Categories
Uncategorized

অভিজিৎ হত্যাকারীদের তথ্য চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ৫০ লাখ ডলার পুরস্কার ঘোষণা

ব্লগার ও লেখক অভিজিৎ রায়ের হত্যাকারীদের তথ্য চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ৫০ লাখ ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডিপ্লোমেটিক সিকিউরিটি সার্ভিসের রিওয়ার্ডস ফর জাস্টিস প্রোগ্রাম (আরএফজে) আজ সোমবার এক বিবৃতিতে এই ঘোষণা দিয়েছে। বাংলাদেশি মুদ্রায় পুরস্কারের অর্থমূল্য প্রায় ৪৩ কোটি টাকা। +১২০২৭০২৭৮৪৩ নম্বরে হোয়াটসঅ্যাপ, টেলিগ্রাম ও সিগনালের মাধ্যমে

হত্যাকারীদের সম্পর্কে তথ্য জানাতে বলা হয়েছে। বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, একজন লেখক, ব্লগার ও অ্যাক্টিভিস্ট হিসেবে অভিজিৎ রায় বাংলাদেশে মৌলবাদের বিরুদ্ধে ও বাক স্বাধীনতার পক্ষে সক্রিয় ছিলেন। বাংলাদেশে কারাবন্দী নাস্তিক ব্লগারদের দুর্দশার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক প্রতিবাদ গড়ে তোলায় কাজ করতেন তিনি। সামাজিক

নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিবাদেও তিনি পরিচিত মুখ ছিলেন। ২০১৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় অভিজিৎ রায়কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ওই হামলায় গুরুতর আহত হন তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যা। আনসারউল্লাহ বাংলা টিম এ হামলার দায় স্বীকার করে। যুক্তরাষ্ট্র মনে করে, হামলাকারীরা বাংলাদেশেই অবস্থান করছেন।

এর কিছু সময় পরে আল-কায়েদার ভারতীয় উপমহাদেশ শাখার (একিউআইএস) তৎকালীন নেতা আসিম উমর এক ভিডিও বার্তায় দাবি করেন, তাদের অনুসারীরাই এ হত্যাকাণ্ড ঘটান। ২০১৬ সালের ১ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একিউআইএসকে বিদেশি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত করে। অভিজিৎ হত্যার ঘটনায় তার বাবা

অধ্যাপক অজয় রায় পরদিন একটি মামলা করেন। এ বছর ১৬ ফেব্রুয়ারি ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়ে মামলায় রায় ঘোষণা করেন ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ২ আসামির কথা উল্লেখ করে একটি পোস্টারসহ টুইট করেছে রিওয়ার্ডস ফর জাস্টিস। পোস্টারে বলা হয়, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বরখাস্তকৃত মেজর

সৈয়দ জিয়াউল হক ও আকরাম হোসেন পলাতক আছেন। এতে আরও বলা হয়, ‘যদি এই দুজন বা এই হামলায় জড়িত অন্য কারও সম্পর্কে আপনার কাছে তথ্য থাকে, তাহলে সিগন্যাল, টেলিগ্রাম বা হোয়াটস অ্যাপ ব্যবহার করে জানাতে পারেন। আপনাকেও পুরস্কৃত করা হতে পারে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *