Categories
Uncategorized

সৌদি প্রবাসীর ছবি ও নাম দিয়ে ৪ লাখ টাকা হা’তিয়ে নি’লো মালয়েশিয়া প্রবাসী

তার নাম সোহাগ হোসেন। থাকেন মালয়েশিয়ায়। তবে সৌদি প্রবাসীর ছবি ও নাম দিয়ে খো’লেন ফেসবুক আইডি। ফেক আইডি খুলেই পাতেন

বিভিন্ন ধরনের ফাঁ’দ। সোহাগের পাতা ফাঁ’দে পা দিয়ে দুই যুব’ক হা’রিয়েছেন চার লাখ ১০ হাজার টাকা। প্র’তারক’ সোহাগের বাড়ি চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার দক্ষিণ মাঝিগাছা গ্রামে। তার বাবার নাম জাকির হোসেন। তবে ফেসবুক আইডি খোলেন সৌদি প্রবাসী মো. নুরুল ইসলামের

ছবি ও নাম ব্যবহার করে। নুরুল ইসলাম কচু’য়ার আলিয়ারা গ্রামের হাবিব উল্যাহ মেম্বারের ছেলে। নুরুল ইসলামের নামে আই”ডি খুলে মালয়েশিয়ায় বসে নতুন কৌশলে সে’ঙ্গুয়া গ্রামের দুই যুবককে সৌদিতে পা’ঠানোর কথা বলে মোটা অংকের টাকা হা’তিয়ে নেন সোহাগ। ‘প্র’তার’ণার শি’কার হয়ে সম্প্রতি সোহাগের বি’রু’দ্ধে কচুয়া

থানায় দুটি লিখিত অভি’যোগ করেন ওই যুবকের বাবা আমিন মিয়া ও প্রবাসী নুরুল ইসলামের ভাই তাজুল ইসলাম। প্র’তা’রণার শি’কার কচুয়ার সেঙ্গুয়া গ্রামের জাহিদ হাসানের মা তাছলিমা আক্তার বলেন, নুরুল ইসলাম আমার চাচা হন। মাঝিগাছা গ্রামের প্রতারক সোহাগ আমার চাচার ছবি দিয়ে নিজের নামে একটি ফেসবুক আ’ইডি খোলেন। পরে আমার ভাই

ওমান প্রবাসী জিসান ওই নম্বরে ফোন দেন। ফোন দিলে সোহাগ নিজেকে নুরুল ইসলাম বলে পরি’চয় দিয়ে দীর্ঘদিন কথা বলেন। এরপর জিসানের ভাগনে জাহিদ ও চাচাতো ভাই শাহপরানকে সৌদিতে নেয়ার কথা বলে ব্যাংক ও বিকাশের মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে চার লাখ ১০ হাজার টাকা হাতি’য়ে নেন। পরে তাদের কাছে জা’ল ভিসা পাঠান।

কবে বিদেশ পাঠাবে জানতে চাইলে ওই চ’ক্রের সদস্য একই গ্রামের কালাম ভূঁইয়া কার কাছে বিদেশে যাওয়ার ভিসার টাকা দিয়েছেন এবং কী ভিসা দিয়ে বিদেশ যাবেন- এমন উল্টো-পাল্টা প্রশ্ন করলে বিষয়টি ফাঁ’স হয়ে যায়। একপর্যায়ে কালাম ভূঁইয়ার তথ্যমতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় প্র’তার’ক সোহাগের নাম-ঠিকানা বের করে ঘটনার মূলরহ’স্য উদঘা’টন করা হয়।

সৌদি প্রবাসী নুরুল ইসলামের বড় ভাই মো. তাজুল ইসলাম বলেন, আমার ভাইয়ের ছবি ও নাম ব্যবহার করে ফেসবুক খুলে প্র’তার’ণায় করায় আমরা সামাজিকভাবে হে’য়’প্রতি’পন্ন হয়েছি। ন্যায়বি’চার চে’য়ে প্র’তারক সোহাগের বি’রু’দ্ধে কচুয়া থা’নায় অভি’যোগ দিয়েছি। এদিকে অভি’যুক্ত দক্ষিণ মাঝিগাছা গ্রামের অধিবাসী সোহাগের বাবা জাকির হোসেন বলেন, বিষয়টি নিয়ে এলাকায় স্থানীয়ভাবে

সমাধানের চেষ্টা চলছে। কচুয়া থানার ওসি মো. মহিউদ্দিন বলেন, এ বিষয়ে একটি লি’খিত অভি’যোগ পেয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *