Categories
Uncategorized

দল থেকে বাদ পরে বিএনপির গোপন তথ্য ফাঁ’স করে দিলেন মঞ্জু, সমালোচনার ঝ’ড় বইছে

নতুন নয়, এই অ’ভি’যো’গ বেশ পুরনো। আবারও এলো নতুন করে। সম্প্রতি শৃ’ঙ্খলা ভ’ঙ্গের অ’ভি’যোগ এনে দল থেকে অ’ব্যা’হ’তি

দেয়া হয়েছে বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জুকে। ২৫ ডিসেম্বর (শনিবার) তাকে অব্যাহতি দেয়ার পর অনেকেই বলেছিলেন, দলের ‘হাঁ’ড়ির খবর’ ফাঁ’স করার অ’প’রা’ধে তাকে এই অ’ব্যা’হ’তি প্রদান। কিন্তু এবার বেরিয়ে এলো থ’লের

বি’ড়াল। টাকা’র অংকে গ’ড়মিল’ হওয়ায় মঞ্জুকে দল থেকে অ’ব্যা”হতি দিয়েছেন তারেক, এমন মন্তব্য সদ্য অ’ব্যা’হতিপ্রাপ্ত বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জুর। তার ভাষ্য, তারেককে খুশি করতে না পারাটাই কাল হয়েছে। পেতে হলো অব্যাহতি। দায়িত্বশীল সূত্রের তথ্যমতে, গত ৯ ডিসেম্বর খুলনা মহানগর ও

জেলা বিএনপির আংশিক কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় কমিটি। ওই কমিটিতে মহানগর বিএনপির সভাপতি হিসেবে নজরুল ইসলাম মঞ্জু ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনিকে বা’দ দিয়ে নতুন কমিটি গঠন করা হয়। শুধু তাই নয়, ওই কমিটিতে তাদের কোনো অনুসারীকেও রাখা হয়নি। এ ঘটনায় নেতাকর্মীদের

একটি অংশের মধ্যে ক্ষো’ভ দেখা দেয়। যার বহিঃপ্র’কাশ ঘটে কমিটি ঘোষণার দুই দিন পর (১২ ডিসেম্বর) খুলনা প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে। সেখানে নজরুল ইসলাম মঞ্জু ঘোষিত কমিটির ‘বিরু’দ্ধে অ”নাস্থা জানিয়ে বলেন, বিতর্কিত ও সুবিধাবাদী নেতৃত্ব রাজনৈতিক সং’স্কৃতির বি’রো’ধী। তাই এই কমিটির প্রতি খুলনা বিএনপির মাঠপর্যায়ের

নেতাকর্মীর কোনো সম’র্থন, আস্থা কিংবা বিশ্বাসও নেই। এই ঘটনার বেশ ক’দিন পেরিয়ে গেলেও বিএনপি কেন্দ্রীয় নেতাদের থেকে কোন মন্ত’ব্য আসেনি। বরং তারা ছিলেন নীরব দর্শকের ভূমিকায়। বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে কমিটি পুনর্গঠ’নে’র অ’নি’য়ম-দু’র্নী’তি’ ও দূ’র্বৃ’ত্তা’য়ন নিয়ে তিনি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানে’র কাছে

২৯ পৃষ্ঠা’র বি’স্তারিত একটি আবেদন পত্র পাঠান। আর তখনই তা’রে’ক তার কাছে মোটা অংকের টাকা দাবি করে বলেন, কা’ঙ্খিত অং’কের টাকা মিললে পুনরায় কমিটিতে রাখা হবে। ফিরিয়ে দেয়া হবে নেতৃত্ব। বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে এই প্রতিবেদক যোগাযোগ করে সদ্য অ’ব্যাহ’তিপ্রাপ্ত বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জুর সঙ্গে।

তিনি বলেন, দ’লে’র দু’বৃ’ত্তা’য়’ন ও দু’র্নী’তি নিয়ে কথা বলেছি। তাই বিএনপি আজ ৪৪ বছরের রাজনীতির ‘পুর”স্কার’ আমাকে দিয়েছে। দিয়েছে অ’ব্যাহ’তি পত্র। আরেকটি ‘খারা’প লাগার বি’ষয় হচ্ছে, অব্যা’হতি’ পত্র দেয়ার আগে আমার সঙ্গে ‘পদ’ ফি’রিয়ে দিতে’ দেন দর”বার করেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

সেখানে তিনি আমার কাছে ১০ কোটি টাকা দাবি করেন। বলেন, ১০ কোটি টাকা দিলেই খুলনা আপনার। কিন্তু আমি রাজি না হওয়ায় তারপরেই আমার কাছে আসে অব্যাহতি পত্র। আর আমি রাজি হবোই বা কেন, এত বছর রাজনীতি করেছি। দলের জন্য মাঠে থে’কেছি। কি করিনি আমি! আর তার এই প্র’তিদান! ক্ষো’ভে’র সঙ্গে তিনি আরও বলেন,

তারেক থাকেন সু’দূর লন্ডনে। সেখানে যা’পন করেন আয়ে’শি জীবন। দামি অ্যাপা’র্টমেন্ট, বি’লাসব’হুল গা’ড়ি, না’ইট ক্লা’ব, পা’র্টি, জু’য়া, না’রী’, ম’দে’র ‘বার-এ ‘নিয়েই তার জীবন। তাই এসবের অ’র্থ যোগান দিতে তিনি প’দ-কমিটি-মনোনয়ন বা”ণিজ্য করেন। যার কাছ থেকে যেমন পারেন, তেমন অংকের টাকা আদায় করে নেন।

আসলে তার কাছে রাজ’নীতি মানে জনসেবা নয়, টাকা কামানোর এক অ’দ্বিতী’য় মেশিন। আর তাই তিনি অযা’চিতভা’বে এমনটা করে আসছেন বহুদিন ধরে। কিন্তু ভয়ে এতদিন কেউ তার বিরুদ্ধে মুখ না খুললেও ‘আ’মার দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ায় মুখ খুললাম। খুলতে বাধ্য হলাম। এ নিয়ে রাজনৈতিক পর্যবে’ক্ষকরা বলছেন, সত্য কখনো চাপা থাকে না। তা একদিন না একদিন প্রকা’শিত হয়েই যায়। মঞ্জুও যেমন করলেন।

জানালেন, তারেককে খুশি করতে না পারাটাই তার অ’পরা’ধ হয়েছে। আর সে কারণেই সেই রা’গ তিনি অ’ব্যাহ’তি প্রদানের মাধ্যমেই দিলেন। এ থেকে আরও একবার প্রমাণিত হলো, বিএনপি দু”র্নীতি-অস্ব’চ্ছতা’কে লালন করে, প্রশ্রয় দেয়। আর সু’যোগ পেলেই লু’টে’-পু’টে’ খায়, অ’র্থ পাচা’র করে বিদেশে।

সুত্রঃbanglanewsbank.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *