Categories
Uncategorized

আমরা অত্যন্ত ভাগ্যবান, চীনের মতো ভালো বন্ধু পেয়েছি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ম’হামা’রির সময় চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্প’র্ক আরও গভীর হয়েছে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেন, শুরু

থেকেই তারা (চীন) আমাদের অনেক সহযো’গিতা করে আসছে। আমরা অত্যন্ত ভা’গ্যবান যে, চীনের মতো ভালো বন্ধু পেয়েছি। সম্প্রতি চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা শিনহুয়াকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ক’রো’নাভা’ইরাস’ মহা’মা’রি

মোকাবিলায় চীন শুরু থেকেই বাংলাদেশকে সহযোগিতা করায় আন্তরিক কৃত’জ্ঞতা প্রকাশ করেছেন তিনি। গত সপ্তাহে চীন-বাংলাদেশ যৌথ টি’কা উৎপাদন চু’ক্তির সন্ধিক্ষণে ড. মোমেন চীনা বার্তা সংস্থাটিকে বলেন, প্রাদুর্ভাবের প্রথম দিনগুলোতে চীন যখন কঠিন অব’স্থায় পড়েছিল, তখন চিকিৎসা সর’ঞ্জাম পাঠিয়েছিল বাংলাদেশ।

পরে বাংলাদেশ যখন সম’স্যায় পড়ে, তখন চীন সরকার, এমনকি (চীনের) বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোও অনেক সহযো’গিতা করেছে। মোমেন বলেন, কো’ভি’ড-১’৯’র উৎস ও কারণগুলো খুঁজে বের করার ক্ষেত্রে আমি মনে করি, এটি বিজ্ঞানীদের ওপর ছেড়ে দেওয়া উচিত। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তদ’ন্ত হলে তা বিপ’র্যয় ডেকে আনে। এক্ষেত্রে তিনি

যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে ইরাক যু’দ্ধের উদাহরণ টেনে বলেন, প্রথমে এতে রাজনৈ’তিক উদ্দেশ্য ছিল। এরপর ছবি ও ভু’য়া প্রমা’ণসহ খবর আসে, ইরাকের কাছে গণ’বি’ধ্বংসী অ’স্ত্র রয়েছে। এতে গোটা বিশ্ব বি’ভ্রান্ত হয়ে সেটি সত্য বলে বিশ্বাস করতে বা’ধ্য হয়। কিন্তু

ঘটনা’ক্রমে তারা ইরাক দখলের পর দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে যথাসাধ্য চেষ্টা করেও এর তিল পরিমাণ (অ’স্ত্র) খুঁজে বের করতে পারেনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, টিকা সার্ব’জনীন হওয়া দরকার। কোনো ধরনের বৈষম্য না করে এটি সব দেশেই বিতরণ

হওয়া উচিত। প্রত্যেকটি মানুষ করো’নাভা’ইরাসমু’ক্ত না হলে কেউই এ থেকে মু’ক্ত থাকতে পারবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *