Categories
Uncategorized

সৌদির শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন বেতন ৬৮ হাজার টাকা

সৌদি আরবের শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন মজুরি নির্ধারণ করেছে দেশটির সরকার। সে দেশের মানবসম্পদ ও সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী

জানিয়েছেন, দেশের শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন মজুরি হবে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার সৌদি রিয়াল। যা বাংলাদেশি টাকায় হবে প্রায় ৬৮ হাজার থেকে ৮৭ হাজার টাকা। শ্রমবাজারে সরকার নির্ধারিত এ বেতন কাঠামো দেশের সকল নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে কার্যকর হবে।

৪ হাজার রিয়ালের নিচে বেতন প্রাপ্তরা অর্ধকর্মী বা সৌদি ভাষায় নিতাকাত হিসেবে বিবেচিত হবেন। দেশটির মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসির আল হাজানির উদ্ধৃতি দিয়ে এ খবর জানায় মক্কা নিউজ পেপার। তিনি জানান, এ বেতন কাঠামো প্রতিটি প্রাইভেট সেক্টরে নতুন নিয়োগকৃতদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে। সৌদি সরকারের নতুন এ বিধানে প্রতিটি

কর্মীর ক্ষেত্রে ইন্স্যুরেন্সও প্রযোজ্য হবে। আল হাজানি জানান, নতুন এ কাঠামোর ফলে কত সংখ্যক শ্রমিক উপকৃত হতে যাচ্ছেন, সে ধরনের পরিসংখ্যান নেই সরকারের কাছে। তবে এটি বের করতে কাজ করা হচ্ছে। বর্তমানে সৌদি আরবের শ্রম বাজারে কর্মরত আছে প্রায়

২৪ লাখ বাংলাদেশি। নতুন এ নিয়মের ফলে অপেক্ষাকৃত কম বেতন পাওয়া শ্রমিকরা ন্যায্য মজুরি পাবে বলে।

Categories
Uncategorized

ঢাকা শহরে মোটরবাইকে লেডি ছি’নতা’ইকারী, ঢাবি ছাত্রীর টাকা ছিনিয়ে চম্পট!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞান ইন্সটিটিউটের ছাত্রী নকী সুমাইয়ার ব্যাগ ও টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিয়েছে লেডি ছি’নতা’ইকা’রী।

মোটরসাবাইকে করে তার ব্যাগ ছিনিয়ে নেয় বাইকারের নারী আ’রোহী। রোববার সন্ধ্যায় মিরপুর আইডিয়াল কলেজের সামনে ওই ঘ’টনা ঘটে। এনিয়ে কাফরুল থা’নায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন সুমাইয়া। তিনি বলেন, আমি রাস্তার পাশে দাঁড়িয়েছিলাম, হাঠাৎ করেই একটি বাইক আমার

পাশ দিয়ে যাচ্ছিল। একটি ছেলে বাইক চালাচ্ছিল এবং একটি মেয়ে পিছনে বসে ছিল। বাইকের পেছনে থাকা মেয়েটি আমার হাতের ব্যাগ টান দিয়ে নিয়ে যায়। ব্যাগের ভেতর থেকে পার্স বের করে ব্যাগটা ফেলে চলে যায়। পার্সের ভেতর আমার এনআইডি, হল কার্ড, ভার্সিটির স্মার্টকার্ড

এবং ৩ হাজার টাকা ছিল। কার্ডগুলো হারিয়ে আমি নিঃস্ব ফিল করছি। এনিয়ে কাফরুল থানায় জিডি করেছি।

Categories
Uncategorized

করোনায় ডাক্তাররা অনেক মা’রা গেছেন, কিন্তু একজন হুজুরও মা’রা যায়নি- ড. মাহফুজুর রহমান

করোনায় হুজুররা কেন মারা যাচ্ছেন না তার একটা ব্যখ্যা দাঁড় করালেন বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন বাংলার চেয়ারম্যান কণ্ঠশিল্পী ড.

মাহফুজুর রহমান। যমুনা টেলিভিশন রোববার করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় ‘গণমাধ্যম ও বেসরকারি হাসপাতালের ভূমিকা’ শীর্ষক এক সেমিনারের আয়োজন এ ব্যখ্যার বিশ্লেষণ করেন ড. মাহফুজুর রহমান। তিনি বলেন, করোনার সময়ে ডাক্তাররা অনেক মা’রা গেছেন। কিন্তু

একজন হুজুর যে শতশত মানুষকে নিয়ে নামাজ পড়ছেন; এমন কেউ কী মা’রা গেছেন? আমার জানা নেই। করোনায় কোন হুজুর মা’রা গেছে আমি এখন পর্যন্ত কোন মিডিয়াতে পাইনি। এর কারণ হচ্ছে একজন হুজুর দিনে পাঁচবার ওযু করেন। এর ফলে তার সারা শরীর পরিষ্কার করতে হয়। ওযু কতটা ইফেক্টিভ করোনা প্রতিরোধে তা আপনারা বিবেচনা করুন। সেমিনারে প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডাক্তার

এবিএম আবদুল্লাহ জানান, অতীতের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রস্তুত রয়েছে। আগের চেয়ে করোনা চিকিৎসায় চিকিৎসকদের দক্ষতা বেড়েছে বলেও জানান তিনি। বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন জানান, করোনায় মোকাবেলায় বেসরকারি হাসপাতালগুলো রোগীদের পাশে থাকবে। এসময় ভ্যাকসিনই একমাত্র

প্রতিরোধক নয়, করোনার ভয়াবতা মোকাবিলায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানান বক্তারা।

Categories
Uncategorized

যুবলীগ মাঠে নামলে দৌড়াইয়া কূল পাবেন না, মামুনুল হককে নিক্সন

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ফরিদপুর-৪ আসনের

সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন। নিক্সন বলেন, মামুনুল হক কারে চ্যালেঞ্জ করে? শেখ হাসিনারে চ্যালেঞ্জ করে! ব্যাডা কী পাগল…? মাথায় কি বুদ্ধি কম? আরে শেখ হাসিনা তো অনেক উপরের বিষয়। আজ সারাদেশে যুবলীগের সঙ্গে লইড়া দেখেন। আসেন, দেখেন খেলা

হবে। এই যুবলীগের সঙ্গে এক মিনিট লড়ার ক্ষমতা আপনার নেই। আজ সোমবার (৩০ নভেম্বর) দুপুর আড়াইটায় চট্টগ্রামের পুরোনো রেলস্টেশন চত্বরে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে যুবলীগের নবনির্বাচিত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ বদিউল আলমকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। নিক্সন চৌধুরী বলেন, আমাদের সাথে ফাঁপরবাজি কইরেন না। কোন দেশের টাকা খাইছেন, হঠাৎ কইরা চাঙা

দিয়া উঠছেন। ওইসব দেশের দালালি বন্ধ করেন, এটা বঙ্গবন্ধুর স্বাধীন বাংলাদেশ। নিক্সন চৌধুরী বলেন, যুবলীগ যদি মাঠে নামে ওস্তাদ দৌড়াইয়া কূল পাবেন না। তাই আমার নেত্রীরে চ্যালেঞ্জ জানানোর আগে নেত্রীর সন্তানদের সঙ্গে একটু বুইঝা নেন। তাই এমন ধমক দিয়েন না। দালালি করেন অন্য দেশের। দালালি কইরা

মাল খাইছেন, হেই মাল খাইয়া এহন ভাব নেন, চ্যালেঞ্জ করেন। মামুনুল হককে তেলাপোকার সাথে তুলনা করে নিক্সন বলেন, আরে মিয়া তেলাপোকাও পাখি, আর আপনিও মানুষ। যদি সাহস থাকে তাহলে আসেন মাঠে আসেন। মাঠে খেলা হবে।

আমাদের ভয় দেখাবে না না। আমাদের মাথা থেকে পায়ের আঙুল পর্যন্ত পুরাটাই কইলজা। সূত্রঃ জাগো নিউজ২৪

Categories
Uncategorized

ব্রহ্মপুত্রে বাঁধ দিচ্ছে চীন, পানি সংক’টের আ’শঙ্কায় ভারত

তিব্বতে ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর বাঁধ দিচ্ছে চীন। স্থানীয়ভাবে ইয়ারলাং জ্যাংবো নামে পরিচিত এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ নদটিতে একটি বিশাল

জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্যোগ নিয়েছে দেশটি। এরই অংশ হিসেবে কর্তৃপক্ষের কাছে একটি সুষ্পষ্ট প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। বেইজিংয়ের ১৪তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার অংশ হিসেবে আগামী বছরের শুরুতেই এই প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করা হবে। এতে পানি সংকটের আশঙ্কা তৈরি

হয়েছে উত্তর-পূর্ব ভারতে। প্রভাব পড়ার আশঙ্কা বাংলাদেশেও। চীন, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত ১৭৬০ মাইল দীর্ঘ ব্রহ্মপুত্র নদ।
হিমালয় থেকে উৎপত্তি হয়ে তিব্বতের ভেতর দিয়ে তা ব্রহ্মপুত্র নামে অরুণাচল হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। চীনের রাষ্ট্রীয় দৈনিক গ্লোবাল টাইমস জানিয়েছে, চীনের ১৪তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় আগামী বছর থেকে তিব্বতে ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর বাঁধ নির্মাণের মাধ্যমে এ জলবিদ্যুৎ

প্রকল্পের কাজ শুরু হতে পারে। পাওয়ার কনস্ট্রাকশন কর্পোরেশন অব চায়নার চেয়ারম্যান ইয়ান ঝিওং সংবাদ সম্মেলনে বলেন, এই নদীর তলদেশে জলবিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। এর ফলে পানিসম্পদ এবং অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা বজায় থাকবে। তিনি বলেন, ইতিহাসে সমান্তরাল কিছু নেই। এটি চীনা জলবিদ্যুৎ শিল্পের জন্য ঐতিহাসিক সুযোগ তৈরি হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘দেশের একাধিক অংশের পানি সরবরাহের উৎস ছাড়াও এ বাঁধ বিদ্যুৎ সরবরাহে ব্যাপক সাহায্য করবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে পানিবণ্টন ব্যবস্থা ও জাতীয় সুরক্ষা বজায় রাখা যাবে। তিনি জানান, বাঁধটি থেকে বছরে ছয় কোটি কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে, যা বার্ষিক ৩০০ বিলিয়ন কিলোওয়াট

কার্বনমুক্ত ও পুনর্ব্যবহারযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে এবং বছরে ৩০০ কোটি ডলার আয় হবে। তিব্বতে এই নদীর ওপর বাঁধ দেয়ার সিদ্ধান্ত ভারত ও বাংলাদেশের উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর ফলে ভাটিতে পানির প্রবাহ কমে যাবে উদ্বেগের কারণ, বাঁধের কারণে শুষ্ক মৌসুমে পানির

প্রবাহ কমে যেতে পারে। এতে একটি অংশের মানুষের জীবন ও জীববৈচিত্র্যে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটতে পারে।

Categories
Uncategorized

ভা’স্কর্য থাকা না থাকার ইজারা জনগণ মৌ’লবাদী’দের হাতে দেয়নি

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনে বিরোধিতা নিয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশকে কখনো

আলাদা করা যায় না। এ দেশে ভাস্কর্য আছে, ভাস্কর্য থাকবে। ভাস্কর্য থাকবে কি থাকবে না সেটা নির্ধারণ করবে সরকার। ওই মৌলবাদীদের যারা ধর্মের নামে ধর্মবিরোধী কাজ করে তাদের হাতে ভাস্কর্য থাকা না থাকার ইজারা কিন্তু এ দেশের জনগণ দেয়নি।’ সোমবার (৩০ নভেম্বর)

সচিবালয় থেকে ইউএসএইড ও ওয়ার্ল্ড ভিশনের যৌথ আয়োজনে ‘মেল এনগেজমেন্ট ফর জেন্ডার ইক্যুয়ালিটি: সাসটেইনড ইমপ্যাক্ট অ্যান্ড চেঞ্জেস ইন সাউথ ওয়েস্ট বাংলাদেশ’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ইরাক, ইরান, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, তুরস্কসহ মুসলিম প্রধান অনেক দেশেই কিন্তু আমরা ভাস্কর্য দেখি। মৌলবাদী

দলগুলো বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভেঙে ফেলার যে হুমকি দিয়েছে তা অত্যন্ত ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ, তাদের বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’
তিনি বলেন, ‘যারা মসজিদ-মন্দিরে আগুন দেয়, ধর্মবিরোধী কাজ করে, বিশ্ব ইজতেমায় আসা মুসল্লি ও চলন্তবাসে আগুনে মানুষ পুড়িয়ে মারে তাদের মুখে ধর্মের কথা মানায় না। যারা স্বাধীনতার মূল্যবোধ ও

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী না তারাই ভাস্কর্য নিয়ে হুমকি-ধমকি দেয়।’ প্রতিমন্ত্রী হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘দুই লাখ মা-বোনের আত্মত্যাগ এবং ৩০ লাখ শহীদের রক্তে ভেজা বাংলাদেশের মাটিতে মৌলবাদীদের স্থান হবে না।’ কর্মশালায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ডিভিশন অব নেচার অ্যানালাইসিস করে দেখা যায়, পুরুষরা উপার্জনকারী ব্যক্তি হিসেবে সমাজে গণ্য হয়ে থাকে।

নারীরা গৃহস্থালির কাজ করে তবে তাদের কাজের মূল্যায়ন হয় না। নারীরা যেমন চ্যালেঞ্জ নিয়ে বাইরে কাজ করছে পুরুষদেরও তেমন ঘরের কাজ করা উচিত। যে পরিবারের স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে কাজ করে সেখানে আর্থিক সমৃদ্ধি হয়। যার মাধ্যমে নারীরা ক্ষমতায়িত হয়।’ ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশের ন্যাশনাল ডিরেক্টর সুরেশ বার্টলেটের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ইউএন উইমেন কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টিভ শোকো

ইশিকাঊয়া ও ইউএসএইডের বাংলাদেশের মিশন ডিরেক্টর ডেরিক এস ব্রাউন, প্যানেল আলোচক হিসেবে ছিলেন ইউএসএইড বাংলাদেশের সিনিয়র প্রোগ্রাম স্পেশালিস্ট মাহমুদা রহমান খান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের অধ্যাপক তাসলিমা ইয়াসমিন। এছাড়া গবেষক, দেশী-বিদেশী উন্নয়ন সংস্থার প্রতিনিধি ও গণমাধ্যম কর্মীরা বক্তব্য রাখেন।

কর্মশালায় উপস্থাপিত গবেষণা প্রবন্ধের ওপর আলোচনা করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নবযাত্রা প্রকল্পটি খুলনার দাকোপ ও কয়রা এবং সাতক্ষীরার শ্যামনগর এবং কালিগঞ্জ এলাকায় বাস্তবায়ন হচ্ছে। সেখানে পরিবারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ, ঘরের বাইরে নারীর কাজে অংশগ্রহণ ও বাল্যবিয়ে বিষয়ে ইতবাচক পরিবর্তন হয়েছে। ৯ হাজার ৮১৪ জন দম্পতির মধ্যে ৮৯ দশমিক ৩৫ শতাংশ পুরুষ মনে

করে, পরিবারে নারীর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা অত্যন্ত জরুরি। ৪৪ দশমিক ১৬ শতাংশ পুরুষ মনে করে, কাজের জন্য ও জরুরি প্রয়োজনে নারীদের বাড়ির বাইরে যাওয়া স্বাভাবিক। ৯২ দশমিক ৬৫ শতাংশ পুরুষ মনে করে গৃহস্থালির কাজে পুরুষদেরও সহায়তা করা দরকার।’ তিনি আরও বলেন, ‘এ বিষয়ে আরও বড় পরিসরে কাজের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ের নারীদের ক্ষমতায়নে ভূমিকা

রাখবে বলে আমি আশা করি। নারী যত দ্রুত সব অর্থনৈতিক কার্যক্রমে জড়িত হবে তত দ্রুত দেশের উন্নয়ন হবে।’

Categories
Uncategorized

মামুনুল হককে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে নিক্সন চৌধুরী বললেন

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ফরিদপুর-৪ আসনের

সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন। বরাবরের মতো স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে নিক্সন বলেন, ‘মামুনুল হক কারে চ্যালেঞ্জ করে? শেখ হাসিনারে চ্যালেঞ্জ করে! ব্যাডা কী পাগল…? মাথায় কি বুদ্ধি কম? আরে শেখ হাসিনা তো অনেক উপরের বিষয়। আজ সারাদেশে যুবলীগের

সঙ্গে লইড়া দেখেন। আসেন, দেখেন খেলা হবে। এই যুবলীগের সঙ্গে এক মিনিট লড়ার ক্ষমতা আপনার নেই।’ সোমবার (৩০ নভেম্বর) দুপুর আড়াইটায় চট্টগ্রামের পুরোনো রেলস্টেশন চত্বরে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে যুবলীগের নবনির্বাচিত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ বদিউল আলমকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের সাথে ফাঁপরবাজি কইরেন না। কোন দেশের টাকা

খাইছেন, হঠাৎ কইরা চাঙা দিয়া উঠছেন। ওইসব দেশের দালালি বন্ধ করেন, এটা বঙ্গবন্ধুর স্বাধীন বাংলাদেশ।’তিনি বলেন, ‘যুবলীগ যদি মাঠে নামে ওস্তাদ দৌড়াইয়া কূল পাবেন না। তাই আমার নেত্রীরে চ্যালেঞ্জ জানানোর আগে নেত্রীর সন্তানদের সঙ্গে একটু বুইঝা নেন। তাই এমন ধমক দিয়েন না। দালালি করেন অন্য দেশের। দালালি কইরা মাল খাইছেন,

হেই মাল খাইয়া এহন ভাব নেন, চ্যালেঞ্জ করেন।’ মামুনুল হককে তেলাপোকার সাথে তুলনা করে নিক্সন বলেন, ‘আরে মিয়া তেলাপোকাও পাখি, আর আপনিও মানুষ। যদি সাহস থাকে তাহলে আসেন মাঠে আসেন। মাঠে খেলা হবে।

আমাদের ভয় দেখাবে না না। আমাদের মাথা থেকে পায়ের আঙুল পর্যন্ত পুরাটাই কইলজা। সূত্রঃ জাগোনিউজ

Categories
Uncategorized

উচ্চশব্দ’র অভি’যোগ পেলেই বন্ধ হবে মাহফিল

ওয়াজ মাহফিলে উচ্চশব্দ ব্যবহারে জনদুর্ভোগ লাঘবে সরকারি নির্দেশনায় ব্যবস্থা নিচ্ছে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন। ইতিমধ্যে এ বিষয়ে পুলিশ

সুপার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ওসিদের নির্দেশনা দিয়েছে জেলা প্রশাসন। কোথাও ওয়াজ মাহফিলের উচ্চশব্দের অভিযোগ পেলে মাহফিল বন্ধ করে দেয়া হবে। সাতক্ষীরা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কার্যালয় থেকে সহকারী কমিশনার ইন্দ্রজিত সাহা স্বাক্ষতির পত্রে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি

করা হয়েছে। সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ইন্দ্রজিত সাহা জানান, ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের একটি রেজুলেশনের সিদ্ধান্তের আলোকে গত ২৫ নভেম্বর এ নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। কোথাও ওয়াজ মাহফিলে উচ্চশব্দ ব্যবহার করলে আর সে বিষয়ে কেউ অভিযোগ

জানালে সেটি বন্ধ করা হবে। ইতিমধ্যে পুলিশ সুপার, ইউএনও এবং ওসিদের এ বিষয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ওয়াজ মাহফিল মূলত রাতে হয়। উচ্চশব্দের কারণে রাতে মানুষের ঘুমে সমস্যা হয়, জনদুর্ভোগ হয়। সেজন্য কেউ যদি অভিযোগ করে

তবে জনদুর্ভোগ লাঘবে মাহফিল বন্ধ করা হবে। উচ্চশব্দ ব্যবহার ছাড়া মাহফিল পরিচালনায় কোনো বাধা নেই।

Categories
Uncategorized

বিকাশ প্রতারকের সঙ্গে প্রেম করে টাকা উদ্ধার করলেন কলেজছাত্রী

রাজশাহী: মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বিকাশে প্রতারণার শিকার হয়েছিলেন- রাজশাহীর এক কলেজছাত্রী। প্রতারকরা তার বিকাশ থেকে কৌশলে

হাতিয়ে নিয়েছিল ৫০ হাজার টাকার মতো। পরে পুলিশের পরামর্শে তিনি ওই প্রতারকের সঙ্গেই প্রেমের অভিনয় শুরু করেন। এক পর্যায়ে তাদের প্রেম জমে উঠে এবং ওই বিকাশ প্রতারক কলেজছাত্রীর সঙ্গে দেখা করতে ফরিদপুর থেকে রাজশাহী যান। আর তখনই এক সহযোগীসহ

ওই প্রতারককে আটক করে রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ। আটক দুজন হলো- ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার জাঙ্গালপাশা মধ্যপাড়া গ্রামের আবদুল খানের ছেলে হাসান খান (১৯) এবং জাঙ্গালপাশা পূর্বপাড়া গ্রামের নূর মোহাম্মদ শেখের ছেলে মাহমুদ হাসান ওরফে বায়েজিদ (১৯)। আটকের পর তাদের জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে পুলিশ বলছে- এরা পেশাদার প্রতারক। মুঠোফোনে কল দিয়ে তারা কৌশলে

বিকাশের পিন নম্বর হাতিয়ে নেয়। এরপর ওই বিকাশ অ্যাকাউন্ট থেকে ছয় সংখ্যার পিন দিয়ে সরিয়ে ফেলে বিকাশের টাকা। অভিযোগ পাওয়ার পরে টাকা উদ্ধারে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে মাঠে নামে ডিবি পুলিশ। এর পর প্রেমের ফাঁদে ফেলা কলেজছাত্রীর সঙ্গে দেখা করতে এলে রোববার (২৯ নভেম্বর) বিকেলে রাজশাহী মহানগরীর লক্ষ্মীপুর মোড়

থেকে এদের আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৭৬ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। রাজশাহী মহানগর ডিবি পুলিশের উপ-কমিশনার (ডিসি) আবু আহাম্মদ আল মামুন সোমবার (৩০ নভেম্বর) দুপুরে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী রাজশাহী নিউ গভ. ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী। গত ১৬ নভেম্বর তার মুঠোফোনে অচেনা একটি নম্বর থেকে কল আসে। ওই ব্যক্তি

ছিল বিকাশ প্রতারক হাসান। তবে সে নিজেকে ওই শিক্ষার্থীর কলেজের শিক্ষক পরিচয় দেয়। সে বলে, করোনাকালে বিকাশের মাধ্যমে সরকার শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দিচ্ছে। কিন্তু যে নম্বরে বৃত্তি পাঠানো হবে সেই বিকাশে অন্তত ৫০ হাজার টাকা থাকতে হবে। তাহলেই এই নম্বরে সরকার টাকা পাঠাবে। বিষয়টি আঁচ করতে না পেরে ওই শিক্ষার্থী তার অভিভাবকের সঙ্গে কথা বলে বিকাশে ৫০ হাজার টাকা ক্যাশ ইন করেন। আর তার বিকাশে আগে থেকেই কিছু টাকা ছিল। ওই ছাত্রী বিকাশে টাকা ঢোকানোর পর প্রতারক হাসান কৌশলে তার পিন নম্বরটি জেনে নেয়।

এরপর সে ওই ছাত্রীর বিকাশ থেকে ৫১ হাজার টাকা সরিয়ে নেয়। পরে বিকাশে প্রতারিত হওয়ার বিষয়টি টের পেয়ে ওই ছাত্রী ডিবি পুলিশের সাহায্য চান। মহানগর ডিবি পুলিশের উপ-কমিশনার আবু আহাম্মদ আল মামুন আরও বলেন, ‘সবকিছু শোনার পর তিনি ওই ছাত্রীকে পরামর্শ দেন যে অন্য একটি নম্বর থেকে ওই প্রতারকের সঙ্গে কথাবার্তা বলার। যেহেতু আগে খুব বেশি কথা হয়নি, সে হয়তো বুঝতে পারবে না। এই

কৌশলেই ধরা পড়ে যায় ওই প্রতারক। পরদিন থেকেই মেয়েটি অন্য একটি নম্বর থেকে তার সঙ্গে কথা শুরু করে। প্রতারক মেয়েটিকে চিনতে পারেনি। তবে কথোপকথন শুরুর পর মেয়েটির চেয়ে প্রতারকটাই বেশি কথা বলতে আগ্রহী হয়ে ওঠে। মেয়েটিকে প্রেমের প্রস্তাব দিলে সে রাজিও হয়ে যায়। তারপর প্রেমের অভিনয় করতে থাকে এবং এসবের আপডেট আমাদের জানাতে থাকে। এই ১২ দিনেই তাদের প্রেম জমে

ওঠে।ডিবি পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, তাদের পরামর্শে ওই ছাত্রী প্রতারককে দেখা করার জন্য ডাকে। এই ডাকে সাড়া দিয়ে হাসান তার সহযোগী আরেক প্রতারককে নিয়ে রোববার রাজশাহী মহানগরীর লক্ষ্মীপুর মোড়ে আসে। এ সময় সাদাপোশাকে সেখানে আগে থেকেই ওঁৎ পেতে ছিলেন ডিবি পুলিশের সদস্যরা। ওই কলেজছাত্রীর সঙ্গে দেখা করার পরপরই তারা দুই প্রতারককে ধরে ফেলেন। আটকের সময় দুইজনের কাছে মোট ৭৬ হাজার টাকা পাওয়া গেছে। এদের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর বাবা মহানগরীর রাজপাড়া থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা

আইনে মামলা করেছেন। ওই মামলায় সোমবার (৩০ নভেম্বর) দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ৩০, ২০২০
এসএস/এইচএডি

Categories
Uncategorized

মালয়েশিয়ায় দেয়াল ধ’সে বাংলাদেশি শ্রমিক আ’হত

মালয়েশিয়ায় কংক্রিটের দে;য়াল ধ;সে দুইজন বাংলাদে;শি নি;র্মাণ শ্র;মিক গু;রুতর আ;ত হয়েছে। রোববার (২৯ নভেম্বর) মালয়েশিয়ার

পেনাং রাজ্যের বন্দর কাসিয়া এলাকার একটি বেসরকারি কলেজের লবি সং;স্কারের কাজ করছিলেন তারা। এসময় হঠাৎ কংক্রিটের দেয়াল ধ;সে চা;পা পড়ে মোশাক (৪২) ও আবদুল মান্নান (৪০) নামের দুই বাংলাদেশী নির্মাণ শ্রমিক গুরু;ত;র আ;হ;ত হন। পেনাং ফায়ার অ্যান্ড

রেসকিউ ডিপার্টমেন্টের (জেবিপিএম) অপারেশন অফিসার আজমি তাহের জানিয়েছেন, স্থানীয় সময় রোববার বিকাল ৫টার দিকে এই দুর্ঘটনার খবর তাদের কাছে পৌঁছায়। আজমি তাহের বলেন, ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর পর আমরা দেখতে পাই যে দুজন বাংলাদেশী

শ্রমিক ধ্বং;স;স্তূপের নি;চে আট;কে আছে এবং আ;হ;তের কয়েকজন সহকর্মী তাদের ধ্বং;সস্তূ;পের ভেতর থেকে বের করার চেষ্টা করলেও কংক্রিটের টুকরোগুলো ভারী থা;কায় তাদের উ;দ্ধারে ব্যর্থ হয়। পরে, পুলিশের সহযোগিতায় কংক্রিটের স্তূপ

থেকে দুই বাংলাদেশিকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় সেবেরাং জয়া হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।