অধিকার। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেন, মেলামেশা করতে পারবে, তবে স্ত্রীর মর্যাদা পাবে না। সম্পদের অধিকার সে পাবে না। একই সঙ্গে সন্তান ধারণ করতে পারবে না। এ ধরনের বেশ কিছু শর্ত চুক্তির মধ্যে আছে। চুক্তিগুলো অদ্ভুত। এগুলো বাংলাদেশের আইনের পরিপন্থী। সংশ্লিষ্টরা বলছেন,

কাবিননামা একটি আইনি দলিল। মুসলিম আইনে বিয়ের রেজিস্ট্রেশন না করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। প্রসঙ্গত, হেফাজতে ইসলামের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ‘দ্বিতীয় স্ত্রী’ জান্নাত আরা ঝর্ণা মামলা করেছেন। মামলার এজাহারে তিনি উল্লেখ করেছেন চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। গত ২৭ এপ্রিল দুপুরে রাজধানীর বসিলার একটি বাসা থেকে ঝর্ণাকে উদ্ধার

করে পুলিশ। এরপর ঝর্ণাকে দেওয়া হয় তার বাবার জিম্মায়। শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ঝর্ণা। ৩ এপ্রিল হেফাজত নেতা মামুনুল হক এক নারীসহ নারায়ণগঞ্জের রয়েল রিসোর্টে ধরা পড়েন। তখন তিনি ওই নারীকে

দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে পরিচয় দেন। পরে প্রথম স্ত্রী আমেনা তৈয়বার সঙ্গে একটি ফোনালাপ ফাঁস হয় তার। যেখানে মামুনুল বলেন, জনরোষ থেকে বাঁচতেই জান্নাত আরা ঝর্ণাকে দ্বিতীয় স্ত্রীর পরিচয় দিয়েছিলেন তিনি। আসলে ওই ঝর্ণা হাফেজ শহীদুলের স্ত্রী। ১৮ এপ্রিল মামুনুল গ্রেফতার হলে জিজ্ঞাসাবাদে রিসোর্টকাণ্ড নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসে। পরের দুই নারীর সঙ্গে চুক্তিভিত্তিক সম্পর্ক করেন মামুনুল।

হেফাজত নেতা মামুনুল হক বর্তমানে দ্বিতীয় দফায় পুলিশের রিমান্ডে রয়েছেন। পাকিস্তানি জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ততা ছাড়াও তার ব্যাংক হিসাবে ৬ কোটি টাকা লেনদেনের সন্ধান পায় গোয়েন্দা পুলিশ।

Categories
Uncategorized

৫ আগস্টের পর লকডাউন থাকছে না, এমন কথা বলেননি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

৫ আগস্টের পর আর লকডাউন থাকবে না’ বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালকে উদ্ধৃতি দিয়ে কিছু গণমাধ্যমে প্রচারিত হওয়া

সংবাদের ব্যাখ্যা দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে কোট করে কয়েকটি মিডিয়ায় একটি নিউজ যাচ্ছে যে ‘৫ আগস্টের পর আর লকডাউন দেওয়া হবে না’। প্রকৃতপক্ষে মন্ত্রী এ ধরনের কোনো কথা বলেননি। আজ বুধবার (২৮ জুলাই) মন্ত্রণালয়ের

জনসংযোগ দপ্তর থেকে এ তথ্য বলা হয়। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলনকক্ষে ‘কভিড-১৯ প্রতিরোধকল্পে আরোপিত বিধি-নিষেধের কার্যক্রম পর্যালোচনা ও কডিড-১৯ প্রতিরোধক টিকাদান কার্যক্রম জোরদারকরণ’ বিষয়ে অনুষ্ঠিত সভা শেষে চলমান লকডাউন নিয়ে কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বৈঠকে সিদ্ধান্ত এমন এসেছে আমাদের যে লকডাউন চলছে তা ৫ আগস্ট পর্যন্ত চলতে থাকবে। যদিও আমাদের শিল্পপতিরা এবং অনেকেই রিকোয়েস্ট করেছিলেন, আমরা সেই রিকোয়েস্ট বোধহয় রাখতে পারছি না। লকডাউন ৫ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। অন্যান্য দেশের মতো সংক্রমণ ধীরে ধীরে কমবে বলে আমরা আশা করছি। আমাদের কাছে যে

টিকা এসেছে সেগুলোর কার্যক্রম চলবে, পরবর্তীতে যে টিকা আসবে সেটার ব্যবহার পরবর্তী সময়ে করব।

-এটি

Categories
Uncategorized

দেশে শেষ পর্যন্ত রাজস্ব ঘাটতি ৪১ হাজার কোটি টাকা

শেষ পর্যন্ত বিদায়ী অর্থবছরে (২০২০-২১) জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) শুল্ক-কর আদায়ে প্রায় ৪১ হাজার কোটি টাকা ঘাটতি হয়েছে।

শুল্ক, মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাট এবং আয়কর—এই বিভাগে সব মিলিয়ে প্রায় ২ লাখ ৫৯ হাজার ৯০০ কোটি টাকা আদায় হয়েছে। বিদায়ী বছরে এনবিআরের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩ লাখ ১ হাজার কোটি টাকা। আর মূল লক্ষ্য ছিল ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকা।

এনবিআরে রাজস্ব আদায় পর্যালোচনা সভায় গতকাল বৃহস্পতিবার বিদায়ী অর্থবছরের রাজস্ব আদায়ের চিত্র তুলে ধরা হয়। অনলাইনে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। বিদায়ী অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে প্রায় ১৯ শতাংশ। এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, বিদায়ী বছরে সবচেয়ে

বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে ভ্যাট খাত থেকে। এই খাত থেকে ৯৭ হাজার ৫০৯ কোটি টাকা আদায় হয়েছে। বৃহৎ করদাতা ইউনিট (এলটিইউ) সবচেয়ে বেশি ৪৯ হাজার ২৫১ কোটি টাকা ভ্যাট আদায় করেছে। ভ্যাটের পর আয়কর থেকে আদায় হয়েছে প্রায় ৮৫ হাজার ৩৯১ কোটি টাকা। আয়করের এলটিইউ সর্বোচ্চ ২৪ হাজার কোটি টাকার বেশি আদায় করেছে। আদায় হওয়া

রাজস্বের বাকি প্রায় ৭৭ হাজার কোটি টাকা শুল্ক খাত থেকে এসেছে। বৈঠকে আগামী রাজস্ব আদায়ে উৎসে কর কাটার চেয়ে তদারকিভিত্তিক রাজস্ব আদায়ে মনোযোগী হওয়ার নির্দেশ দেন এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। শুল্ক-কর ফাঁকি ঠেকাতে আরও বেশি কঠোর হওয়ার নির্দেশ দেন তিনি। এনবিআরের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে,

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে কয়েকটি ভ্যাট কমিশনারেটের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য বাড়িয়ে দেওয়া হতে পারে। এই তালিকায় আপাতত আছে ঢাকা পূর্ব, ঢাকা পশ্চিম, সিলেট ও রংপুর। বৈঠকে আলোচনা হয়, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজারসহ সিলেট অঞ্চলে এখন শিল্পকারখানা বেশি হচ্ছে। বিদায়ী অর্থবছরে সিলেট অঞ্চল থেকে ভ্যাট প্রবৃদ্ধি সাড়ে ১৬ শতাংশ। চলতি অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ে ১১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে। এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বৈঠকে। এ

ছাড়া বৈঠকে ঢাকা পশ্চিম ও পূর্ব এবং রংপুর ভ্যাট কমিশনারেটের রাজস্ব লক্ষ্য বাড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হয়।

Categories
Uncategorized

গার্মেন্ট খোলায় বাবা ঢাকার পথে, রাস্তায় দুই ছেলে রেখে মা উধাও!

বগুড়ার শাজাহানপুরে কোলের দুই শিশুপুত্রকে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে গেছেন মা। পরে শিশু দুটিকে উদ্ধার করে স্বজনদের হাতে

তুলে দেয় স্থানীয়রা। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার আড়িয়া বাজার এলাকায় এমন ঘটনা ঘটে। ওই বাজারের দোকানদার রিপন আহমেদ জানান, তার দোকানের সামনে ছয় বছর ও ছয় মাস বয়সী দুই শিশুপুত্রকে কোলে নিয়ে এক নারীকে ঘোরাঘুরি করতে দেখেন। এর

কিছুক্ষণ পর শিশু দুটিকে রাস্তার পাশে কাঁদতে দেখে আশপাশের লোকজন ভিড় করে। পরে জানা যায়, শিশু দুটির মা তাদের ফেলে পালিয়েছেন। জানাজানি হওয়ার পর শিশু দুটির পরিচয় পাওয়া গেলে স্বজনদের খবর দেওয়া হয়। স্থানীয় ইউপি সদস্য মুরাদ কোরাইশী জানান, স্বজনদের খবর দেওয়া হয়ে শিশুদের দাদা এসে তাদের বাড়ি

নিয়ে যান। তারা শাজাহানপুর উপজেলার আমরুল ইউনিয়নের ফুলকোট দক্ষিণপাড়ার রঞ্জিত প্রামানিকের সন্তান। শিশুর দাদা অমূল্য প্রামানিক জানান, ১০ বছর আগে নওগাঁ জেলার আত্রাই থানার মনোয়ারী গ্রামে তার ছেলে রঞ্জিতের বিয়ে হয়। বর্তমানে তার ছেলে ঢাকায় এক পোশাক কারখানায় চাকরি করেন। সেখানে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে বসবাস করেন। পারিবারিক কলহের জের

ধরে কাউকে কিছু না বলে ছেলের বউ দুই শিশুপুত্রকে নিয়ে বাবার বাড়িতে চলে আসেন। পরে ছেলে ঢাকা থেকে বাড়ি এসে স্ত্রী ও সন্তানকে না পেয়ে শ্বশুড়বাড়িতে তাদের আনতে যান। কিন্তু তার স্ত্রী না এসে সেখানে তাকে অপমান করে। এ নিয়ে সেখানে সালিসও হয়। এদিকে ঢাকায় পোশাক কারখানা খোলার খবর পেয়ে আজ শনিবার সকালে ছেলে ঢাকার

উদ্দেশে রওনা হন। এর মধ্যে খবর পান তার দুই নাতিকে তার মা রাস্তার পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে গেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নাতি দুটিকে বাড়ি নিয়ে আসেন এবং ছেলেকে বিষয়টি জানান। ছেলের বউয়ের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

Categories
Uncategorized

তাবিজ আনতে মাজারে গিয়ে গ,র্ভব,তী হয়ে গেলেন প্রবাসীর স্ত্রী,

ছেলের মঙ্গলের জন্য খানকা শ’রীফের তা’বিজ আনতে যান এক প্র’বাসীর স্ত্রী। কিন্তু খা’নকা শরীফের তত্ত্বাবধায়কের লা’লসার শিকার হয়ে

অন্তঃসত্ত্বা হয়ে প’ড়েছেন তিনি। এ নিয়ে চা’ঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে ওই এলাকায়। ব্রা’হ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উ’পজেলায় এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার স’ন্ধ্যায় অভিযুক্ত মাওলানা সি’রাজুল ইসলামকে (৪৮) আটক করেছে পু’লিশ। তিনি হবিগঞ্জ জেলার মা’ধবপুর উপজেলার বড়গাঁ গ্রামের মৃ’ত

আ’শিকুল ইসলামের ছেলে। জানা যায়, খা’নকায়ে শরীফ মা’জারের তত্ত্বাবধায়ক সি’রাজুল ইসলাম মা’নুষজনকে বিভিন্ন রো’গের জন্য তা’বিজ দেন। এছাড়া ঝা’ড়ফুঁকও দেন সা’লামির বিনিময়ে। তা’বিজের জন্য ওই প্র’বাসীর স্ত্রীর খানকা শ’রীফে আসা-যাওয়া ছিল। মাঝে ম’ধ্যেই ওই নারী ত’ত্ত্বাবধায়কের লা’লসার

শি’কার হতেন। ন’বীনগর থানা পু’লিশের ভা’রপ্রাপ্ত ক’র্মকর্তা (ওসি) আ’মিনুর রশিদ জানান, ভোলাচং গ্রামের বা’সিন্দা ওই প্র’বাসীর স্ত্রী তার ছেলের জন্য তা’বিজ আনতে শ্রী’রামপুর গ্রামের আবু উলাইয়া খা’নকা শরীফ যান। প্র’বাসীর স্ত্রী অ’ন্তঃসত্ত্বা হয়েছেন, স্থা’নীয়রা এ নিয়ে কানাঘুষা শুরু হলে পু’লিশ

সিরাজুল ই’সলামকে আটক করে। প্রা’থমিকভাবে ঘ’টনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলে জা’নিয়েছে পু’লিশ।

Categories
Uncategorized

মাথার পাশে মোবাইল রেখে ঘুমাবেন না

ডা. উম্মে সালমা বর্তমানে আমরা মোবাইল ও ইন্টারনেটে এতোটাই অভ্যস্ত হয়ে পড়েছি, চাইলেই এর ব্যবহার থেকে সরে আসা সম্ভব নয়।

যেহেতু মোবাইল ফোনের অতিরিক্ত ব্যবহার আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য নানাভাবে ক্ষতিকর। তাই প্রয়োজন মোবাইল ব্যবহারে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা। আসুন, আমরা সে বিষয়ে আলোকপাত করি। এক. দীর্ঘ সময় মোবাইল ফোনে কথা বলবেন না। এক নাগাড়ে পনের মিনিটের বেশি কথা

বলা কোনভাবেই উচিৎ নয়। দুই. দীর্ঘ সময় মোবাইল ফোনে কথা বলতে চাইলে স্পিকারে বা হেডফোনে কথা বলুন। আপনার সেটটি শরীর থেকে দুই-তিন ইঞ্চি দূরে রেখে কথা বলুন। বাসায় বা অফিসে যদি ল্যান্ডফোন থাকে তাহলে ল্যান্ডলাইনে কথা বলুন, তবে হ্যান্ডসেটে ( তার বিহীন) নয়। তিন: যখন মোবাইল ফোনের সিগন্যাল দুর্বল থাকবে বা

ব্যাটারির চার্জ কম থাকবে তখন মোবাইল ব্যবহারে বিরত থাকুন। চার: যানবাহন ( কার, বাস, ট্রেন, প্লেন) এবং লিফটে মোবাইল ফোন ব্যবহারে বিরত থাকুন। কারণ ধাতব বস্তুর নিকটবর্তী থাকলে রেডিয়েশনের মাত্রা বেড়ে যায়। পাঁচ: পকেট বা শরীরের সংস্পর্শে মোবাইল ফোন না রেখে ব্যাগে রাখুন। ছয়: জরুরি প্রয়োজন ছাড়া শিশুদের হাতে মোবাইল ফোন দিবেন না।

বিশেষ করে যাদের বয়স আঠারো বছরের কম। সাত: মাথার পাশে মোবাইল রেখে ঘুমাবেন না। কমপক্ষে কয়েকফুট দূরে রাখুন। যদি ফোনে এলার্ম সেট করতে চান এয়ারপ্লেন মুডে রাখুন। আট: ল্যাপটপ বা ট্যাবে কাজ করার সময় টেবিলে বসে করুন। কোলে বা বুকের ওপর কখনো রাখবেন না। নয়: মোবাইল ফোন চার্জে থাকা অবস্থায় কখনো ব্যবহার করবেন না।

দশ: ওয়াইফাই রাউটার আপনার বেডরুম বা যে রুমে আপনি বেশীরভাগ সময় কাটান তা থেকে দূরে রাখুন এবং রাতের বেলায় বন্ধ রাখুন।
এগারো: অন্ধকারে মোবাইল, ল্যাপটপ ব্যবহারে বিরত থাকুন। কারণ অন্ধকারে মনিটর থেকে যে রশ্মি নির্গত হয় তা আমাদের চোখের জন্য ক্ষতিকর। বারো: যদি মোবাইলে কোন ভিডিও বা মুভি দেখতে বা গান শুনতে চান তাহলে আগে

ডাউনলোড করে নিন। পরে এয়ারপ্লেন মুডে উপভোগ করুন। তেরো: শিশুরা যদি মোবাইল বা ল্যাপটপে গেম খেলতে চায় তাহলে এয়ারপ্লেন মুডে সেট করে দিন। উল্লেখ্য, আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহার্য আরও অনেক জিনিস আছে যা থেকে প্রতিনিয়ত বিদ্যুৎ চৌম্বকীয় তরঙ্গ বা রেডিয়েশন নির্গত হয়। যেমন: মাইক্রোওয়েভ ওভেন, এলইডি টিভি, এলইডি লাইট, রিমোট

কন্ট্রোল, রেডিও ইত্যাদি। কাজেই এই জিনিশগুলো ব্যবহারেও আমাদের সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

লেখক: ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ, বারডেম হাসপাতাল।

Categories
Uncategorized

চালু হলো গণপরিবহন

আওয়ার ইসলাম ডেস্ক: রফতানীমুখী শিল্প-কারখানার কর্মীদের কর্মস্থলে ফেরার সুবিধার্থে আগামীকাল রবিবার (১ আগস্ট) সারাদিন সকল

গণপরিবহন চলাচল শিথিল করেছে সরকার। আজ শনিবার (৩১ জুলাই) বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব ও ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্যাহ গণমাধ্যমকে বলেন, গার্মেন্টস শ্রমিকদের কথা চিন্তা করে এখন থেকে
আগামীকাল (রবিবার) সারাদিন গণপরিবহন

চলাচলের সিদ্ধান্ত দিয়েছে সরকার।তিনি বলেন, আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। গণপরিবহন চলাচল শুরু হবে। -এটি

Categories
Uncategorized

সারা দেশে বাস চলাচলের সিদ্ধান্ত

দেশে চলমান কঠোর বিধিনিষিধের মধ্যেই ১ আগস্ট রোববার থেকে শিল্পকারখানা খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ফলে দেশব্যাপী ছড়িয়ে থাকা

শিল্পকারখানার শ্রমিকদের কর্মস্থলে ফেরাতে বাস ও লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দিয়েছে সরকার। ৩১ জুলাই শনিবার রাত থেকে আগামীকাল দুপুর ১২টা পর্যন্ত সারা দেশে লঞ্চ ও বাস চলাচল করবে। শিল্পকারখানা খোলার খবরে আজ ঢাকামুখী মানুষের ঢল নেমেছে। পোশাক শ্রমিকরা ছোট

ছোট যানে করে দুই-তিনগুণ ভাড়া দিয়ে গন্তব্যের দিকে ছুটছেন। অনেকেই পায়ে হেঁটে ঢাকায় ফিরছেন। এমন পরিস্থিতিতে এবার সকল শিল্পকারখানার শ্রমিকদের কর্মস্থলে ফিরতে লঞ্চ ও বাস চলাচলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় গত ১ জুলাই থেকে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন আরোপ করে সরকার। পরে সময়সীমা

বাড়িয়ে ১৪ জুলাই পর্যন্ত করা হয়। এরপর ঈদুল আজহা উপলক্ষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে কঠোর বিধিনিষেধ ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে শিথিল করা হয় ২৩ জুলাই ভোর ৬টা পর্যন্ত।

Categories
Uncategorized

১৫ হাজার টাকা জামানতে ব্যাংক দিচ্ছে ১০ লক্ষ টাকা – আবেদন পদ্ধতি

ব্র্যাক ব্যাংক পার্সোনাল লোন শর্তাবলী: আয়ের শর্তঃ চাকুরীজীবীদের জন্য ১৫,০০০ টাকা ব্যবসায়ী/আত্ম-কর্মসংস্থানকারী ব্যক্তিদের জন্য

২৫,০০০ টাকা। বয়সের সময়সীমা: চাকুরীজীবীদের জন্য ৬০ বছর, ব্যবসায়ী/আত্মকর্মসংস্থানকারী ব্যক্তিদের জন্য ৬৫ বছর। লোনের পরিমাণ ১,০০,০০০ টাকা থেকে ২,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত হলে লোন পরিশোধের সময়সীমা হবে ১২ মাস থেকে সর্বোচ্চ ৪৮ মাস। লোনের পরিমাণ

৩,০০,০০০ টাকা অধিক হলে লোন পরিশোধের সময়সীমা হবে সর্বোচ্চ ৬০ মাস। সর্বোচ্চ লোন সীমা ১০,০০,০০০। আপনার খরচ কত হবে এবং কিভাবে চার্জ করা হবে? ব্র্যাক ব্যাংক পার্সোনাল লোনটি নেয়ার জন্য নিম্নোক্ত ফী-সমূহ ধার্য হবে: ১।প্রক্রিয়াকরণ ফী ১%
২। সার্ভিস চার্জ ১% (মঞ্জুরকৃত লোনের পরিমাণের উপর)।

আবেদন গ্রহন করতে কত দিন লাগবে এবং কি কি কাগজপত্র আবশ্যক? লোন আবেদন অনুমোদনের সময়কাল: লোন আবেদন দাখিল করার পর ১০ দিন সময় নিবে। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র: 1. টিআইএন সার্টিফিকেট 2. ভোটার আইডি কার্ড। 3. সর্বশেষ ৬ মাসের আয় বিবরণী। 4. ২ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি। 5. ইউটিলিটি বিল এর ফটোকপি।আপনার খারাপ কর্পোরেট &

ইনভেস্টম্যান্ট ব্যাংকিং(সিআইবি) রেকর্ড থাকলে আবেদন করতে পারবেন কি? খারাপ কর্পোরেট & ইনভেস্টম্যান্ট ব্যাংকিং(সিআইবি) রেকর্ড থাকলে আবেদন প্রত্যাখ্যাত হবে। অনুমোদন সময়কাল: ব্র্যাক ব্যাংক আপনার লোনের আবেদন করার পআবেদন পর্যালোচনা এবং মঞ্জুর করার জন্য ১৪ কর্মদিবস সময় নিবে। মুনাফার হার: ১০.৫০%।

ক্রেতাদের ধরনের উপর নির্ভর করে সুদের হার ১০.৫০% থেকে ১২.৭৫% পর্যন্ত হতে পারে। ব্র্যাক ব্যাংক পার্সোনাল লোন পেতে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে অবশ্যই ব্যাংক এ্যাকাউন্ট থাকতে হবে।ব্র্যাক ব্যাংক পার্সোনাল লোন একজন জামিনদার প্রয়োজনীয় এবং দ্রুত লোন মঞ্জুরের একটি খুবই নমনীয় প্যাকেজ।

ব্র্যাক ব্যাংক পার্সোনাল লোন শর্তাবলী: আয়ের শর্তঃ চাকুরীজীবীদের জন্য ১৫,০০০ টাকা ব্যবসায়ী/আত্ম-কর্মসংস্থানকারী