Categories
Uncategorized

বিদেশে পড়তে যাওয়া মেয়ের ছবি ফেসবুকে, মৌলভীবাজারে ‘একঘরে’ পরিবার

উচ্চশিক্ষা লাভের জন্য যুক্তরাষ্ট্র গেছেন মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার ভাটেরা ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামের বাসিন্দা ঝর্ণা চৌধুরী। তার

বিদেশে গিয়ে লেখাপড়ার বিষ’য়টি ভালোভাবে নেয়নি এলাকাবাসী। এজন্য বিভিন্ন অপ’বাদ দিয়ে ঝর্ণার পরিবারকে ‘সমাজচ্যুত’ করা হয়েছে। গ্রাম্য পঞ্চায়েতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় কুলাউড়া উপজেলা নি’র্বাহী কর্ম’কর্তা (ইউএনও) বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন

ভুক্তভোগী ঝর্ণার বাবা হাজি আব্দুল হাই চৌধুরী। লিখিত অভিযোগ ও ভুক্ত’ভোগীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, আব্দুল হাই চৌধুরীর (৭০) দুই ছেলে ও তিন মেয়ে। এদের মধ্যে ঝর্ণা চৌধুরী দ্বিতীয় সন্তান। ২০০৮ সাল থেকে স্বেচ্ছা’সেবী সংগঠন ‘পজি’টিভ বাংলাদেশে’র সদস্য এবং ২০১৩ সাল থেকে এর প্রধান সমন্ব’য়ক ও নারী অধিকার

নিয়ে কাজ শুরু করেন ঝর্ণা। এলা’কার কিছু মানুষ বিষয়টি নেতি’বাচক’ভাবে দেখছিলেন। সিলেটে পড়াশোনার সময় এলাকার মানুষ ঝর্ণাকে নিয়ে ফেসবুকে বিভিন্ন অপপ্রচার শুরু করেন। এ বিষয়ে সিলেটের শাহপরাণ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন ঝর্ণা। ঝর্ণা আইন বিষয়ে সিলেটের একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক শেষ করে গত ২৬ ডিসেম্বর

উচ্চশিক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্র চলে যান। সেখানে তার সংগঠনের চেয়া’রম্যান জয়তূর্য চৌধু’রীসহ কয়েক’জনের সঙ্গে তোলা ছবি ফেস’বুকে প্রকাশ করেন। এরপর ঝর্ণার গ্রামের কিছু মানুষ তার বিদেশে যাওয়া, এমন ছবি তুলে ফেসবুকে প্রকাশ এবং তার চালচলন নিয়ে নেতি’বাচক মন্তব্য করেন ফেসবুকে। ঝর্ণার পরিবা’রকেও হেয় করা হয়। একপর্যায়ে

এলাকার পঞ্চা’য়েতের লোকজন আব্দুল হাই চৌধু’রীর কাছে তার মেয়ে ঝর্ণা যুক্ত’রাষ্ট্রে গিয়ে হিন্দু ছেলে জয়’তূর্যর সঙ্গে চলাফেরা এবং ছোট কাপড় পরার কারণ জানতে চান। মেয়ের এমন চালচলনের কারণে তাকে একঘরে করারও হুমকি দেন। আব্দুল হাই চৌধুরীর অভিযোগ, শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) মসজিদ পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি শামসুল ইসলাম মাখন ও সম্পাদক

আমীন আলী সালিশ বৈঠক ডাকেন। তবে অসু’স্থ থাকায় তিনি বৈঠকে যেতে পারেননি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই পরি’বারকে একঘরে করার সিদ্ধান্ত নেয় পঞ্চায়েত কমিটি। এমন সি’দ্ধান্ত ও মিথ্যা অপপ্রচার ছড়ানোর কারণে তার পরিবার নিরা’পত্তাহীন’তায় ভুগছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি শামছুল ইসলাম মাখন ও সম্পাদক

আমিন মিয়া বলেন, ঝর্ণার বিষয়ে পঞ্চায়েতের লোকজন আমাদের চাপ দি’চ্ছিলেন। পরে দেড় মাস আগে তার বাবা আব্দুল হাই চৌ’ধুরীর কাছে জানতে চাওয়া হয়। তবে তিনি আমাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেননি। শুক্রবার পঞ্চায়েতের লোকজন মসজিদে বসে বিষ’য়টি নিয়ে আলাপ করেন। তবে আমরা তাদের সমাজচ্যুত করিনি। তারা আরও বলেন, ‘তিনি যেহেতু পঞ্চায়েতকে

গুরুত্ব দেননি সেহেতু উনি উনার মতো করে চলবেন। আমরা আমাদের মতো চলবো। (পঞ্চায়েত) এ সি’দ্ধান্ত নেওয়া হয়।’ বিষয়টি জেনে তাৎক্ষণি’কভাবে মসজিদ পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি ও সম্পাদককে সতর্ক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এটিএম ফরহাদ চৌধুরী। তিনি বলেন, আব্দুল হাই চৌধুরীর পরিবারকে যেন হয়রানি না করা হয় সেজন্য বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে থানার ওসি ও

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকেও বিষয়টি নজরে রাখতে এবং ওই পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *