Categories
Uncategorized

এখন বুঝি, সিনেমা থেকে দূ’রে থাকাটা ভু’ল ছিল: রিয়াজ

নব্বই’য়ের মাঝা’মাঝিতে সিনেমায় পা রেখেই তুমুল জনপ্রিয় হয়ে উঠা চিত্র’নায়ক রি’য়াজ। সম’কালীন অ’প’রাপর নায়’কদের মধ্যে ছিলেন

দর্শ’কের পছ’ন্দের তালি’কার সর্বা’গ্রে! শাব’নূর, পূর্ণি’মাদের স’ঙ্গে জু’টি বেঁধে একের পর এক হি’ট সিনেমা উ’পহার দিয়েছেন তিনি। সেই জন’প্রিয় না’য়ক শূন্যে’র মাঝা’মাঝি এসে সিনে’মায় অ’ভিনয় কমিয়ে দেন। পরব’র্তীতে ব্য’স্ত হতে থাকেন না’টক ও নিজস্ব ব্যবসায়।

তারপর থেকে কালে’ভদ্রে সিনেমা করলেও রি’য়াজ আগের মতো নিয়’মিত ছিলেন না। এখন উ’পলব্ধি করেন, তার সিনেমা থেকে দূরে যাওয়া উচিত হয়নি। বুধবার এফডি’সিতে চ্যানেল আই অন”লাইনের সঙ্গে আলাপে এই আক্ষে’পের কথা জানান রিয়াজ। তিনি বলেন, নির্বা’চনের কারণে প্রতিদিন এফডিসি আসতে হচ্ছে। এর বিভিন্ন স্প’টে যাতা’য়াতের

কারণে বিভিন্ন স্মৃতি চোখে ভাসছে। এখন উপল’ব্ধি হয়, সিনে’মা থেকে দূ’রে সরে থাকাটা আমার ভু’ল ছিল। তাই এই ভুল এবং আপসোস আর করতে চাই না। সিনে’মার সঙ্গে ওত’প্রো’তভাবে থা’কতে চান বলেই আ’সন্ন শি’ল্পী স’মিতির নির্বা’চনে ইলি’য়াস কা’ঞ্চন-নিপুণ প্যানেল থেকে সহ সভাপতি পদে নির্বা’চন করছেন চিত্রনায়ক রিয়াজ।

তিনি বলেন, নির্বা’চনে জয়ী হয়ে এখা’নকার মা’নুষদের সেবা করতে চাই। সেবা করার মানসিকতা নিয়ে এবার নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। জীবনের শেষ দিন পর্য’ন্ত এই মানুষ’গু’লোর সেবা করতে চাই। এর আগে মিশা-জায়েদ প্যা’নেলের হয়ে নির্বা’চনে জ’য়ী হয়েছি’লেন রিয়াজ। সেই সময়ে ১৮৪ জন শি’ল্পীর ভো’টাধি’কার তুলে নেয়া হয়। মিশা-জায়ে’দের প’ক্ষ

থেকে বলা হচ্ছে, যাদের ভোটা’ধিকার তুলে নেয়া হয়েছে সেই সিদ্ধান্তে রিয়া’জের নি’জেরও স্বা”ক্ষর রয়েছে। এ অভি’যো’গের প্রে’ক্ষিতে রিয়াজ বলেন, খারাপ মানুষদের ছল চাতুরীর অভাব হয়না। সমিতির চেয়ার খবর’দারি ক’রার জ’ন্য না। এই তালিকা যখন করা হয় তখন চোখ বুলানোর সুযোগ হয়নি। ত”খন উপ’দেষ্টা যারা ছিলেন কথা

বলে’ছিলেন কি’ন্তু তালিকা যখন চূড়ান্ত হয় দু’তিনজন ছাড়া কেউ চোখ বুলাতে পারেনি। রাতের অন্ধকারে এই তালিকা করেছিল। রিয়া’জের কথা, তখন প্রতি’বাদ করে’ছিলাম। সেই স’ময় ওই প্যা’নেল থেকে বলেছিল উপ’দেষ্টা না, আমরা কমি’টির মানু’ষরাই সবকিছু। সেই কমি’টির ক্ষম’তা যখন শেষ হয় কা’র্যনি’র্বাহি মি’টিংয়ে আমি কথা বলেছিলাম। বলেছিলাম,

আপনা”’দের যারা ভোট দেবে তাদের ভো’টার রাখবেন বা’কিদের বের করে দেবেন এটা তো হয় না। রিয়াজ বলেন, এটা নিয়ে বাদানু’বাদের পরে আমার সঙ্গে যখন তারা এক’মত হচ্ছি’ল না সেই মিটিং থেকে আমি বের হয়ে আসি। এরপর থেকে সেই কমিটির সঙ্গে ছিলাম না। এজিএম হয়ে’ছিল তখন আমি সাধা’রণ মানু’ষের সঙ্গে বসে ছিলাম। আমা’কে কথা বলতে দেয়া হয়নি।

সেখানে বলা হয়েছিল সভা’পতি এবং সাধা’রণ সম্পা”দক (মিশা-জা’য়েদ খান) ছাড়া কেউ কথা বলতে পারবে না। বিষ’য়টি আমা’কে প্রচ’ণ্ড’ভাবে কষ্ট দি’য়েছে। তখনই বের হয়ে চলে গিয়েছিলাম। সেদিনে গণমাধ্য’মকর্মী সে’খানে ছি’লেন। তারা এই বিষ’য়টি ভালোভাবে দেখেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *