Categories
Uncategorized

গ্যাস বি’স্ফো’র’ণে দগ্ধ হয়ে মা’রা গেল দুই বোন

আমাদের সবাইকে একদিন মরতে হবে। যার সূচনা হয়েছে তার সমাপ্তি ঘটবেই। এটা খোদা পাকের শাশ্বত চিরন্তন বিধান। এ অমোঘ বিধানের

কোন পরিবর্তন পরিবর্ধন নেই। ইংরেজি সাহিত্য স্নাতকোত্তর শেষ করে চাকরির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন সাবরিনা খালেদ (২৪)। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি পরীক্ষায় অংশও নিয়েছিলেন। ছোট বোন সামিয়া খালেদের (১৮) ব্যস্ততা উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা নিয়ে। এই দুই মেয়েকে নিয়ে স্বপ্ন

বু;নছি;লেন বাবা আলাউ;দ্দিন খা;লেদ। কি;ন্তু সব স্ব;প্ন পু;ড়ে গি;য়ে নি;ভে ;গে;ল আ;জ। গ্যাস বি;স্ফো;রণে দ;গ্ধ হ;য়ে; মা;ত্র এক দিনের ব্য;বধা;নে হারা;লেন দু;ই মে;য়েকে। সন্তান হারা;নোর শো;কে বাবা–মা এখন পাথর। গত বৃহস্পতিবার নগরের বাকলিয়া থানার রাহাত্তরপুল এলাকার বিসমিল্লাহ টাওয়ারের একটি বাসায় গ্যাস

বি;স্ফো;র;ণে;র ঘটনা ঘটে। আ;গু;নে দ;গ্ধ হ;য়েছি;লেন বাসা;য় থা;কা দুই বোন। তবে ফায়ার সার্ভিসের কর্মী;রা ঘট;নাস্থলে পৌঁ;ছার আ;গেই প্র;তিবেশীরা আ;গুন নিভি;য়ে ফে;লেন। এরপর দগ্ধ দুই বোনকে প্রথম চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং পরে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। তাঁদের দুজ;নের শ;রীরের প্রা;য় ৫০ শ;তাংশ পু;ড়ে গিয়ে;ছিল।

ঢাকা;য় শে;খ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জা;রি ইনস্টিটি;উটে চিকি;ৎসাধীন অব;স্থায় রোব;বার ব;ড় বো;নের এবং আ;জ সোম;বার ছো;ট বো;নে;র মৃ;ত্যু হয়। এমন করুণ মৃ;ত্যুর জন্য বাড়ির মালিক ও তত্ত্বা;বধায়;কের গাফি;লতি ও অব;হে;লাকে দা;য়ী করছেন নি;হ;ত তরুণীদের স্বজনেরা। তাঁদের অ;ভি;যো;গ, সংযো;গ লিকে;জের কা;রণে

;গ্যাস বে;র হওয়ার ;বিষয়;টি কয়ে;কবার বা;ড়ির মালিক ও ত;ত্ত্বাবধায়ক;কে জা;না;নো হ;য়ে;ছি;ল। কিন্তু তাঁ;রা ব্যব;স্থা নে;ন;নি। নি;হ;ত সাবরিনা খালেদ (২৪) আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) থেকে ইংরেজি সাহিত্য স্নাত;কো;ত্তর করেন। ছো;ট বোন সামিয়া হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজে উচ্চমাধ্যমিকে অধ্যয়নরত ছিল। তাঁদের গ্রামের বাড়ি চন্দনাইশ

উপজেলার ফতেহ নগরে। মা শারমিন খালেদকে নিয়ে নগরের বাসায় থাকতেন দুই বোন বা;বা আলা;উদ্দিন ;খালে;দ স্থা;নীয় ইউ;নিয়ন পরি;ষদে;র সদ;স্য। তবে দু;র্ঘ;ট;না;র দিন মা ও বাবা গ্রা;মের বা;ড়ি;তে ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *